আয়োজনে অনুষ্ঠানে সক্রিয় ছিল আওয়ামী লীগ - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ২৪ জানুয়ারী ২০২১ ১০ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

রবিবার

প্রকাশ :  ২০২০-১২-৩১ ১৩:২৯:২৭

আয়োজনে অনুষ্ঠানে সক্রিয় ছিল আওয়ামী লীগ

আয়োজনে অনুষ্ঠানে সক্রিয় ছিল আওয়ামী লীগ

নিউজ ডেস্ক :  মহাপরিকল্পনা হাতে নিয়ে শুরু হওয়া মুজিববর্ষের কর্মসূচির মধ্যেই দেশে হানা দেয় মহামারি করোনা। সে আঘাত মোকাবিলাতেও মানুষের পাশে ছিলো দলটি। সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে ক্ষমতাসীন হওয়ায় দলটি কিছুটা সুবিধাও পেয়েছে। এদিকে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে সাংগঠনিক কার্যক্রমে জোর দেয় দলটি। বছরের শেষে ভাস্কর্য ইস্যু সামাল ও স্থানীয় সরকার নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ততায় কেটেছে টানা তৃতীয় বার ক্ষমতায় থাকা আওয়ামী লীগ।

বছর জুড়ে সক্রিয় ছিলো ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ব্যস্ততা দিয়ে শুরু করে ২০২০ সাল। মহাপরিকল্পনা হাতে নিয়ে শুরু হওয়া মুজিববর্ষের কর্মসূচির মধ্যেই দেশে হানা দেয় মহামারি করোনা। সে আঘাত মোকাবিলাতেও মানুষের পাশে ছিলো দলটি। সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে ক্ষমতাসীন হওয়ায় দলটি কিছুটা সুবিধাও পেয়েছে। এদিকে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে সাংগঠনিক কার্যক্রমে জোর দেয় দলটি। বছরের শেষে ভাস্কর্য ইস্যু সামাল ও স্থানীয় সরকার নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ততায় কেটেছে টানা তৃতীয় বার ক্ষমতায় থাকা আওয়ামী লীগ।

সিটি নির্বাচন

বছরের শুরু থেকেই ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে ঘিরে রাজনীতির মাঠে চাঙা ছিলো আওয়ামী লীগ। ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনে আতিকুল ইসলাম এবং দক্ষিণে শেখ ফজলে নূর তাপস দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেন। নানা প্রতিশ্রুতি নিয়ে রাজধানীর অলিগলি চষে বেড়িয়েছেন তারা। জানুয়ারি মাস জুড়েই নেতাকর্মীরা দুই মেয়র প্রার্থীর পক্ষে জোর প্রচার চালান।

শুদ্ধি অভিযান

দলের নাম ভাঙিয়ে দুর্নীতি, চাঁদাবাজি, ক্যাসিনোকাণ্ডে জড়িয়ে পড়া নেতাদের বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান শুরু করে আওয়ামী লীগ। এর অংশ হিসেবে চলতি বছর নরসিংদী যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক শামিমা নূর পাপিয়া ও তার স্বামী মফিজুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হয়। পাপিয়ার সঙ্গে সরকার ও ক্ষমতাসীন দলের গুরুত্বপূর্ণ নেতা এবং মন্ত্রীদের ছবি সোশ্যাল মিড়িয়ায় ভাইরালের পর অস্বস্তির মধ্যে পড়ে দল ও দলের নেতারা।

পাপিয়া কাণ্ডের পরে রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক সাহেদ করিমের কাণ্ডে আওয়ামী লীগে হাইব্রিড-অনুপ্রবেশের বিতর্ক সৃষ্টি হয়। করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা নিয়ে প্রতারণা করা সাহেদ আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক উপকমিটির সদস্য ছিলেন বলেও জানা গেছে। সাহেদকে নিয়ে চাপের মুখে পড়ে আওয়ামী লীগ। তখন দলের ভেতর থেকেই প্রশ্ন ওঠে পাপিয়া-সাহেদরা আওয়ামী লীগে জায়গা পায় কীভাবে। সাতক্ষীরা সীমান্ত থেকে সাহেদকে অস্ত্র-গুলিসহ গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। এরই মধ্যে অস্ত্র আইনের একটি মামলায় সাহেদকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। এসব বিষয়ে বিব্রত হয় দলের হাইকমান্ড। এ অভিযান এখনো চলমান রয়েছে।

মুজিববর্ষের মহাপরিকল্পনা

চলতি বছরের ১৭ মার্চ ছিলো বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শততম জন্মবার্ষিকী। এ উপলক্ষে ২০২০-২১ সালকে মুজিব বর্ষ ঘোষণা করেছে সরকার। মুজিববর্ষ ঘিরে ২৯৬টি পরিকল্পনাসংবলিত একটি মহাপরিকল্পনা নেয়া হয়। শুধু বাংলাদেশ নয়, দেশের বাইরেও বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের পরিকল্পনা ছিল। এছাড়া দলীয় প্রধান শেখ হাসিনা ঘোষিত, ‘মুজিববর্ষে কেউ গৃহহীন থাকবে না’- এমন ঘোষণাকে দলীয় কর্মসূচিতে অন্তর্ভুক্ত করার কথা জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। দেশব্যাপি কর্মসূচিগুলো চলার সময় দেশে থাবা দেয় করোনাভাইরাস। ধীরে ধীরে শিথিল হতে থাকে মহাপরিকল্পনাগুলো।

করোনা সংকটে মানুষের পাশে

করোনা মহামারির শুরু থেকেই আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকমীরা দুর্ভোগে পড়া খেটে-খাওয়া মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। দেশের বিভিন্ন জেলায় নেতা-কর্মীরা নিজস্ব উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ করেছেন। সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করা, বিনামূল্যে মাস্ক, স্যানিটাইজারসহ করোনা প্রতিরোধমূলক সরঞ্জাম বিতরণ করেছেন দলের নেতারা।

খাদ্য ও অর্থ সহায়তা

দলের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, করোনার দুর্যোগে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে প্রায় ১ কোটি ২০ লাখ পরিবারের মাঝে খাদ্য সহায়তাসহ করা হয়েছে। প্রায় ১০ কোটি টাকা নগদ সহায়তা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া দলের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ উপকমিটির উদ্যোগে ৫০ জেলার ১৫০টি উপজেলায় বিভিন্ন ধরনের ত্রাণ সহায়তা বিতরণ করা হয়েছে। এ ছাড়াও দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার নির্দেশে সভানেত্রীর নির্দেশে ত্রাণ ও খাদ্য সহায়তার পাশাপাশি নগদ সহায়তা, ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস, টেলিমেডিসিন, লকডাউন এলাকায় রাতে খাবার পৌঁছানো, ইফতার ও সেহরি বিতরণ, সবজি বিতরণসহ কৃষকদের ধান কেটে ঘরে তুলে দেয়া হয়।

আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে

মহামারি করোনা দুর্যোগ চলার সময়ের মধ্যেই গত মে মাসে দেশে আঘাত হানে ঘূর্ণিঝড় আম্ফান। যার প্রভাব মোকাবিলা ও ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তা ও পুনর্বাসন কার্যক্রম চালানো হয় দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে। বিপযস্ত উপকূলসহ ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার নেতাকর্মীদের সঙ্গে কেন্দ্রীয় নেতারা সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখেন এবং ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সহযোগিতা ও পুনর্বাসন কার্যক্রম পরিচালনায় স্থানীয় প্রশাসনকে সহযোগিতা করেন। মূল দলের পাশাপশি সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা ত্রাণ নিয়ে ঢাকা থেকে দুর্যোগপূর্ণ এলাকায় গেছেন। খাবার, ওষুধ সরবরাহ করেছেন। দলের কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতারা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সারাক্ষণ খোজ-খবর নিয়েছেন। তাদের পরামর্শ দিতে মাঝে মধ্যে দলের সভাপতি শেখ হাসিনাও যুক্ত হয়েছেন।

বন্যার্তদের পাশে

দেশে জুন মাসে বিভিন্ন এলাকায় বন্যা দেখা দেয়। বন্যাকবলিত এলাকায় দুর্গতদের সহায়তা ও পুনবার্সন কার্যক্রমে সহায়ক ভূমিকা পালনের জন্য স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের সমন্বয়ে কমিটি গঠনের নির্দেশ দেন দলের সভাপতি শেখ হাসিনা। তার নির্দেশের পর বন্যা দুর্গতদের পাশে দাঁড়ান নেতা-কর্মীরা। বন্যাকবলিত মানুষের মাঝে খাবার ও ওষুধ এবং প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র বিতরণ করেন।

করোনায় প্রাণ গেল ৫ শতাধিক নেতার

করোনায় দলের বেশ কিছু নেতাকর্মীকে প্রাণ হারাতে হয়েছে। ৩ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী তার সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভায় বলেন, ‘করোনা মহামারিকালে আওয়ামী লীগের ৫২২ নেতা-কর্মী মারা গেছেন। অন্য কোনো রাজনৈতিক দল এত বড় ত্যাগ স্বীকার করেনি, তারা কেবল মুখে কথাই বলেছে, তাদের মাঠে মানুষের পাশে দেখা যায়নি’। যদিও এর পরে আরো বেশ কয়েক জন নেতাকর্মী করোনায় আক্রন্ত হয়ে মারা যান। নেতাকর্মীরা বলছে- মৃতের সংখ্য বেড়ে প্রায় সাড়ে ৭শ হয়েছে।

চলতি বছর মারা গেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক দুই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মো. নাসিম ও সাহারা খাতুন। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মো. আব্দুল্লাহ, সিলেট সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমেদ কামরান, নওগাঁ-৬ আসনের সংসদ সদস্য ইসরাফিল আলম, সাবেক সংসদ সদস্য হাজি মকবুল হোসেন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইনসহ অনেকে।

সাংগঠনিক কার্যক্রমে ফেরা

চলতি বছরে করোনার কারণে মার্চের পর থেকেই সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডে অনেকটাই ভাটা পড়ে ক্ষমতানসীন দল আওয়ামী লীগে। করোনার প্রকোপ কিছুটা কমে আসলে ঘর গোছাতে ব্যস্ত হয় দলটি। বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় সম্মেলন এবং সম্মেলন হয়ে যাওয়া জেলার পূর্ণাঙ্গ কমিটি দেওয়ার কাজ চলছে। সম্মেলনের দীর্ঘদিন পর পাঁচ সহযোগী সংগঠনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়। সেগুলো হলো- যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, জাতীয় শ্রমিক লীগ ও কৃষক লীগ। এছাড়া ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়। উপ কমিটি পূর্নাঙ্গের কাজও শেষের দিকে ক্ষমতাসীনদের। পাশাপাশি দলের পক্ষ থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্বাভাবিক সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করার আহ্বান জানানো হয়। চলতি বছর ৩ অক্টোবর সাংগঠনিক কাজে গতি আনতে দেশের ৮টি সাংগঠনিক বিভাগের জন্য কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্যদের সমন্বয়ে আটটি টিম গঠন করে দলটি। এছাড়া দায়িত্বে অবহেলার কারণে বিভিন্ন জেলা ইউনিটের সভাপতি সাধারণ সম্পাদককে অব্যাহতি দেয়া হয়। যা চলমান রাখার ইঙ্গিত দিয়েছে দলের শীর্ষ নেতৃত্ব।

ভাস্কর্য ইস্যু মোকাবিলা

বছরের শেষের দিকে মূল আলোচনার অংশ দাঁড়ায় ভাস্কর্য ইস্যুটি। উত্তপ্ত হয় মাঠের রাজনীতি। ভাস্কর্য নিয়ে চলমান বিতর্ককে প্রথম দিকে হালকাভাবে নিলেও এখন সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দেখছে আওয়ামী লীগ। মূল দল ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা রাজপথে কঠোর অবস্থান নেন এবং হুঁশিয়ারিও দিয়েছেন। ভাস্কর্য নিয়ে সঠিক ব্যাখ্যা, আইনগত পদক্ষেপ এবং পণ্ডিত ইসলামী চিন্তাবিদদের মতামত তুলে ধরে জনমত গঠন করে বিতর্কের অবসান চায় ক্ষমতাসীন দলটি। ইতোমধ্যেই দলের শীর্ষ ফোরামে এ নিয়ে আলোচনা হয়েছে। বিষয়টিকে গুরুত্বের সঙ্গে সামাল দেওয়ার চেষ্টা চালানো হয়।

স্থানীয় সরকার নির্বাচন

করোনা সংকটের মধ্যেও স্থানীয় সরকারের গুরুত্বপূর্ণ পৌরসভা নির্বাচনকে ঘিরে সরগরম তৃণমূল রাজনীতি। তিন ধাপে এখন পর্যন্ত প্রায় ১৫০টি পৌরসভায় মেয়র প্রার্থীদের মনোনয়ন দিয়েছে আওয়ামী লীগ। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি পৌরসভায় নির্বাচন করেছে। চলমান এ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তৃনমূলে আবারও রাজনীতি জমে উঠেছে।

তবে সবদিক থেকে ২০২০ সাল একটি ‘প্রতিকূল পরিস্থিতি মোকাবেলা ও সাফল্যে’র বছর বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক। তিনি বলেন, ‘এ বছরটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিল আওয়ামী লীগের জন্য। কারণ এই বছরেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ছিল। জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের জন্য মহাপরিকল্পনা থাকলেও, তা কমিয়ে সীমাবদ্ধতার মধ্যে আনা হয়েছে। কারণ দেশের মানুষের জীবন বাঁচানোই আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনা মহামারি মোকাবেলার জন্য লকডাউন দিয়েছেন, তবে লকডাউনে মানুষ যেন ক্ষতির সম্মুখীন না হয় সেই বিষয়ে সর্বক্ষণিক নির্দেশনা ও পরামর্শ দিয়েছেন। যারা অসহায় ও দিনমজুরি মানুষদের সহায়তার মাধ্যমে অভাবমুক্ত রেখেছেন। পরবর্তীতে লকডাউন খুলে দিয়ে অর্থনৈতিক মুক্তি এবং জীবন বাঁচাতে বেশ কিছু নিয়ম-নির্দেশনা দেন। তবে মহামারি করোনা সংকটে মানুষের পাশে দাড়াতে গিয়ে আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের অনেক নেতাকে প্রাণ দিতে হয়েছে। মানুষের পাশে দাঁড়াতে গিয়ে বহু নেতা-কর্মী নিজের জীবন বিসর্জন দিয়েছেন’।

মহামারির কথা স্মরণ করে আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর কারণে পিতা যখন সন্তানের লাশের কাছে যেত না, সন্তান যখন পিতার কাছে যেতে রাজি ছিলো না, ঠিক সেই মুহূর্তেও আওয়ামী লীগের নেতাকমীরা তাদের দাফন-কাফনসহ সব ধরনের ব্যবস্থা করেছে।

আরো সংবাদ