অবশেষে ভাসানচরের পথে রোহিঙ্গারা - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১ ২রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শনিবার

প্রকাশ :  ২০২০-১২-০৩ ০৭:২৪:১১

অবশেষে ভাসানচরের পথে রোহিঙ্গারা

অবশেষে ভাসানচরের পথে রোহিঙ্গারা

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার : কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্প থেকে বিশাল বহর নিয়ে ভাসানচরের দিকে রওনা হয়েছে রোহিঙ্গারা। আজ ৩ ডিসেম্বর সকালে তারা নোয়াখালীর ভাষানচরের দিকে রওনা হন।
কক্সবাজার থেকে চট্টগ্রাম এনে সেখান থেকে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে নেয়ার জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে নৌবাহিনীর ১৪টি জাহাজ। প্রথম ২ মাস তাদের রান্না করা খাবার সরবরাহ করা হবে। এরপর নিজ নিজ বাসস্থানেই তারা রান্না করতে পারবেন।

জানাগেছে, কক্সবাজার থেকে ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তরে সার্বিক নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছে র‌্যাব-৭ ও র‌্যাব-১৫। এক লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থীকে নোয়াখালীর ভাসানচরে স্থানান্তর করার জন্য সরকার একটি মেগা প্রকল্প গ্রহণ করেছে। এতে সব ধরণের আধুনিক সুযোগ সুবিধা থাকার সত্বেও ভাসানচরে যেতে আগ্রহী ছিল না রোহিঙ্গারা। অবশেষে প্রথম ধাপে ৬শ’ রোহিঙ্গা পরিবার ভাসানচরের দিকে রওনা হয়েছে।
কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফের ৩৪টি ক্যাম্প থেকে নিজ ইচ্ছায় ভাসানচরে যেতে রাজি এমন রোহিঙ্গাদের নিয়ে যেতে উখিয়া কলেজ মাঠে একটি অস্থায়ী ট্রানজিট পয়েন্ট স্থাপন করা হয়েছে। চলমান এ প্রক্রিয়ায় প্রায় ১ লাখ রোহিঙ্গা ভাসানচরে যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে সংশ্লিষ্টরা।

একটি সূত্র জানিয়েছে, ৩ ডিসেম্বর ভোর থেকে প্রায় ১২ টি বাস ভর্তি করে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরের উদ্দেশ্য নিয়ে যাওয়া হয়। তাদের জন্য পর্যাপ্ত খাদ্য মজুতসহ পরিবহন ব্যবস্থাও করা হয়েছে। তাদের জন্য ৬৬ টন খাদ্য সামগ্রী মজুত করা আছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রটি নিশ্চিত করেছেন।
ক্যাম্প-২০ এর হেডমাঝি মোহাম্মদ হোছন জানান, ক্যাম্প-২০ এবং ২০ এক্সটেনশন থেকে ৮টি রোহিঙ্গা পরিবার ভাসানচরের উদ্দেশ্যই রওনা হয়েছে।
ক্যাম্প-১৭ এর হেডমাঝি মোহাম্মদ নুর বলেন, তার ক্যাম্প থেকে ৭০ পরিবারের নাম দেয়া হলেও ৯টি পরিবার ভাসানচরের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছে।
ক্যাম্প-৫ এর হেডমাঝি জাফর আলম বলেন, তার ক্যাম্প থেকে মাত্র ৫টি পরিবার ভাসানচরে যাচ্ছে।
সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রায় তিন হাজার ১০০ কোটি টাকায় নির্মিত রোহিঙ্গাদের জন্য এ অস্থায়ী আবাসস্থল এখন কর্মমুখর। দ্বীপটি বাসস্থানের উপযোগী করা, অবকাঠামো উন্নয়ন, বনায়ন এবং নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল নৌবাহিনীকে।
ভাসানচরে নেয়ার এ উদ্যোগ গ্রহণের আগে ২২টি এনজিও সংস্থার প্রতিনিধিদল সেখানে পরিদর্শন করেন। তারা ফিরে এসে সন্তোষজনক মন্তব্য করেন। তারা রোহিঙ্গাদের সেখানে স্থানান্তর করতে সহযোগীতার আশ্বাস দেন।

এদিকে, ২ ডিসেম্বর জাতিসংঘ আবাসিক সমন্বয়কারীর কার্যালয় থেকে পাঠানো এক বিবৃতিতে বলা হয়, আগামী দিনে কক্সবাজার থেকে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ভাসানচরে সরিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা সম্পর্কে জাতিসংঘ অবগত আছে। কিন্তু শরণার্থীদের স্থানান্তর প্রস্তুতি কিংবা রোহিঙ্গাদের শনাক্তকরণ প্রক্রিয়ার সঙ্গে সংস্থাটিকে যুক্ত করা হয়নি। তাই ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তরের ব্যাপারে জাতিসংঘ তার আগেকার অবস্থানেই রয়েছে। রোহিঙ্গা শরণার্থীরা যেন জেনে-বুঝে এবং মুক্তভাবে সিদ্ধান্ত নিতে পারে তা নিশ্চিত করতে হবে। সেজন্য জায়গাটি সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট তথ্যের ওপর ভিত্তি করে যেন তারা সিদ্ধান্ত নিতে পারে।
উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের আগস্টে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর গণহত্যা ও নিপীড়নের মুখে পড়ে দেশটি থেকে কয়েক লক্ষ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আসে।

আরো সংবাদ