এডভোকেট গুন্দু ও সরোয়ারের বিরুদ্ধে ১০ লক্ষ টাকার চাঁদাবাজি মামলা - কক্সবাজার কন্ঠ

মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০১৯-১২-০৩ ১৯:৪২:৫৫

এডভোকেট গুন্দু ও সরোয়ারের বিরুদ্ধে ১০ লক্ষ টাকার চাঁদাবাজি মামলা

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি : চাঁদা দাবীর অভিযোগে এডভোকেট ফখরুল ইসলাম গুন্দুসহ দুই জনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করেছেন মহেশখালী উপজেলার মাতারবাড়ি সিকদার পাড়া এলাকার মৃত মৌলানা আলী আহমদের ছেলে ও কুতুবদিয়া সরকারি কলেজের (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যক্ষ আলহাজ্ব মোঃ নুরুচ্ছাফা। ৩ ডিসেম্বর (মঙ্গলবার) কুতুবদিয়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলাটি (সি.আর ৩৬২/২০১৯ইং) রুজু হয়।

Advertisements

আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগকে (সিআইডি) তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন। মামলা সূত্রে জানা গেছে, কক্সবাজার পৌরসভার বৈদ্যরঘোনা খাজা মঞ্জিল রোড এলাকার মৃত আওরঙ্গজেবের ছেলে ফখরুল ইসলাম গুন্দু ও দক্ষিণ রুমালিয়ারছড়ার মৃত আলী আহমদের ছেলে মোঃ সরোয়ার কামাল কমিশনের ভিত্তিতে কক্সবাজার এল এ অফিসে দালালি করেন। বর্তমান সরকারের বহুমুখী উন্নয়নের মেগা প্রকল্পের আওতায় মহেশখালী উপজেলার মাতারবাড়িতে কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্পের অধিনে মাতারবাড়ি সিকদার পাড়া এলাকার মৃত মৌলানা আলী আহমদের ১৯৭২ সালের ২৩ মার্চের ৮৪, ৮৫, ৮৬ ও ১০৬নং রেজিষ্ট্রার্ড দলিলমূলে ক্রয়কৃত ৪.৮০ একর জমি অধিগ্রহণ হয়। বিষয়টি জানতে পেরে মাতারবাড়ি এলাকার আবদু শুক্কুরের মাধ্যমে খোঁজ নিয়ে বিগত ২০১৭ সালের ২০ আগষ্ট দুপুর ১২টায় কুতুবদিয়া সরকারি কলেজে মামলার বাদী আলহাজ্ব নুরুচ্ছাফার সাথে দেখা করতে আসেন ফখরুল ইসলাম গুন্দু।

কলেজ কার্যালয়ে বসে ক্ষতিপূরণের টাকা উত্তোলণের ব্যাপারে দীর্ঘক্ষণ আলোচনা হয়। জমির নামজারী সৃজিত খতিয়ান না থাকায় টাকা উত্তোলণের ক্ষেত্রে জটিলতার থাকার কথা বলে সর্বোচ্চ ৩ মাসের মধ্যে ক্ষতিপূরণের টাকা উত্তোলণের জন্য নামজারী খতিয়ান সৃজনসহ এল এ অফিসে যাবতীয় কাজ নিজ খরচে করার শর্তে ক্ষতিপূরণের টাকার উপর শতকরা ২৫ ভাগ কমিশন দাবী করে জামানত হিসেবে ব্যাংক হিসাবের অনুকূলে দস্তখত করা ২টি খালি চেক দাবী করেন।

আলহাজ্ব নুচ্ছাফা হার্টের রোগি এবং কর্মস্থল কুতুবদিয়ায় হওয়ায় সরল বিশ্বাসে ক্ষতিপূরণের টাকা উত্তোলনের দায়িত্ব দেন এল এ অফিসের দালাল ফখরুল ইসলাম গুন্দু ও তার সহকারি সরোয়ার কামালকে। কথামতো টাকা উত্তোলণের প্রক্রিয়া শুরুর নামে ২০১৭ সালের ১সেপ্টেম্বর বেলা ৩টায় আবদু শুক্কুরসহ কুতুবদিয়া কলেজে চেক এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের জন্য আসেন ফখরুল ইসলাম গুন্দু। এসময় উত্তরা ব্যাংক লিঃ কক্সবাজার শাখার সঞ্চয়ী হিসাব নং ১১-৬৪৭৬ এর অনুকূলে ২টি খালি (ঝইই/ঊ নং ২৬৯৪৯৩৪ ও ঝইই/ঊ নং ২৬৯৪৯৩৩) চেকে টাকার অংক খালি রেখে দস্তখত করে জামানত হিসেবে দেন আলহাজ্ব নুরুচ্ছাফা। তারাও দ্রুত কাজ করবে বলে চেক দু‘টি ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র বুঝে নিয়ে নিয়ে চলে যায়। হাজারো তাগাদা দেয়ার পরও প্রতারণার উদ্দেশ্যে মিথ্যে আশ্বাস দিয়ে সময়ক্ষেপণ করতে থাকে গুন্দু ও সরোয়ার নামে এল এ অফিসের দালালগণ। নির্ধারিত সময়ের পরও কাজের কোন প্রক্রিয়া শুরু না হওয়ায় এ দালালদের সাথে যোগাযোগ করেন নুরুচ্ছাফা। তাদের কাছে সন্তোষজনক কোন উত্তর না পেয়ে প্রতারণার শিকার হওয়ার আশঙ্কায় গত কুতুবদিয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (নং-৪৬১/১৮) করেন। নিরুপায় হয়ে আবদু শুক্কুরকে সাথে নিয়ে এল এ অফিসের স্থানীয় এক কর্মচারির সহযোগিতায় নিজের খরচে সকল প্রক্রিয়া শেষে ক্ষতিপূরণের আংশিক টাকা উত্তোলণ করেন নুরুচ্ছাফা। পরে জামানত হিসেবে থাকা চেক ২টি ফেরত চাইলে কোন কাজ না করেই খরচের টাকা দাবি করেন ফখরুল ইসলাম গুন্দু। হিসাব করে পাওনা বুঝে নেয়ার জন্য তাদেরকে বৈঠকে বসতে বললে গত ১ মার্চ বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে আরও ৩ জনকে সাথে নিয়ে কুতুবদিয়া কলেজের অফিস কক্ষে আসেন তারা। এতে হিসাব শেষে কোন টাকা পাওনা না হওয়ায় তাদের কাছে আবারও জামানতের চেক ২টি ফেরত চান নুরুচ্ছাফা। কোন কারান ছাড়াই শুধুমাত্র জমি অধিগ্রহণের খবর দেওয়ার অজুহাতে উত্তোলণকৃত ক্ষতিপূরণের টাকা থেকে ১০ লাখ টাকা চাঁদা হিসেবে দাবি করেন এ দালালগণ। এতে রাজি না হওয়ায় জালিয়াতির মাধ্যমে জামানত হিসেবে দেয়া টাকার অংক খালি রাখা প্রতিটি চেকে ৫ লক্ষ টাকা করে বসিয়ে কৌশলে ডিজঅনার করিয়ে নেয়।

Advertisements

কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যজিস্ট্রেট আদালতে এন আই এক্টের ১৩৮ ধারা মতে সিআর ৯৫৬/১৯ নং মামলা রুজু করে। বর্তমানে চাঁদার টাকা না দিলে জমি দখলসহ জান মালের ক্ষতি করবে বলে বিভিন্ন মোবাইল থেকে হুমকি দিচ্ছে বলেও মামলা সূত্রে জানা গেছে। এ বিষয়ে ফখরুল ইসলাম গুন্দুর মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মামলার বিষয়ে আমি কিছু জানিনা। আমি কারও কাছে চাঁদা দাবি করিনি। যদি কেউ মামলা করে থাকে তাহলে সেটি হবে মিথ্যা মামলা

আরো সংবাদ