এইডস ঝুঁকিতে লক্ষাধিক যৌনকর্মী - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১৭ জানুয়ারী ২০২১ ৩রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

রবিবার

প্রকাশ :  ২০২০-১২-০১ ০৭:০১:২৫

এইডস ঝুঁকিতে লক্ষাধিক যৌনকর্মী

এইডস ঝুঁকিতে লক্ষাধিক যৌনকর্মী

এইচআইভির ৮০ শতাংশ সংক্রমণ ঘটে যৌন সম্পর্কের মাধ্যমে। সঙ্গত কারণে যৌনকর্মীরা সবচেয়ে বেশি ঝুঁকির মধ্যে রয়েছেন। যারা তাদের সংস্পর্শে আসেন, তারাও ঝুঁকিতে পড়ে যান।

সেক্স ওয়ার্কার নেটওয়ার্কের সভাপতি আলেয়া আক্তার লিলি সারাক্ষণকে বলেন, ‘দৌলতদিয়ার এইডস আক্রান্ত যে মেয়েটি পরিবারের কাছে চলে গিয়ে সমাজের মূলধারার সঙ্গে মিশে গেছে, এখন সে কোথায় আছে, কীভাবে আছে জানি না। তার খোঁজ এখন আমরা পাচ্ছি না। সে যদি এখন ভাসমান যৌনকর্মী হিসেবে কাজ করে, তাহলে এইডস অনেকের মধ্যে ছড়িয়ে পড়বে। তবে তাকে যদি সেবার আওতায় এনে কাউন্সেলিং করা যেত, তাহলে ঝুঁকি অনেকটা কমত।’

যৌনকর্মীদের এই নেত্রী আরো বলেন, কেবল যৌনপল্লি এবং নির্দিষ্ট কিছু জেলা নিয়ে সরকারের কাজ করলে তো হবে না। দেশের সব জেলায় বিভিন্নভাবে সেক্স ওয়ার্কার রয়েছে, অথচ এইচআইভি/এইডসের সচেতনতামূলক কোনো কর্মসূচি চালু নেই। তাই ঝুঁকিপূর্ণ যৌনমিলনে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ক্রমাগত এইডস সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়েই চলছে।’

সেক্স ওয়ার্কার নেটওয়ার্কের তথ্য বলছে, বাংলাদেশে প্রায় এক লাখ যৌনকর্মী রয়েছে। ধরন অনুসারে সমাজে চার ধরনের যৌনকর্মী রয়েছে। এক. বিভিন্ন যৌনপল্লিতে কর্মরত যৌনকর্মী। দুই. আবাসিক হোটেলে কর্মরত যৌনকর্মী। তিন. আবাসিক এলাকায় কর্মরত যৌনকর্মী। চার. ভাসমান যৌনকর্মী। বাংলাদেশের ১০টি বৈধ যৌনপল্লিতে নিবন্ধিত যৌনকর্মীরা বসবাস করছেন। তবে দেশের অধিকাংশ যৌনকর্মী অনিবন্ধিত। তাদের মধ্যে প্রতিটি যৌনপল্লিতে এক বা একাধিক এইডস আক্রান্ত রোগী রয়েছে, যাদের শনাক্ত করা এখনো সম্ভব হয়নি।

দেশের ২৭টি জেলার ৩০ হাজার যৌনকর্মীকে স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছে বেসরকারি সংস্থা লাইট হাউস। সংস্থাটির নির্বাহী প্রধান হারুন অর রশীদ সারাক্ষণকে বলেন, যৌনকর্মীদের এইডস ঝুঁকি অনেক বেশি। এইচআইভির মূলত ৮০ শতাংশ সংক্রমণ ঘটে যৌন সম্পর্কের মাধ্যমে। সংগত কারণে যৌনকর্মীরা সবচেয়ে বেশি ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। তিনি বলেন, যৌনকর্মীদের নিয়মিত হেলথ চেকআপ করতে হবে। এইডস নিয়ে সচেতনতামূলক ক্যাম্পেইন করতে হবে, যাতে তারা স্বাস্থ্য সচেতন হয়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, ১৯৮৯ সালে বাংলাদেশে প্রথম এইচআইভিতে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। দেশে এইচআইভিতে আক্রান্তদের অনুমিত সংখ্যা ১৪ হাজার। ১৯৮৯ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে পরীক্ষার মাধ্যমে ৭ হাজার ৩৭৪ এইচআইভি আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। যাদের মধ্যে ১ হাজার ২৪২ জন ইতিমধ্যে মারা গেছেন। ২০১৯ সালে এক বছরে শনাক্ত হয়েছিল ৯১৯ জন। শনাক্ত ব্যক্তিদের মধ্যে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী ছিল ১০৫ জন। এদের মধ্যে ১৭০ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। আক্রান্তদের তথ্য-উপাত্ত যাচাই করে দেখা গেছে, সাধারণ মানুষ রয়েছে ৩৭ শতাংশ। বিদেশফেরত রয়েছে ১৯ শতাংশ, শিরায় মাদক সেবনকারী রয়েছে ২৪ শতাংশ। এ ছাড়া যৌনকর্মী এবং আক্রান্তদের পরিবারের অন্য সদস্যরাও রয়েছে। মোট আক্রান্তের ৩৭ শতাংশ সাধারণ মানুষ কীভাবে আক্রান্ত হয়েছেন, তার ব্যাখ্যা স্বাস্থ্য অধিদপ্তর দেয়নি। তবে সংশ্লিষ্ট অনেকেই ধারণা করছেন, এতে এইচআইভি আক্রান্ত ভাসমান যৌনকর্মীদের প্রভাব থাকতে পারে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এইডস আক্রান্ত সবাইকে শনাক্ত করে চিকিৎসার আওতায় না আনতে পারলে, সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়তেই থাকবে।

দৌলতদিয়া যৌনপল্লির নেত্রী ফরিদা পারভিন সারাক্ষণকে বলেন, দৌলতদিয়ায় ১৫০০ নিবন্ধিত কর্মী রয়েছে, এদের মধ্যে শনাক্ত করার জন্য ৮০০ কর্মীর এইচআইভি টেস্ট করা হয়েছে। এখনো ৭০০ যৌনকর্মী টেস্টের বাইরে রয়েছে। এ ছাড়া কর্মীদের পরিবারের লোকজনসহ ৫ হাজারের বেশি মানুষ ঝুঁকিতে রয়েছে।

ফরিদা পারভিন বলেন, আগে মেয়েরা কনডম কম ব্যবহার করত, এখন অবশ্য সবাই ব্যবহার করছে। অনেক খদ্দের কনডম ব্যবহার করতে চায় না। এতে খদ্দের এবং কর্মী দুজনের স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি হয়। ফরিদা পারভিন বলেন, স্বাস্থ্যঝুঁকিতে থাকা যৌনকর্মীদের দিকে সরকারি-বেসরকারি সংস্থার মনোযোগ দিতে হবে। এইচআইভি/এইডস নিয়ে মানুষের মাঝে আরো সচেতনতা বাড়াতে হবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের জাতীয় এইডস/এসটিডি আওতায় যৌনপল্লিতে চলমান কর্মসূচির টিম লিডার শহীদুল ইসলাম সারাক্ষণকে বলেন, ‘যৌনকর্মীদের মধ্যে যারা এইচআইভি/এইডসসহ নানা যৌন রোগে আক্রান্ত হয়, সরকারের গাইডলাইন অনুসারে তাদের সেবা প্রদান করি। এইডস ঝুঁকি কমাতে যৌনপল্লিগুলোতে স্লোগান রয়েছে, নো কনডম, নো সেক্স।’

শহীদুল ইসলাম বলেন, ‘দশটি যৌনপল্লিতে ৩ হাজার ৪৫৩ জনকে এইচআইভি/এইডস পরীক্ষার আওতায় আনা হয়েছে। এর বাইরে যারা আছে তাদেরও পর্যায়ক্রমে পরীক্ষার আওতায় আনা হবে।’

রাজধানীর সংক্রমণ ব্যাধি হাসপাতাল দেশের এইচআইভি/এইডস আক্রান্তদের একমাত্র বিশেষায়িত হাসপাতাল। হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মোহাম্মদ মিজানুর রহমান সারাক্ষণকে বলেন, ‘এইডস রোগীদের জন্য ২০ শয্যার হাসপাতাল এটা। আক্রান্তদের অন্য কঠিন সমস্যা হলেও এখানে ভর্তি করানো হয়।’ তিনি বলেন, ‘মানুষের মধ্যে সচেতনতা না থাকায় এইডস সংক্রমণ বাড়ছে। তবে শনাক্ত হয়নি এমন রোগীর সংখ্যাই এখনো অনেক বেশি। শনাক্ত হলে চিকিৎসা ও কাউন্সেলিংয়ের আওতায় আনা সহজ হবে। শনাক্ত না হওয়ায় নীরবে বেড়ে চলছে সংক্রমণের হার।’

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (এমবিডিসি) ও লাইন ডাইরেক্টর অধ্যাপক ডা. মো. শামিউল ইসলাম সারাক্ষণকে বলেন, ‘সারা দেশে যারা যৌনকর্মী আছে, প্রতিরোধ কর্মসূচির আওতায় যৌনপল্লিতে তাদের চেকআপ করা হচ্ছে, বিনামূল্যে কনডম দেয়া হচ্ছে। হোটেল, আবাসিক ও ভাসমান কর্মীদেরও বিভিন্নভাবে সেবার আওতায় আনা হচ্ছে।’ তিনি বলেন, ‘এই পেশা অন্য সাধারণ পেশার মতো না। স্বল্প সময়ে এই কর্মসূচির আওতায় সবাইকে আনা সম্ভব না। আমরা যৌনকর্মীদের এইডস ঝুঁকিমুক্ত করতে কাজ করছি, যাতে তাদের মাধ্যমে অন্য কারো না ছড়ায়।’

ডা. মো. শামিউল ইসলাম বলেন, ‘এখনো এই রোগ আর রোগীদের নিয়ে পরিবার, সমাজ এবং রাষ্ট্রে বৈষম্য ও কুসংস্কার রয়েছে। এটাও আমাদের দেশে এইডস রোগী পরীক্ষা এবং শনাক্ত করার ক্ষেত্রে বড় একটি বাধা। যার কারণে সবাইকে টেস্টিংয়ের আওতায় এনে শনাক্ত করা সম্ভব হচ্ছে না।’

আরো সংবাদ