একের পর এক প্রাণ হারাচ্ছে বন্যহাতিরা - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২ ডিসেম্বর ২০২০ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-১১-১৮ ১০:৫৪:৪৫

একের পর এক প্রাণ হারাচ্ছে বন্যহাতিরা

একের পর এক প্রাণ হারাচ্ছে বন্যহাতিরা

বিশেষ প্রতিবেদক :  কক্সবাজারে মানুষের নির্মমতায় একের পর এক মারা যাচ্ছে বন্যহাতি। চলতি মাসে কক্সবাজারের চকরিয়া ও রামুতে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে ৩টি বন্যহাতি। সংশ্লিষ্টরা বলছেন রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে গিয়ে হাতির আবাসস্থল উজাড়, খাদ্য সংকট ও চলাচল বাধাগ্রস্ত হওয়ায় লোকালয়ে হানা দিচ্ছে হাতি।
যার ফলে বন্যহাতি ও মানুষের মধ্যে দ্বন্ধ তৈরী হচ্ছে। এদিকে হাতিকে গুলি করে হত্যার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন পরিবেশ বিষয়ক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলো। ২০১৭ সালে আগে কক্সবাজারের টেকনাফ, উখিয়া, রামু ও চকরিয়ার বনাঞ্চলে দল বেঁধে অবস্থান করত বন্যহাতির দল। আবাসস্থল, খাদ্য ও চলাচলের পথ স্বাভাবিক থাকায় বনে দল বেঁধে ঘুরে বেড়াতো বন্যহাতিরা। মাঝে মধ্যে এই দৃশ্য দেখাও যেতো। কিন্তু এখন আর সেই দৃশ্য চোখে পড়ে না।
কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফে ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিতে গিয়ে উজাড় হয়েছে বনাঞ্চল। ফলে তাদের আবাসস্থল, খাদ্য সংকট ও চলাচল বাধাগ্রস্থ হওয়ায় হানা দিচ্ছে লোকালয়ে। বনবিভাগ সূত্র জানান, ২০২০ সালের ৬ নভেম্বর কক্সবাজারের চকরিয়ার খুটাখালীর কালাপাড়ার বনাঞ্চলে একটি বাচ্চা হাতিকে গুলি করে হত্যা করা হয়।
৮ দিনের ব্যবধানে ১৪ নভেম্বর কক্সবাজারের রামু উপজেলার জোয়ারিয়ানালার জুমছড়ির বনাঞ্চলে প্রায় ৩০ বছর বয়সী স্ত্রী হাতিকে গুলি করা হয়। ওই হাতি ১৬ নভেম্বর মারা যায়। এক দিনের ব্যবধানে ১৫ নভেম্বর কক্সবাজার রামুর দক্ষিণ মিঠাছড়ির খরুলিয়াছড়ায় বিদ্যুতের তার ও গুলি করে আরও একটি হাতিকে হত্যা করা হয়।
সুজন এর রামু উপজেলার সভাপতি মোহাম্মদ আলম কক্সবাজার কন্ঠ’কে জানিয়েছেন, ২দিনের ব্যবধানে দুটি হাতিকে গুলি ও বিদ্যুৎ শক দিয়ে হত্যা পরিবেশ-প্রতিবেশ ধ্বঃস্ব এবং বন্যপ্রাণী বিলুপ্ত হওয়ার আভাস দিচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে অচিরে চিড়িয়খানাতেও হাতির দেখা মিলবে না। কয়েক মাসে রামুসহ জেলার বিভিন্নস্থানে অসংখ্য বন্য হাতিকে পরিকল্পিতভাবে হত্যার খবর দেশের জন্য বড় দুঃসংবাদ। এ জন্য সরকারকে বন্যপ্রাণী রক্ষায় দ্রুত কার্যকর প্রদক্ষেপ নিতে হবে।
এ নিয়ে রামু উপজেলার প্রাণিসম্পদ সম্প্রসারণ কর্মকর্তা ডাক্তার শাহজাদা মোহাম্মদ জুলকার নাইন কক্সবাজার কন্ঠ’কে বলেন, চলতি মাসে ৩টি বন্যহাতিকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। ময়না তদন্ত রিপোর্টে দেখা গেছে প্রতিটি হাতিকে ৪ থেকে ৮টি পর্যন্ত গুলি করা হয়েছে। গুলিগুলো করা হয়েছে অন্তত ১০ থেকে ১৫ দিন আগে। এতে বুঝা যায় হাতিগুলো এক স্থান থেকে গুলিবিদ্ধ হয়ে অন্য স্থানে চলে আসছে। এরপর দীর্ঘদিন অসুস্থ হয়ে মারা যাচ্ছে ।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের এক রেঞ্জ কর্মকর্তা কক্সবাজার কন্ঠ’কে বলেন, টেকনাফ, উখিয়া, রামু ও চকরিয়া বনাঞ্চলে হাতির আবাসস্থল, খাদ্য ও চলাচলের পথ ছিল। কিন্তু ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে গিয়ে উখিয়া ও টেকনাফের এসব বনাঞ্চল উজাড় করা হয়েছে। এতে গড়ে তোলা হয়েছে ৩২টির রোহিঙ্গা ক্যাম্প। এতে হাতির আবাসস্থল নষ্ট হয়ে যায়। যার ফলে হাতি তাদের আবাসস্থল, খাদ্য সংকট ও চলাচলের পথ বাধাগ্রস্ত হওয়ায় লোকালয়ে চলে আসছে।
অন্যদিকে মানুষ তাদের পাহাড়ি আস্তানা, ধান, সবজি ও ঘরবাড়ি রক্ষার্থে নির্মমভাবে হাতিগুলোকে গুলি করে হত্যা করছে। পরিবেশবাদী সংগঠন এনভায়রনমেন্ট পিপল জানান ২০১৭ সালের আগে কক্সবাজার বনাঞ্চলে হাতির সংখ্যা ছিল প্রায় ৯২টি। আর গত ২ বছরে কক্সবাজার ও আশপাশের অঞ্চলে অস্বাভাবিকভাবে মৃত্যু হয়েছে ১৩টি হাতির।
জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল শামসুদ্দিন আহমেদ প্রিন্স কক্সবাজার কন্ঠ’কে জানিয়েছেন, এ বর্বর হত্যাকান্ডে এলাকাবাসীও মর্মাহত। তিনি বন্যপ্রাণী হত্যায় জড়িতদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনতে এলাকার সর্বস্তরের জনতাকে তথ্য দিয়ে সহযোহিতা করার অনুরোধ জানান।
এব্যাপারে রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রণয় চাকমা কক্সবাজার কন্ঠ’কে বলেন, হাতির চলাচলের নির্দিষ্ট একটি ঝিরি পথ রয়েছে। সেই ঝিরি পথে যদি মানুষ স্থাপনা তৈরি করে তাহলে হাতি তার নির্দিষ্ট পথ হারিয়ে ফেলে। ফলে লোকালয়ে আসলে মানুষের আঘাতে মারা পড়ছে। যা আমাদের জন্য খুবই ক্ষতিকর বিষয়।
ইউএনও বলেন, এখন থেকে বনাঞ্চলে কোন ধরণের স্থাপনা কিংবা দখল করতে মানুষজনকে যেতে দেয়া হবে না। এটি নজরদারি করা হবে। যারা বনাঞ্চলে স্থাপনা কিংবা দখল করতে যাবে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়া যারা এসব হাতিদের গুলি করে হত্যা করেছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে জানান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রণয় চাকমা।

আরো সংবাদ