একজন নার্স দিয়ে ২৭ জানুয়ারি শুরু হচ্ছে টিকাদান কার্যক্রম - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ৪ মার্চ ২০২১ ১৯শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০১-২৩ ১৮:১৫:৪০

একজন নার্স দিয়ে ২৭ জানুয়ারি শুরু হচ্ছে টিকাদান কার্যক্রম

টিকার নিবন্ধন কাল থেকে শুরু

সংবাদ : দেশে করোনার প্রথম টিকা পাচ্ছেন একজন নার্স। ২৭ জানুয়ারি (বুধবার) রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের এই স্বাস্থ্যকর্মীকে দিয়েই টিকাদান কর্মসূচি শুরু হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনলাইনে যুক্ত থেকে টিকা কর্মসূচির উদ্বোধন করবেন। একসপ্তাহ পর ৮ ফেব্রুয়ারি সারাদেশে একযোগে করোনার টিকা প্রয়োগ শুরু হবে। উদ্বোধনের দিন ঢাকার বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার ২৪ থেকে ২৫ জনকে করোনার টিকা দেয়া হতে পারে। কুর্মিটোলা হাসপাতালে উদ্বোধনের পরদিন রাজধানীর আরও চারটি হাসপাতালে টিকা দেয়া হবে। ২৬ জানুয়ারি থেকে টিকার জন্য অনলাইনে নিবন্ধন শুরু হবে।

স্বাস্থ্য সচিব আবদুল মান্নান গতকাল রাজধানীর কিডনি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল পরিদর্শন করে ‘করোনার টিকা’ কর্মসূচির বিষয়ে সাংবাদিকদের বিস্তারিত তুলে ধরেন। একজন নার্সকে টিকা দেয়ার মধ্য দিয়ে প্রাথমিক করোনার টিকা দেয়ার কাজ শুরু হবে বলে জানান সচিব।

আগামী ২৭ জানুয়ারি কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে স্বাস্থ্যকর্মীর সঙ্গে অন্যান্য পেশার মানুষও থাকবে জানিয়ে স্বাস্থ্য সচিব বলেন, ‘সেখানে আরও ২৪ জনসহ মোট ২৫ জনের একটি প্রতিনিধিত্বশীল গ্রুপ থাকবে। সেই তালিকায় চিকিৎসক, নার্স, মুক্তিযোদ্ধা, শিক্ষক, পুলিশ, সেনাবাহিনী, সাংবাদিকসহ অন্য পেশার মানুষ যুক্ত থাকবে।’

তবে করোনাভাইরাস মোকাবিলায় পুনর্গঠিত মিডিয়া সেলের মুখপাত্র ডা. রোবেদ আমিন গতকাল সাংবাদিকদের বলেন, সিদ্ধান্ত কিছুটা পরিবর্তন হয়েছে। উদ্বোধনের দিন সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের টিকা দেয়া হচ্ছে না। এদিন শুধু স্বাস্থ্যসেবার সঙ্গে জড়িত সম্মুখসারির যোদ্ধারা করোনা টিকা নেবেন।

উদ্বোধনের পরদিন ২৮ জানুয়ারি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, মুগদা জেনারেল হাসপাতাল, কুয়েত মৈত্রী জেনারেল হাসপাতাল ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়েও (বিএসএমএমইউ) টিকা প্রয়োগ শুরু হবে জানিয়ে আবদুল মান্নান বলেন, ‘এসব হাসপাতালের ৪০০ থেকে ৫০০ জন স্বাস্থ্যকর্মী দিয়েই এ কার্যক্রম শুরু হবে।’

ঢাকার পাঁচটি হাসপাতালে টিকা দেয়ার পর টিকা গ্রহীতাদের এক সপ্তাহ পর্যবেক্ষণে রাখা হবে এবং পরে ৮ ফেব্রুয়ারি সারাদেশে টিকাদান কর্মসূচি শুরু হবে। উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্র, ইউনিয়ন পরিষদ, জেলা সদর হাসপাতাল, সরকারি-বেসরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, বিশেষায়িত হাসপাতাল, পুলিশ-বিজেপি হাসপাতাল ও সিএমএইচ, বক্ষব্যাধি হাসপাতালে টিকা দেয়া হবে। টিকা দেয়ার জন্য সাত হাজার ৩৪৪টি দল তৈরি করা হয়েছে। একটি দলের মধ্যে ছয়জন সদস্য থাকবে। এর মধ্যে দু’জন টিকাদানকারী (নার্স, স্যাকমো, পরিবার কল্যাণ সহকারী) ও চারজন স্বেচ্ছাসেবক থাকবেন।

টিকার পাইলটিংয়ের জন্য ঢাকার

হাসপাতালগুলোর প্রস্তুতি

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের স্টাফদের ভ্যাকসিন (টিকা) দেয়ার মাধ্যমে শুরু হবে ঢামেকে করোনার টিকা প্রয়োগ। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাজমুল হক গতকাল সংবাদকে এ তথ্য জানিয়ে বলেন, করোনার টিকা প্রয়োগের জন্য ঢামেকে চারটি বুথ করা হবে। বুথগুলো হবে ঢামেকের পুরনো ভবনের আন্ডারগ্রাউন্ডে।

বিএসএমএমইউ’র উপাচার্য প্রফেসর ডা. কনক কান্তি বড়–য়া গতকাল সংবাদকে বলেন, ‘টিকাদানের জন্য ১১ সদস্যের একটি ‘টাস্কফোর্স’ কমিটি গঠন করা হয়েছে। বিশ^বিদ্যালয়ের কনভেনশন সেন্টারে টিকা দেয়া হবে। স্বপ্রণোদিত হয়ে যারা আসবেন তাদেরই টিকা দেয়া হবে, কাউকে জোর করা হবে না। কর্মসূচি বাস্তবায়নে সর্বাত্মক প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।’

গত ২০ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ভ্যাকসিন বিষয়ক এক সংবাদ সম্মেলনে আগামী ২৭ অথবা ২৮ জানুয়ারি কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ‘ড্রাই রান’ বা মহড়া শুরুর মাধ্যমে দেশে করোনা টিকাদান কার্যক্রম শুরু হবে বলে জানিয়েছিলেন স্বাস্থ্য সচিব আবদুল মানান।

গত ১১ জানুয়ারি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছিল, আগামী ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে দেশে করোনার টিকা জাতীয়ভাবে শুরু হবে। এই পরিকল্পনা পরিবর্তন হতে পারে জানিয়ে স্বাস্থ্য সচিব বলেন, ‘অন্য হাসপাতালেও উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শুরু করা হতে পারে। কিন্তু যে হাসপাতালেই হোক সেখানে প্রথম দিনে সিভিল সোসাইটির বিভিন্ন স্তরের ২০ থেকে ২৫ জনকে টিকা দেয়া হবে।’

স্বাস্থ্য সচিব বলেন, ‘সেখানে চিকিৎসক, নার্সসহ একজন করে শিক্ষক, মুক্তিযোদ্ধা, পুলিশ বাহিনী, সেনাবাহিনী, সিভিল সংগঠনের প্রতিনিধি, সাংবাদিকদের নেয়া হবে। ক্রস সেক্টর থেকে বাছাই করে প্রথম দিন ২০ থেকে ২৫ জনকে এই টিকা দেয়া হবে।’

পরবর্তীতে ড্রাই রান বা টেস্ট হিসেবে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল, কুয়েত বাংলাদেশ মৈত্রী সরকারি হাসপাতাল ও মুগদা জেনারেল হাসপাতালকে বাছাই করা হয়েছে জানিয়ে সচিব বলেন, ‘সেখানে ৪০০ থেকে ৫০০ জনকে টিকা দেয়া হবে। এরপর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রটোকল অনুযায়ী তাদের পর্যবেক্ষণ করা হবে, তাদের মধ্যে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয় কিনা সেটা দেখা হবে।’

গত ২০ জানুয়ারি ভারত সরকারের উপহার হিসেবে দেয়া ‘অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকা’র তৈরি করোনার ‘কোভিশিল্ড’ টিকা দেশে পৌঁছায়। তবে চুক্তির আওতায় বাংলাদেশের কেনা তিন কোটি ডোজ টিকার প্রথম চালান ‘৫০ লাখ’ ২৫ জানুয়ারির মধ্যে দেশে পৌঁছার কথা রয়েছে। এর মধ্যে উপহারের টিকা দুই ধাপে (প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ) শুধু ঢাকার মানুষকে দেয়া হবে।

এই ৭০ লাখ টিকার মধ্যে ৬০ লাখ টিকা দেয়া হবে প্রথম মাসে, দ্বিতীয় মাসে ৫০ লাখ, তৃতীয় মাসে দেয়া হবে আবার ৬০ লাখ। প্রথম মাসে টিকা পাওয়াদের দ্বিতীয় ডোজ দেয়া হবে তৃতীয় মাসে। এভাবেই ভ্যাকসিন বিতরণ পরিকল্পনা করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে কেনা টিকা দেশে আসার পর ঢাকা থেকে বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস চুক্তি অনুযায়ী দেশের বিভিন্ন জেলাতে টিকা পৌঁছে দেবে।

বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজমুল হাসান পাপন গতকাল রাজধানীর মোহাম্মদপুরে ইকবাল রোডে উদয়াচল পার্কের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের জানান, ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটের সঙ্গে তিন কোটি ডোজ করোনা টিকা আমদানির চুক্তি হয়েছে। আগামী দুই-একদিনের মধ্যেই চুক্তির প্রথম চালান ৫০ লাখ টিকা বাংলাদেশে আসবে।

ইতোমধ্যে ভ্যাকসিনের জন্য সিরিঞ্জসহ সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে জানিয়ে স্বাস্থ্য সচিব আবদুল মান্নান বলেন, টিকাদানকারীদের প্রশিক্ষণ শেষ পর্যায়ে, আগামী ৩০ জানুয়ারি এ প্রশিক্ষণ শেষ হবে। তারা ইতোমধ্যেই প্রশিক্ষিত। টিকা নিয়ে বাংলাদেশ অভিজ্ঞ, পুরো বিশ্বেই প্রশংসিত।

আরো সংবাদ