অবশেষে মিস ম্যানেজমেন্টে যাত্রা শুরু করল বে ওয়ান ক্রুজ! - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ২৪ জানুয়ারী ২০২১ ১০ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-১২-২২ ১০:২১:০৬

অবশেষে মিস ম্যানেজমেন্টে যাত্রা শুরু করল বে ওয়ান ক্রুজ!

অবশেষে মিস ম্যানেজমেন্টে যাত্রা শুরু করল বে ওয়ান ক্রুজ!

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার : মিস ম্যানেজমেন্ট ও বিশৃঙ্খলার মধ্যে দিয়ে যাত্রা শুরু করল বে ওয়ান নামের বিলাসী জাহাজটি। গত ২ দিন ধরে জাহাজ কর্তৃপক্ষের কার্যক্রম নিয়ে সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা। পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট দপ্তর থেকে ছাড়পত্র না নিয়ে কিভাবে এ জাহাজ যাত্রা শুরু করল তা নিয়ে সংশ্লিষ্টদের ভাবিয়ে তুলেছে কর্তৃপক্ষ।

জানাগেছে, ডাকঢোল পিটিয়ে কক্সবাজার-সেন্টমার্টিন নৌপথে পর্যটকবাহী জাহাজ বে-ওয়ান ক্রুজ উদ্বোধন করা হয়েছে। যেখানে সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ, পর্যটন ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন স্তরের মান্যগণ্য ব্যক্তিদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। গত রোববার (২০ ডিসেম্বর) বিকেলে চট্টগ্রামের আনোয়ারার মেরিন একাডেমির জেটিঘাট থেকে পায়রা উড়িয়ে জাহাজটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালেদ মাহবুব চৌধুরী এমপি। এ সময় বেসরকারি বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী উপস্থিত ছিলেন। বাকি অনুষ্ঠান সাগরপথে অনুষ্ঠিত হয়। জাহাজে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করেন শিল্পী রবি চৌধুরী, লুইপা ও চট্টগ্রামের মেয়ে লিজা। আনুষ্ঠানিকতা শেষে আমন্ত্রিত অতিথিরা কক্সবাজারের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন। রাত দেড়টার দিকে জাহাজটি কক্সবাজার শহরের নুনিয়ারছড়ার অঘোষিত ঘাটে পৌঁছে।

এদিকে, কর্ণফুলী শীপ বিল্ডার্স লিমিটেডের এমভি বে-ওয়ান ক্রুজ উদ্বোধনের দিনেই চরম অব্যবস্থাপনা ও বিশৃঙ্খলার অভিযোগ তুলেছেন আমন্ত্রিত অতিথিরা। বসার স্থান, খাবার ও পানীয় নিয়ে চরম ভোগান্তির শিকার। পাশাপাশি করোনাকালের তোয়াক্কা করা হয়নি স্বাস্থ্যবিধি। জাহাজের বিভিন্ন সেকশনে তথ্যের জন্য গেলে প্রতিবন্ধকতার মুখে পড়ে সাংবাদিকরা।

জাহাজের ২য় তলায় ক্যান্টিনে খাবার দেয়ার বেলায় নাটকীয়তা চোখে পড়ে। সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত খাবারের জন্য কেন্টিনের সামনে খালি প্লেট হাতে ক্ষুধার্তদের দীর্ঘ লাইন পুরো আয়োজনকে একেবারে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে।তাদের দুঃখ, জাহাজে যাত্রীদের হাহাকার উপেক্ষা করে তথাকথিত ভিআইপিদের জন্য খাবার নিয়ে যায় কর্তৃপক্ষ। খাবার চেয়ে উল্টো অপমানের শিকার হয়েছে।

আমন্ত্রিত অতিথি দৈনিক সমুদ্র কন্ঠের সম্পাদক অধ্যাপক মইনুল হাসান পলাশ বলেন, যারা অতিথি হিসেবে গেছেন তারা মালিক পক্ষের আচরণে সম্পূর্ণ হতাশ। অতিথিদের ডেকে এনে অপমান করার মত। সেবা প্রদানে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি ছিল বিশেষ কিছু ব্যক্তির প্রতি। পর্যটনের বিকাশে এটা আনা হলেও তাদের ব্যবস্থাপনা পর্যটন বান্ধব নয়।

ফেজবুকে টেকনাফের বাসিন্দা মোহাম্মদ ইসমাঈল নামের এক যুবক লিখেছেন, কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিন নৌ রুটে ভিআইপি জাহাজ নিয়ে আসা যাওয়া করতে পারলে মাদক কারবারির আর কোন টেনশন নাই। কারন সেন্টমার্টিন থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত কোন চেকপোস্ট নেই।

এদিকে, কর্ণফুলী জাহাজে করে কক্সবাজার থেকে রাত ১২ টার দিকে খাবারের প্যাকেট নেয়া হয়। আমন্ত্রণ ও চাহিদার অতিরিক্ত যাত্রী থাকায় তাতেও সংকট থেকে যায়। এভাবে বঙ্গোপসাগর থেকে শহরের নুনিয়ারছড়া ঘাটে রাত আড়াইটার দিকে যাত্রীদের নামানো হয়। ওই সময় গাড়ী না পেয়ে যাত্রীদের পড়তে হয় আরেক বিড়ম্বনায়। অনেকে হেঁটে গন্তব্যে ফিরেছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে কর্ণফুলী শীপ বিল্ডার্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার এম এ রশিদ বলেন, উদ্বোধনের দিন হিসেবে একটু মিস ম্যানেজমেন্ট হয়েছে। লোক বেশি হলে মারাও যায়। জাহাজে এমন ঘটনা তো ঘটেনি। আশা করছি দু’য়েকদিনের মধ্যে সব ঠিক হয়ে যাবে ইনশাল্লাহ।
পরিবেশের ছাড়পত্রের বিষয়ে তিনি বলেন, ২০ ডিসেম্বর এমভি বে ওয়ান ক্রুজ সাগরে যাত্রা শুরু করেছে। প্রয়োজনীয় সব কাগজপত্র ইতোমধ্যে হয়ে গেছে। তবে পরিবেশ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে জানাগেছে, এ জাহাজ সংক্রান্ত কোনো কাগজপত্র তাদের কাছে নেই।

আরো সংবাদ