আজ ঐতিহাসিক বদর দিবস - কক্সবাজার কন্ঠ । কক্সবাজারের মুখপত্র

শনিবার, ৬ জুন ২০২০ ২৩শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০৫-১০ ২২:৫৪:০৮

আজ ঐতিহাসিক বদর দিবস

বদরের প্রেক্ষাপটঃ আজ ঐতিহাসিক বদর দিবস ও আম্মাজান আয়েশা ছিদ্দীকা (রাঃ)’র ওফাত দিবস।

জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল কক্সবাজার কন্ঠের সৌজন্যে মাহে রমজানের ধারাবাহিক “রমজান কন্ঠ” কলাম থেকে-

ধারাবাহিক পর্ব-১৭
চিরচারিত নিয়ম-অনুযায়ী প্রাথমিক পর্যায়ে শুরু হয় দ্বন্দ্বযুদ্ধ বা মল্লযুদ্ধ। সর্বকালের সেরা সমরনায়ক বিশ্বনবি হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম- এর নির্দেশে মল্লযুদ্ধে মুসলমানদের পক্ষ থেকে অবতীর্ণ হন হযরত আমীর হামযা (রা.), হযরত আলী (রা.) ও হযরত আবু ওবাইদা (রা.) এবং কাফেরদের পক্ষ থেকে কুরাইশ নেতা উতবা, শায়বা এবং ওয়ালিদ বিন উতবা।

ভাগ্যক্রমে প্রাথমিক পর্যায়ের এ যুদ্ধে কুরাইশ নেত্রীবৃন্দ পরাজিত ও নিহত হয়। উপায়ান্তর না দেখে কুরাইশ সেনাপতি আবু জেহেল তার বাহিনীসহ মুসলমানদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। যুদ্ধের ময়দানে দু’পক্ষই বিরত্বের পারাকষ্ঠা প্রদর্শন করে। একপর্যায়ে কুরাইশরা মুসলমানদের প্রচণ্ডভাবে আক্রমণ শুরু করে। কিন্তু প্রতিকূল অবস্থায়ও সংঘবদ্ধ ও সুশৃঙ্খল মুসলিম বাহিনীর মোকবেলা করা কুরাইশদের পক্ষে সম্ভব হয়ে উঠেনি।

যার ফলে কুরাইশদল তাদের ৭০ জন বীরের শবদেহ এবং আরো ৭০ জনকে বন্দী অবস্থায় ফেলে রণে ভঙ্গ দিয়ে মুসলমানদের নাগাল থেকে পালায়ন করে। আর এই যুদ্ধে মক্কার বিখ্যাত কাফের সর্দার আবু জেহেল, উতবা ও শায়বাসহ আরো অনেকেই নিহত হয়। অপরদিকে মাত্র ১৪ জন মুসলিম সৈন্য শাহাদাতের অমিয় সুধা পান করেন- ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

অল্প সংখ্যক মুসলমানদের মোকাবেলায় কুরাইশের বিশাল বাহিনীর পরাজয় বিস্ময়ের অন্যতম প্রকৃষ্ট নিদর্শন। মহানবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর সামরিক অভিজ্ঞতা, দূরদর্শী বিচক্ষণতা, কাফেরদের প্রতি উত্তম ব্যবহারের নির্দেশনা এবং মুসলিম বাহিনীকে সাহস ও হিম্মত দান ছিল এ যুদ্ধে মুসলিম বিজয়ের অন্যতম প্রেরণা শক্তি।

সবিশেষ মহান আল্লাহর অদৃশ্য শক্তির বহিঃপ্রকাশও মুসলমানদেরকে বিজয় ছিনিয়ে আনতে অনন্য ভূমিকা রেখেছে। পবিত্র কুরআনের বাণী : “বস্তুত: আল্লাহ বদরের যুদ্ধে তোমাদের সাহায্য করেছেন, অথচ তোমরা ছিলে দুর্বল। কাজেই আল্লাহকে ভয় কর, যাতে তোমরা কৃতজ্ঞ হতে পার। হে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম! আপনি যখন বলতে লাগলেন মুমিনগণকে- তোমাদের জন্য কি যথেষ্ট নয় যে, তোমাদের সাহায্যর্থে তোমাদের পালনকর্তা আসমান থেকে অবতীর্ণ তিন হাজার ফেরেশতা পাঠাবেন? অবশ্য তোমরা যদি ধৈয্যধারণ কর এবং বিরত থাক আর তারা যদি তখনই তোমাদের উপর চড়াও হয়, তাহলে তোমাদের পালনকর্তা চিহ্নিত ঘোড়ার উপর পাঁচ হাজার ফেরেশতা তোমাদের সাহায্যে পাঠান।

বস্তুত এটি তো আল্লাহ তোমাদের সুসংবাদ দান করলেন, যাতে তোমাদের মনে এতে সান্ত্বনা আসতে পারে। আর সাহায্য শুধুমাত্র পরাক্রান্ত, মহাজ্ঞানী আল্লাহরই পক্ষ থেকে। যাতে ধ্বংস করে দেন কোনো কোনো কাফেরকে অথবা লাঞ্চিত করে দেন- যেন ওরা বঞ্চিত হয়ে ফিরে যায়।”(সূরা আলে ইমরান, আয়াত নং,১২৩-১২৭)
🔷আম্মাজান আয়েশা (রাঃ) এর ওফাতঃ
হযরত আয়িশা বিনতে আবু বকর (রা.) ছিলেন নুর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর বিবিগণের মধ্যে একজন। তিনি ছিলেন তাঁর তৃতীয় বিবি। ইসলামের ঐতিহ্য অনুসারে, তাকে “উম্মুল মু’মিনিন” বা “বিশ্বাসীদের মাতা” হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। মুসলিম সম্প্রদায় তাকে নুর নবী মুহাম্মদ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর বিবি হিসেবে অত্যন্ত সম্মান ও শ্রদ্ধা করে থাকেন। এছাড়া ইসলামের ঐতিহ্যগত ইতিহাসেও তার অবদান অনস্বীকার্য এবং অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।
এই মহিয়সী রমণী রোগে আক্রান্ত হয়ে ৫৮ হিজরি সনের ১৭ই রমজান (১৬ই জুলাই,৬৭৮ খ্রিষ্টাব্দ) ইন্তেকাল করেন। ইন্তেকালের সময় তার বয়স ছিল ৬৮ বছর। সর্বাধিক হাদিস বর্ণনাকারী সাহাবী আবু হুরায়রা (রা.) তারাবিহ্’র নামাজের পর তার জানাজা পড়ান এবং জান্নাতুল বাকিতে তাকে কবরস্থ করা হয়।

লিখক:
মাওলানা হেলাল আহমদ রিজভী
কামিল (এম,এ) ফার্স্ট ক্লাস
মাওলানা বাড়ী, সোনারপাড়া, উখিয়া, কক্সবাজার।
তাং-১১ই মে ২০২০ইং।
মোবাইল- ০১৮২৪৮৭৮৭২১
ইমেইল-helalrezvi87@gmail.com

আরো সংবাদ