আজ স্তন ক্যান্সার সচেতনতা দিবস, মাসজুড়ে কর্মসূচি - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০ ১৩ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বৃহস্পতিবার

প্রকাশ :  ২০২০-১০-১০ ০৬:৫২:০১

আজ স্তন ক্যান্সার সচেতনতা দিবস, মাসজুড়ে কর্মসূচি

আজ স্তন ক্যান্সার সচেতনতা দিবস, মাসজুড়ে কর্মসূচি

নিউজ ডেস্ক :  আজ (১০ অক্টোবর) স্তন ক্যান্সার সচেতনতা দিবস। করোনা মহামারির মাঝেও শারীরিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে দিবসটি উদযাপন ও মাসজুড়ে নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে যৌথভাবে ৮টি সংগঠনের মোর্চা ‘বাংলাদেশ স্তন ক্যান্সার সচেতনতা ফোরাম’ ও আন্তর্জাতিক রোটারি জেলা ৩২৮১, বাংলাদেশ।

সংশ্লিষ্টরা জানান, শনিবার দেশে অষ্টমবারের মতো পালিত হবে স্তন ক্যান্সার সচেতনতা দিবস। এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ‘স্থূলতা স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায়’। ২০১৩ সাল থেকে বেসরকারিভাবে এই দিবস উদযাপিত হচ্ছে স্তন ক্যান্সার সম্পর্কে সাধারণ মানুষের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে।

শনিবার (১০ অক্টোবর) বেলা ১১টা থেকে ২টা পর্যন্ত মানিক মিয়া অ্যাভিনিউয়ের পশ্চিম পাশে স্তন ক্যান্সার সম্পর্কে সচেতনতামূলক প্রচারে অংশ নেবেন আয়োজকরা। তথ্যসমৃদ্ধ লিফলেট ও পুনর্ব্যবহারযোগ্য গোলাপি রঙের মাস্ক বিতরণ করা হবে। সন্ধ্যা সাতটায় রোটারির উদ্যোগে ভার্চ্যুয়াল ব্রেস্ট ক্যান্সার অ্যাওয়ারনেস সেমিনার হবে। এছাড়া সকাল ৯টায় জাতীয় ক্যান্সার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের বহির্বিভাগে আগত রোগী ও স্বজনদের মাঝে লিফলেট ও মাস্ক বিতরণ করা হবে।

দেশে প্রতিবছর প্রায় সাড়ে ১২ হাজার নারী নতুন করে স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হন। এর মধ্যে মারা যান প্রায় ৭ হাজার জন। স্তন ক্যান্সার দিবসকে সামনে রেখে ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলনে শুক্রবার এ তথ্য জানিয়েছেন রোটারির স্তন ক্যান্সার সচেতনতা কমিটির চেয়ারম্যান ডা. হাবিবুল্লাহ তালুকদার রাসকিন। এ ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ জানান, দেশে ক্যান্সার চিকিৎসার সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ও সেবার সন্নিবেশ ঘটছে ক্রমান্বয়ে। কিন্তু বড় বড় শহর ও হাসপাতালকেন্দ্রিক ব্যবস্থা প্রান্তিক পর্যায়ের নারীদের ক্যান্সার নির্ণয় ও চিকিৎসা সুবিধা দিতে পারছে না।

তিনি বলেন, সারা বিশ্বে যখন ক্যান্সার নিয়ন্ত্রণে প্রাথমিক প্রতিরোধ, সূচনায় নির্ণয় ও স্ক্রিনিং, উপযুক্ত চিকিৎসা ও প্রশমন সেবা- এই চারটি উপাদানের ওপর জোর দেয়া হচ্ছে, সেখানে আমাদের দেশে ক্যান্সার থেকে সুরক্ষা, প্রাথমিক অবস্থায় নির্ণয় ও স্ক্রিনিং গুরুত্ব পাচ্ছে না। সরকারিভাবে স্তন ও জরায়ুমুখের ক্যান্সারের স্ক্রিনিং প্রোগ্রাম থাকলেও তা সমাজভিত্তিক ও সংগঠিত না হওয়ায় প্রভাব ফেলতে পারছে না। প্রতিরোধের জন্য সরকার অর্থ বরাদ্দ দিলেও এ সম্পর্কিত কার্যক্রম দৃশ্যমান নয়।

আরো সংবাদ