ঈদগাহ বাজারের ইজারা বাতিলের দাবী - কক্সবাজার কন্ঠ । কক্সবাজারের মুখপত্র

রোববার, ১২ জুলাই ২০২০ ২৮ আষাঢ়, ১৪২৭

রবিবার

প্রকাশ :  ২০২০-০৬-১৯ ১৪:৫১:৩৫

ঈদগাহ বাজারের ইজারা বাতিলের দাবী

# ইজারাদার রমজানের বিরুদ্ধে প্রায় ১৪ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ #

কক্সবাজার প্রতিনিধি : কক্সবাজার সদর উপজেলার ঈদগাহ বাজার নিয়ে চলছে তুঘলকি কান্ড। বাজারের ইজারা নিলাম নিয়ে বিতর্ক উঠার পর সাব ইজারাদার দেওয়ার নামে প্রায় ১৪ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে কথিত ইজারাদার রমজানুল আলমের বিরুদ্ধে। এবিষয়ে তার উক্ত রমজানের বিরুদ্ধে গত ১৭ জুন কক্সবাজার জেলা প্রশাসক এবং সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার লিখিত অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী বদিউল আলম আকাশ। এর আগে উল্লেখিত বাজার ইজারায় অনিয়মের অভিযোগ তুলে একইভাবে জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন ভুক্তভোগী আরমান উদ্দিন। অভিযোগের পর অভিযোগ হওয়ার পরও সংশ্লিষ্টরা ইজারা বাতিলের কোন পদক্ষেপ নিচ্ছেননা জানা গেছে। এনিয়ে অনেকেই অনেক ধরনের মুখরোচক কথাবার্তা বলছেন।

ভুক্তভোগী বদিউল আলম আকাশ তার লিখিত অভিযোগে জানান, তিনি দীর্ঘদিন ধরে ঈদগাহ বাজারের কাঁচা বাজার ও ফেরি ফেরি বাজার সাব ইজারাদার হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। বাজারের ইজারাদার রমজান তার কাছ থেকে ১৮লাখ টাকা দরদামে চার কিস্তিতে মোট ১৩লাখ ৭০ হাজার টাকা গ্রহণ করেন। বাকী টাকা চার মাসের মধ্যে পরিশোধের মৌখিক কথা হয়। তার ধারাবাহিকতায় তিনি দুই মাস সাব ইজারাদার হিসেবে দায়িত্বও পালন করেন। কিন্তু লোভের বশবতী হয়ে রমজান আরো ২লাখ টাকা নগদ দাবী করেন। চলমান কোভিট ভাইরাসের অচলাবস্থার কারণে তিনি উক্ত টাকা দিতে অপরাগতা প্রকাশ করলে সাব ইজারা অন্য ব্যক্তিকে দিয়ে দেন। পক্ষান্তরে সাব ইজারা থেকে বঞ্চিত হওয়ার পর তার পাওনা টাকাগুলোও পাচ্ছেননা। সাব ইজারা পূণরায় দেওয়ার কথা বললে এবং টাকা ফেরত চাইলে রমজান ও সহযোগিরা তাকে জানে মেরে ফেলার হুমকি ধমকি দিচ্ছেন।

এদিকে এর আগে অভিযোগ উঠে, উক্ত রমজান নানা কুটকৌশল ও অনিয়মের আশ্রয় নিয়ে ঈদগাহ বাজারের ইজারা ভাগিয়ে নেন। এই কাজে উপজেলা প্রশাসন নানা নাটকীয়তার আশ্রয় নিয়েছে বলে দাবী করেছে ভুক্তভোগিরা। কিন্তু নতুন নিয়োগকৃত ইজারাদারের ভুলে ফাঁস হয়ে যায় সকল নাটকীয়তার রহস্য। এবিষয়ে ভূক্তভোগী ইতোপূর্বে কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কক্সবাজার শহরে রেডজোনের কারণে লকডাউন চলছে। তাই যানবাহন চলাচল বন্ধ। ইজারার জন্য সিন্ডিকেটটি রেডজোনের সময়কে পছন্দ করে নেন। হঠাৎ কয়েকদিন আগে তড়িঘড়ি করে টেন্ডার ড্রপিংয়ের আহ্বান করে। লকডাউনে বাঁধাগ্রস্ত হয়ে অন্যান্যরা পে-অর্ডার করতে না পারায় টেন্ডার ড্রপিং করতে পারেনি। কিন্ত পূর্ব পরিকল্পনার অংশ হিসেবে রমজানুল আলম দরপত্র ড্রপিং করে। ১৪ জন ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠান দরপত্র সংগ্রহ করলেও লকডাউনের কারণে কেউ দরপত্র জমা করতে পারেনি। শুধুমাত্র রমজানুল আলম নামে ওই ব্যক্তি একা দরপত্র জমা করেন। পরিকল্পনার অংশ হিসেবে লকডাউন বিবেচনা না করে তাকে ঈদগাঁও বাজারের ইজারাদার নিয়োগ করে প্রশাসন।
অনুসন্ধানে আরো জানা গেছে, ঈদগাঁও বাজারের ইজারা মিশন বাস্তবায়ন করতে ব্যাপক কারসাজির আশ্রয় নেয়া হয়েছে। গত ১০ মার্চ সদর উপজেলা প্রশাসন দরপত্র আহ্বান করে। দরপত্র আহ্বানের পর থেকে সর্বমোট ১৪ জন ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠান দরপত্র সংগ্রহ করে। এর মধ্যে টেন্ডারে ফাইট হতো মূলত আরমান এন্টারপ্রাইজের স্বত্ত্বাধিকারী আরমান উদ্দিন ও আরএন এন্টারপ্রাইজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (নিজে দাবীদার) রজমানুল আলমের মধ্যে। বাকি দরপত্র সংগ্রহকারীরা রমজানের সাথে নিকোজিশন করেছে বলে অভিযোগ আছে।

দরপত্র আহ্বানের পর অন্যান্যদের মত গত ২২ মার্চ আরমান এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী আরমান উদ্দিন দরপত্র সংগ্রহ করেন। উপজেলা প্রশাসনের তথ্য অনুযায়ী সর্বমোট ১৪ জন ব্যক্তি দরপত্র সংগ্রহ করেছিলো। আরমানের দরপত্রের ক্রমিক নাম্বার ছিল ১০। অর্থ্যাৎ ১০ নাম্বার সিডিউলটি সংগ্রহ করেন আরমান। আরমানের পর আরও ৪ জন ব্যক্তি দরপত্র সংগ্রহ করে।

সূত্রমতে, আরমান ১০ নাম্বার দরপত্রটি সংগ্রহ করলেও তাকে সিন্ডিকেটের কারসাজির অংশ হিসেবে ঈদগাঁও বাজার ইজারা সংক্রান্ত সদর উপজেলা প্রশাসনের রেজিস্ট্রারে ফরম সংগ্রহকারী হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। আরমানকে বাদ দিয়ে অন্যান্য সিডিউল সংগ্রহকারীদের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয় সদর উপজেলার রেজিস্ট্রারে। আরমানের সিডিউলটি সংগ্রহ করেছিলেন সদর উপজেলা প্রশাসনের গোপনীয় সহকারী উত্তম চক্রবর্তীর কাছ থেকে। তার ফরমে উত্তম চক্রবর্তীর স্বাক্ষরও রয়েছে।

এদিকে অনৈতিকভাবে কথিত নিয়ম-কানুনে টেন্ডার পাওয়ার পর পূর্ব পরিকল্পনায় সফল হওয়ায় খুশিতে আত্মহারা ইজারাদার রমজানুল আলম নিজের ফেসবুক আইডিতে কারসাজির ঘটনাটি প্রকশ্যে নিয়ে আসে। ভুলে ফাঁস করে দেয় সকল পরিকল্পনা।
ইজারাদার রমজানুল আলম তার ফেসবুকে আইডিতে ঈদগাঁও বাজার ইজারা সংক্রান্ত সদর উপজেলা প্রশাসনের রেজিস্ট্রার বইয়ের ছবি তুলে পোস্ট করে। যেখানে দরপত্র সংগ্রহকারীদের নাম রয়েছে। রমজানুল আলমের ফেসবুকে দেয়া ছবিতে দেখা যায় সেখানে ১৩ জন সংগ্রহকারীর নাম ঠিকানা ও স্বাক্ষর রয়েছে। যদিও উপজেলা প্রশাসনের তথ্য অনুযায়ী দরপত্র সংগ্রহ করেছিলো ১৪ জন। তাছাড়া রমজানুল আলমের ফেসবুকে দেয়া রেজিস্ট্রারের ছবিতে দরপত্র সংগ্রহকারী হিসেবে আরমানের নাম ঠিকানা স্বাক্ষর কোনটাই উল্লেখ নেই।

আরমানের সিডিউলটি সংগ্রহকারীর তালিকায় না তোলায় টেন্ডার ড্রপিংয়ে আরমানের পক্ষে সুযোগই ছিল না। তাছাড়া লকডাউনকে কাজে লাগিয়ে মোটা অংকের লেনদেন করে গোপনে ভাগিয়ে নিয়েছে আলোচিত ঈদগাঁও বাজারের ইজারা।
ঈদগাঁও বাজার ইজারা সংক্রান্ত রেজিস্ট্রারে আরমানকে অন্তর্ভুক্তি না করার বিষয়ে জানতে সদর উপজেলা প্রশাসনের গোপনীয় সহকারী উত্তম চক্রবর্তী ফেসবুকে যে ছবি পোস্ট হয়েছে সেটি সরকারি রেজিস্ট্রারের ছবি নয় বলে দাবী করেন। তিনি বলেন, ‘নির্ধারিত সময়ের মধ্যে দরপত্র ড্রপিং করায় আরএন এন্টারপ্রাইজ ইজারা পেয়েছে। নিকোজিশন এবং কারসাজির অভিযোগটি সত্য নয় বলে দাবী করে তিনি। ঈদগাঁও বাজারের সদ্য নিয়োগকৃত ইজারাদার রমজানুল আলম বলেন, ১৩ জন দরপত্র সংগ্রহ করেছে। এরমধ্যে শুধুমাত্র আমিই দরপত্র ড্রপিং করেছি। এ কারণে আমাকে ইজারাদার নিয়োগ দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। ফেসবুকে পোস্ট করা রেজিস্ট্রারের ছবির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি কথা বলতে রাজি হয়নি।

এদিকে পূণরায় ইজারা আহ্বানের জন্য সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক বরাবরে আবেদন করেছেন সিন্ডিকেটের কারসাজিতে বাদ পড়া দরপত্র সংগ্রহকারী আরমান এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী আরমান উদ্দিন। অন্যদিকে ঈদগাহ’র বিভিন্ন মহল বিতর্কিত রমজানের ইজারা বাতিলের দাবী জানিয়েছে।

এবিষয়ে জানার জন্য সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ মাহমুদ উল্লাহ মারুফের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও ফোন রিসিভ করেনি।
এবিষয়ে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ আশরাফুল আফসার বলেন, অভিযোগটি পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করা হবে। তদন্তে কোন অনিয়ম হয়ে থাকলে অবশ্যই পূণরায় বিবেচনা করা হবে।

আরো সংবাদ