আট লাখ জেলে প্রতিবাদ মুখর হয়ে উঠছে - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ৪ মার্চ ২০২১ ১৯শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বৃহস্পতিবার

প্রকাশ :  ২০২১-০১-২৫ ০৮:১১:১৪

আট লাখ জেলে প্রতিবাদ মুখর হয়ে উঠছে

আট লাখ জেলে প্রতিবাদ মুখর হয়ে উঠছে

নিউজ ডেস্ক :  উপকুলীয়সহ সারাদেশের আট লাখ জেলে প্রতিবাদ মূখর হয়ে উঠছে। সরকার ঘোষিত কোন প্রকল্পই জেলেদের কাজে লাগছে না বলে অভিযোগ করেছেন জেলেরা। তারা বলেছেন, সাগরে মাছ ধরতে গেলে আতঙ্কে থাকেন জেলেরা। সারাক্ষণই তাদের জলদস্যুদের অপহরণ আতঙ্ক তাড়া করে বেড়ায়।

 

জলদস্যুদের তান্ডব, লুটপাট ও জেলে অপহরণের ঘটনার আতঙ্কে সমুদ্র উপকূলীয় এলাকার হাজার হাজার জেলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পরছে। এ সম্পর্কে জেলেরা সংশ্লিস্ট প্রশাসনকে স্বারকলিপি, সংবাদ সম্মেলন, মানববন্দনসহ নানা আনন্দোল কর্মসুচী পালন করেছে জেলেরা।

 

এ ছাড়াও বাংলাদেশ ক্ষুদ্র মৎস্যজীবী জেলে সমিতির ব্যানারে গত ৬ ডিসেম্বর সকল নদীর মোহনায় ক্যাপিটাল ড্রেজিং, মোহনা থেকে খুটাজাল, নেট জাল, বেহেন্দী জাল উচ্ছেদ, মৎস্য বিভাগের সকল পর্যায়ের প্রকল্পের মৎস্যজীবী জেলে সংগঠনের প্রতিনিধি অন্তর্ভূক্ত করাসহ ৬ দফা দাবিতে সকল উপজেলা কর্মকর্তা বরাবরে স্বারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। কিন্তু কোন কাজ হয়নি। ফলে তারা প্রতিবাদ মুখর হয়ে উঠেছে।

 

জেলে সমিতির ব্যানারে আগামী ৩১ জানুয়ারি বিভাগীয় কমিশনার, ডিআইজি পুলিশ বিভাগ, উপ-বিভাগীয় কর্মকর্তা বরাবরে আরেকটি স্বারকলিপি দেয়া হবে। তাতেও কোন কাজ না হওয়ায় আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি রোববার মৎস্য মন্ত্রী, মৎস্য সচিব, মৎস্য মহাপরিচালক বরাবরে স্বারক লিপি দেয়া হবে। তাতের কোন কাজ না হলে আগামী ৪ ফেব্রুয়ারী জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মাবববন্ধন কর্মসুচীতে অংশ গ্রহণ করবেন এ সকল জেলেরা।

 

সম্মেলনে ক্ষতিগ্রস্থ মৎস্যজীবী জেলেরা ক্ষতিপূরন ও খাদ্য সহায়তা প্রদানের দাবি জানাবে। এছাড়া মা ইলিশ, ঝাটকা, ছোট মাছ রক্ষাকারী মৎস্যজীবী জেলেদের প্রতিমাসে ( ছয় মাস) ৪০ কেজি চালের পরিবর্তে ৬০ কেজি চাল এবং জেলেপ্রতি ১০ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা প্রদানেরও দাবি জানাবে তারা।

 

আজ সোমবার বাংলাদেশ ক্ষুদ্র মৎস্যজীবী জেলে সমিতি’র দেয়া এক বিবৃতিতে জল দস্যু দমন, জাল পোড়ানো, মোবাইল কোর্ট, জলচ্ছাস, জলদস্যুসহ বিভিন্ন কারনে ক্ষতিগ্রস্ত মৎস্যজীবী জেলে পরিবারকে পুনর্বাসন করাও দাবি জানানো হয়।

 

এছাড়া বাংলাদেশ, ভারত, মিয়ানমারসহ সরকারি ব্যবস্থাপনায় ত্রি-দেশীয় বৈঠক, মৎস্য দপ্তরের ব্যবস্থাপনায় মৎস্যজীবী জেলেদের জীবন বীমা, নিহত মৎস্যজীবী জেলে পরিবারকে প্রাথমিক পর্যায়ে ৫ লাখ টাকা আর্থিক সহযোগিতা করতে হবেসহ ছয় দফা দাবি বাস্তবায়নে আট লাখ জেলে আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি জাতীয় পর্যায়ে মানববন্ধন সম্মেলনে যোগ দেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানান সমিতির সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন সিকদার।

 

তিনি বলেন, মৎস্য সম্পদ, মৎস্যজীবীদের রক্ষায় খোলা ও বদ্ধ জলমহলের গডফাদারের উচ্ছেদ বন্ধ করতে হবে এবং বাংলাদেশের সকল জলমহলের মোহনা খনন করতে হবে। মৎস্য সম্পদ ও মৎস্যজীবী জেলেদের রক্ষায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে মৎস্য বিভাগ প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু কুচক্রী মহলের চক্রান্তের কারনে তা বাস্তবায়ন হচ্ছে না বলে তিনি অভিযোগ করেন।

 

তিনি আরো বলেন, আমরা স্থানীয় চেয়ারম্যান মেম্বারদের অনিয়ম বন্ধে উপজেলা পরিষদ ও কেন্দ্রীয় ভাবে স্বারকলিপি, সংবাদ সম্মেলন করার পরেও কোন প্রতিকার হয়নি। বরং সাধারণ জেলে সম্প্রদায় দিন দিন নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। তাই বাধ্য হয়ে আগামী ৪ ফেব্রুয়ারী সকাল ১০টায় জাতীয় প্রেসক্লাবে জাতীয় মানববন্ধন কর্মসূচী করার প্রস্তুতি আমরা নিয়েছি।

 

তিনি অভিযোগ করে বলেন, সারাদেশে সরকার নিষিদ্ধ জালের অজুহাতে জেলেদের কথায় কথায় নির্যাতন করা হচ্ছে। জেল জরিমানা সাজা দেয়ায় মত জেলেরা পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে। সরকারের দেয়া চাল, বিকল্প কর্মসংস্থানের অর্থ জেলেরা পেল কিনা সেদিকের কোন খেয়াল না করে তাদের উপর নির্যাতন চালানো হচ্ছে।

 

তিনি আরো বলেন, সরকারি সহায়তা যেটুকু মৎস্যজীবী জেলেদের নামে বরাদ্দ হয়, সব নিয়ে যায় প্রবাবশালীরা। বিভিন্ন স্থানে মাছ ধরা বন্ধ থাকে। সে কারনে ৫ লাখ মৎস্যজীবী জেলে সম্পূর্ণ বেকার হয়ে যায়। মৎস্যজীবী জেলে পরিবারগুলো মানবেতর জীবন যাপন করছে বলে তিনি জানান।

আরো সংবাদ