ই'তিকাফ কি? ই'তিকাফের ফজিলত - কক্সবাজার কন্ঠ । কক্সবাজারের মুখপত্র

শুক্রবার, ৫ জুন ২০২০ ২২শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

প্রকাশ :  ২০২০-০৫-১১ ২১:০৪:৩৬

ই’তিকাফ কি? ই’তিকাফের ফজিলত

জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল “কক্সবাজার কন্ঠ” এর সৌজন্যে মাহে রমজানুল মোবারকের ধারাবাহিক “রমজান কন্ঠ” কলাম থেকে-

ধারাবাহিক পর্ব-১৮

🔷 ই’তিকাফ কি?

ই‘তিকাফ অর্থ অবস্থান করা। অর্থাৎ মানুষদের থেকে পৃথক হয়ে সালাত, সিয়াম, কুরআন তিলাওয়াত, দোয়া, ইসতিগফার ও অন্যান্য ইবাদাতের মাধ্যমে আল্লাহ তা‘আলার সান্নিধ্যে একাকী কিছু সময় যাপন করা। এ ইবাদাতের এত মর্যাদা যে, প্রত্যেক রমাদানে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম রমাদানের শেষ দশ দিন নিজে এবং তাঁর সাহাবীগণ ই‘তিকাফ করতেন। আবূ হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত,
« كَانَ النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم يَعْتَكِفُ فِي كُلِّ رَمَضَانَ عَشْرَةَ أَيَّامٍ فَلَمَّا كَانَ الْعَامُ الَّذِي قُبِضَ فِيهِ اعْتَكَفَ عِشْرِينَ يَوْمًا».

‘‘প্রত্যেক রমাযানেই তিনি শেষ দশ দিন ই‘তিকাফ করতেন। কিন্তু জীবনের শেষ রমযানে তিনি ইতিকাফ করেছিলেন বিশ দিন’’ [সহীহ আল বুখারী : ২০৪৪]। দশ দিন ই‘তিকাফ করা সুন্নাত।

🔷 রমযানে ই’তিকাফ ও তার ফযিলতঃ রমযানের বিশ তারিখের সূর্যাস্ত থেকে ঈদের চাঁদ ওঠা পর্যন্ত ই’তিকাফ করাকে ই’তিকাফে মাসনূন বলা হয়। হাদীস শরীফে আছে, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম রমযানের শেষ দশ দিন ইতিকাফ করতেন। -(সহীহ বুখারী : ২০২১)

মাহে রমযানে ইতিকাফ করা একটি গুরুত্বপূর্ণ আমল। রমযানের ফযীলত, বরকত এবং বিশেষত লাইলাতুল কদরের ফযীলত ও বরকত পাওয়ার জন্য ই’তিকাফের গুরুত্ব অপরিসীম। নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁর মাদানী জীবনে মাত্র একটি রমযানে জিহাদের সফরের কারণে ই’তিকাফ করতে পারেননি। তবে পরবর্তী বছর ২০ দিন ই’তিকাফ করে তা পূরণ করে নিয়েছেন। এ ছাড়া তিনি সবকটি ই’তিকাফ করেছেন। সাহাবীগণও তাঁর সাথে ই’তিকাফে শরীক হতেন। তাই ইতিকাফ একটি মর্যাদাপূর্ণ মাসনূন আমল যা ‘শেয়ারে ইসলাম’ও বটে। এমনকি কোন মসজিদ ই’তিকাফশূন্য থাকলে পুরো এলাকাবাসী সুন্নতে মুআক্কাদা বর্জনের কারণে গুনাহগার হবে।
হাদীস শরীফে এসেছে, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম প্রত্যেক রমযানে দশ দিন ইতিকাফ করতেন। তবে ওফাতের বছর বিশ দিন ই’তিকাফ করেছেন। -(সহীহ বুখারী ২০৪৪)

ই’তিকাফের ফযিলত সম্পর্কে একটি হাদীসের ভাষ্য নিম্নরূপ:
যে ব্যক্তি আল্লাহ তায়ালার সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে এক দিন ই’তিকাফ করবে আল্লাহ তায়ালা তার এবং জাহান্নামের মাঝে তিন খন্দক দূরত্ব সৃষ্টি করে দিবেন। অর্থাৎ আসমান ও জমিনের মাঝে যত দূরত্ব আছে তার চেয়েও বেশি দূরত্ব সৃষ্টি করে দিবেন। -(শুআবুল ঈমান ৩৯৬৫)

উল্ল্যেখ্য, ই’তিকাফ সম্পর্কে তিনটি পাঠ থাকছে ধারাবাহিক এই পর্বগুলোতে। ই’তিকাফ সম্পর্কে কিঞ্চিত ধারণা নিতে “কক্সবাজার কন্ঠ” অনলাইন পত্রিকার সাথে থাকুন, ধন্যবাদ।

লেখক:
এম হেলাল আহমদ রিজভী
কামিল (মাষ্টার্স) ফার্ষ্ট ক্লাস,
মাওলানা ভিলা, সোনারপাড়া, ইনানী, উখিয়া, কক্সবাজার।
তাং- ১২ই মার্চ ২০২০ইং।
মোবাইল নং- ০১৮২৪৮৭৮৭২১
ইমেইল- helalrezvi87@gmail.com

আরো সংবাদ