মহেশখালীতে বিপুল পরিমাণ ইয়াবা উদ্ধার করল পুলিশ - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১১ এপ্রিল ২০২১ ২৮শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৩-২৯ ০৭:১৪:৫৬

মহেশখালীতে বিপুল পরিমাণ ইয়াবা উদ্ধার করল পুলিশ

আলোচনায় মেয়র মকছুদ : বিপুল পরিমাণ ইয়াবা উদ্ধার

বিশেষ প্রতিনিধি : কক্সবাজারের মহেশখালীতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৬ লাখ ২২ হাজার ইয়াবা উদ্ধার করেছে। এসময় প্রায় পুড়ানো অবস্থায় ৩টি মোটর সাইকেল ও একটি প্রাইভেট কার জব্দ করা হয়। তবে এ ঘটনায় কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।

রোববার (২৯ মার্চ) দিবাগত রাত ২ টার দিকে মহেশখালী পৌরসভা সিকদার পাড়ার বাসিন্দা ও মেয়র মকছুদের চাচা যুদ্ধাপরাধী মামলার পলাতক আসামী মৌলভী জকরিয়ার ছেলে সালাহ উদ্দিনের প্রাইভেট কার থেকে এ ইয়াবা উদ্ধারগুলো উদ্ধার করা হয়। মহেশখালী থানার ওসি আব্দুল হাই বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। উদ্ধার করা ইয়াবা’র মূল্য প্রায় ৯ কোটি টাকা।

স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, পারিবারিক শত্রুতার জের ধরে মহেশখালী পৌরসভার মেয়র মকছুদ মিয়া ও তার চাচত ভাই সালাহ উদ্দিনের সাথে বিরোধ চলে আসছিল। এ ঘটনার জের ধরে দুর্বৃত্তরা ২৮ মার্চ রাতে মেয়র মকছুদের সমর্থকের উপর গুলি চালায়। এতে গুলিবিদ্ধ হন নুর হোসেন (৪০), কাউছার (৩০) ও ভূবন (৩৫)। স্থানীয়রা তাদেরকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় দুর্বৃত্তরা সালাহ উদ্দিনের গ্যারেজে আগুন ধরিয়ে দেয় বলে জানা যায়। পরে সেখান থেকে বিপুল পরিমাণ ইয়াবা উদ্ধার করে বলে দাবি পুলিশের।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ২৯ মার্চ রাত ২টার দিকে পৌরসভার মেয়রের কার্যালয়ে পাশে গুলাগুলির খবর পেলে ওসি আব্দুল হাই এর নেতৃত্বে ঘটনাস্থলে যায় মহেশখালী থানা পুলিশ। ঘটনার কারণ অনুসন্ধান করতে গিয়ে সন্দেহভাজন মাস্টার মাইন্ড সালাহ উদ্দিনের খোঁজ নেয় পুলিশ। কিছুক্ষণ পর সালাহ উদ্দিনের গ্যারেজে আগুন লাগে। খবর পেলে তার বাসায় যায় পুলিশ। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণ আনে। এ সময় গাড়ীর পিছন থেকে অক্ষত অবস্থায় ৪ লাখ ২ হাজার ইয়াবা ও আংশিক পুড়ানো অবস্থায় ২ লাখ ২০ হাজার ইয়াবাসহ মোট ৬ লাখ ২২ হাজার ইয়াবা উদ্ধার করা হয় বলে পুলিশ দাবি করেছে। তবে কে বা কারা গ্যারেজে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে তা এখনও নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ।

মহেশখালী থানার ওসি আব্দুল হাই জানান, মহেশখালীর ইতিহাসে সর্ববৃহৎ ইয়াবা’র চালান উদ্ধার এটি। ইয়াবা’র উৎস ও কারবারের সাথে কে বা কারা জড়িত আছে তা বের করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সূত্রমতে, কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য হিসেবে তালিকাভুক্ত হওয়ার পর থেকেই একের পর এক সমালোচনা চলে আসছিল মহেশখালী দ্বীপের রাজাকার পরিবারের সন্তান মেয়র মকছুদ মিয়াকে নিয়ে। যাদের পরিবারগুলো কখনও আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিল না তারাই বর্তমানে বড় নেতার খেতাব নিয়ে ঘুরছে। তবে সেদিক দিয়ে মেয়র মকছুদ মিয়ার পরিবারের লোকজন কিংবা আত্মীয়স্বজন কখনও আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিল না। বরং তার চৌদ্দ পুরুষ বিএনপি, জামায়াত ও রাজাকারের শীর্ষ তালিকাভুক্ত।

এছাড়া আওয়ামী লীগেও মকছুদ মিয়ার আগমন বেশি দিন হয়নি। যে কারণে তার সমালোচনায় প্রায় সময় সরগরম থাকে কক্সবাজারের রাজনৈতিক অঙ্গন। বাবার রাজাকারের খেতাবের সঙ্গে ছেলে ইয়াবাসহ আটকের ঘটনায় মকছুদ মিয়াকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রায় সময় তোলপাড় চলে।

২০১৮ সালের ১৬ আগস্ট রাজধানী ঢাকার এলিফ্যান্ট রোডের বিলাসবহুল বাড়ি থেকে ইয়াবা বিক্রির ৭ কোটি ২৪ লাখ ৮৫ হাজার টাকাসহ ২ লাখ ৭ হাজার ১শ’ ইয়াবা নিয়ে সিন্ডিকেটের ৬ সদস্যকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। এর মধ্যে ছিলো মেয়রের ছেলে মিরাজ উদ্দিন নিশান ও ভায়রার ছেলে মুমিনুল আলম।

উল্লেখ্য, মেয়র মকছুদ পরিবারের বিরুদ্ধে মাদক কারবারের অভিযোগ নতুন কিছু নয়। এ ঘটনায় আক্রান্ত উভয় পক্ষ দীর্ঘদিন ধরে দ্বীপ উপজেলা মহেশখালীতে মাদক কারবার নিয়ন্ত্রণ করছে বলে একাধিক সূত্র জানিয়েছে। আর পুরো উপজেলায় তাদের সিন্ডিকেটে রয়েছে প্রভাবশালী ক্ষমতাসীন দলের পেঠিনেতারাও। তারা ক্ষমতার আড়ালে বর্তমানে মাদক কারবার করে কোটি কোটি টাকার মালিক বনে গেছে।

অন্যদিকে মাদকের আর্শীবাদে অর্জন করেছে বিলাসবহুল বাড়ি গাড়ী। অথচ ১/১১ এর সময় ওই পেঠিনেতাদের থাকার ঘরও ছিল না। এখন আঙ্গুল ফুলে কলা গাছে পরিণত হয়েছে।

দ্বীপ উপজেলা মহেশখালীতে যারা ক্ষমতার অপব্যবহার করে দীর্ঘদিন ধরে বীরদর্পে মাদক কারবার চালিয়ে রাতারাতি কোটিপতির তালিকায় স্থান নিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে প্রকৃত কারবারিদের আইনের আওতায় আনার দাবী জানিয়েছেন স্থানীয় সচেতন মহল।

আরো সংবাদ