আপাররেজু বিট কর্মকর্তা জসিমের বিরুদ্ধে যতো কাহিনী! - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ২৪ জানুয়ারী ২০২১ ১০ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-১২-২২ ১৭:৫২:১৫

আপাররেজু বিট কর্মকর্তা জসিমের বিরুদ্ধে যতো কাহিনী!

আপারেজু বিট কর্মকর্তা জসিমের বিরুদ্ধে রকমারি অভিযোগ
নিজস্ব প্রতিবেদক : কক্সবাজার দক্ষিণ বন বিভাগের রাজারকুল রেঞ্জের আপাররেজু বিট কর্মকর্তা জসীম উদ্দীনের বিরুদ্ধে রকমারি অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে স্থানীয়রা তৈলে বেগুনে জ্বলতে শুরু করেছে। দ্রুত তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জোর দাবী জানিয়েছে ভুক্তভোগিরা। সূত্রে জানা গেছে, জবর দখলকারীদের সাথে আতাঁত, আটক বানিজ্য, পান চাষীদের কাছ থেকে মাসোহারাসহ যেনো অভিযোগের অন্ত নেই। থোয়াইংগাকাটা, হাতিরঢেপা এলাকার ফরিদুল আলম জানান, গত এক সপ্তাহ আগে তার বাড়ির পাশে জাম বাগানে তার বাড়ির জন্য ঝাড়ু কাটতে যান।ওই সময় বিট কর্মকর্তা জসিম উদ্দিন এবং আপাররেজু বিটের স্টাফরা মিলে তা‍ঁকে বিট অফিসে আটক করে নিয়ে যায়। সকাল ১০ টা থেকে রাত ১১ টা পর্যন্ত আটকে রাখা হয় তাঁকে। পরে তার স্ত্রী রোকেয়া বেগম খবর পেয়ে বিট কর্মকর্তা  জসীম উদ্দীনের সাথে যোগাযোগ করলে,  তিনি আপাররেজু বিটের কর্মচারী বিমল বড়ুয়ার সাথে কথা বলতে বলেন। বিমল বড়ুয়া এক-পাশে ডেকে নিয়ে বলেন, ১০ হাজার টাকা লাগবে না হলে ছাড়া যাবে না। মামলা দিয়ে কোর্টে চালান করে দেয়া হবে।  অনেক দেনদরবার করে ৫০০০ টাকার বিনিময়ে তাকে ছেড়ে দেয়া হয় বলে জানান ফরিদুল আলম।
দারিয়ার দিঘি পুর্বপাড়ার নুরুল ইসলাম জানান, তার ২০ বছরের পুরনো ঘর মেরামত করতে গেলে  বিট কর্মকর্তা জসিম উদ্দিন এবং  কর্মচারীরা বাঁধা দেন। এজন্য তিনি বিট কর্মকর্তাকে  ১২ হাজার টাকা দেন।
থোয়াইংগা কাটা, জুম্মাপাড়া এলাকার মালয়েশিয়া প্রবাসী ভুট্টোর স্ত্রী নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তাঁর ও একই  অভিযোগ,  ২০ হাজার টাকা দিতে হয়েছে বিট কর্মকর্তা জসীম উদ্দীনকে। সরকারি জায়গায় ঘর বাঁধার অনুমতির জন্য। একই এলাকার আবুল হোসেনকেও ১৫ হাজার টাকা দিতে হয়েছে বিট কর্মকর্তা জসিম উদ্দিনকে বনবিভাগের জায়গাতে ঘর করার অনুমতি পাওয়ার জন্য। এমনটি বলেন আবুল হোসেন। অন্যদিকে পান  চাষীদের কাছ থেকেও ২ হাজার  টাকা করে নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। এলাকাবাসীরা জানান, আনুমানিক ২৫টি পানের বরজ আছে এই এলাকায়। কেউ জসীম উদ্দীনের অনুমতি বিহীন পানের বরজ করতে পারেনি।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে আপাররেজু বিট কর্মকর্তা জসিম উদ্দিন বলেন, এসব অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং ভিত্তিহীন। তবে রাজারকুল রেঞ্জ কর্মকর্তা নাজমুল হোসেন বলেন, এসব বিষয়ে তার জানা নেই। তিনি খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন।

আরো সংবাদ