এলএও শাখার দালালদের বিরুদ্ধে আইগত ব্যবস্থা নেয়ার দাবী - কক্সবাজার কন্ঠ । জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল

শুক্রবার, ৩ এপ্রিল ২০২০ ২০শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০২-২২ ২১:৪৮:৫৩

এলএও শাখার দালালদের বিরুদ্ধে আইগত ব্যবস্থা নেয়ার দাবী

নিজস্ব প্রতিবেদক: কক্সবাজার ভূমি অধিগ্রহণ শাখা (এলএও) কেন্দ্রিক চিহ্নিত দালালদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার দাবী উঠেছে। ৩৮ দালালের একটি তালিকা প্রশাসনের হাতে রয়েছে। ওই তালিকার চিহ্নিত কিছু দালালকে আটক করে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করা হয়েছিলো। কিন্তু তারা জেল থেকে বের হয়ে অসহায় মানুষকে পুঁজি করে ফের দালালী কার্যক্রম চালিয়ে আসছে। তারা বিভিন্ন মাধ্যম দিয়ে লেনদেন করে থাকে। দালালদের সাথে এলএ অফিসের কথিত কর্মকর্তাদের সাথে আতাঁত করে জমি’র মালিকদের পথে বসিয়ে দেয় বলে জানিয়েছে বিশ্বস্ত সুত্র।

Advertisements

সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা গেছে, ভূমি অধিগ্রহণ শাখা কেন্দ্রিক ৩৮ জন চিহ্নিত দালালের তালিকা প্রশাসনের কাছে জমা আছে। ইতোপূর্বে এরকম দালালের একটি তালিকা জেলা প্রশাসক ভবনের দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলার দেয়ালে টাঙিয়ে দেন জেলা প্রশাসন। সম্প্রতি তাদের বিরুদ্ধে আইগত ব্যবস্থা নিতে বিভিন্ন মহল হতে অভিযোগ উঠেছে।
সুত্রের দাবী, ওই তালিকার বাইরেও আরো অনেক দালাল রয়ে গেছে। যারা আদালত প্রাঙ্গন ও আশপাশের বিভিন্ন আবাসিক হোটেল কেন্দ্রিক অফিস গড়ে তুলেছে। দালাল সিন্ডিকেটের খপ্পরে পড়ে ভূমিহারা মানুষদের কমিশন দিতে হচ্ছে। অবশেষে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছে ভুক্তভোগিরা। শুধু দালাল কেন, এলএ অফিসে কর্মরত অনেক বড় কর্তাও কমিশন বানিজ্যে জড়িত। যাদের নির্দিষ্ট কমিশন না দিলে ক্ষতিপূরণের টাকা পাওয়া কোনভাবেই সম্ভব নয় বলে ভুক্তভোগিদের অভিযোগ।
Advertisements

খোঁজ খবর নিয়ে জানা গেছে, দালাল, প্রতারক, ঠকবাজ চক্রের হাতে জিম্মি হয়ে পড়েছে কক্সবাজার ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তার (এলও) কার্যালয়। এলও অফিস কেন্দ্রীক গড়ে উঠেছে শক্তিশালী সিন্ডিকেট। আদালত পাড়ার আশপাশে গড়ে উঠেছে দশটিরও বেশী দালাল অফিস। ওখান থেকে নিয়ন্ত্রণ হয় দালালিপনা। অগ্রিম ৩০% টাকা কমিশন দিলেই মেলে ক্ষতিপূরণের চেক। আর এই কমিশন বাণিজ্যে জড়িয়ে পড়েছে এলও অফিসের পিয়নসহ কর্মরত একটি চক্র। সেই তালিকায় কানুনগো-সার্ভেয়ারও রয়েছে। তাদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে জমির মূল মালিকরা। অন্যথায় আটকিয়ে রাখা হয় ক্ষতিপূরণের চেক। মাতারবাড়ীতে কয়লা বিদ্যুত প্রকল্প বাস্তবায়নে এসব লঙ্কাকান্ড ঘটেছে। রেল লাইনের ক্ষতিপূরণের টাকা নিয়েও একই অভিযোগ। হয়রানী থেকে রেহায় চেয়ে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে আবেদনের স্তুপ পড়েছে ভুক্তভোগীদের। দালালরা কখনো এলও অফিসের স্টাফ, আবার কখনো এডিসি রেভিনিউর আস্থাভাজন লোক পরিচয় দেয়। সুযোগ বোঝে সরকারী দলের পরিচয় দিয়েও চলে।

অনুসন্ধানে শহরে অন্তত ২০টি দালাল অফিসের সন্ধান মেলেছে। কক্সবাজার আদালত ভবনের পূর্ব পাশে (আইন কলেজের উত্তরে) হোটেল মৌসুমিতে রয়েছে খোরশেদ সিন্ডিকেটের অফিস। লালদীঘিরপাড়স্থ ইডেন গার্ডেন সিটির নীচ তলার একটি অফিস নিয়ন্ত্রণ করে রনি, মোস্তাফিজ, শফিক, হোছন, মোর্শেদ মেহেদী। ঢাকা হোটেলে আবুল হাশেম, সাদ্দাম, হেলালের অফিস। সাথে রয়েছে আরো কয়েকজন দালাল। পাবলিক লাইব্রেরীর বিপরীতে সৈকত পেপার এজেন্সীতে সরাসরি এলও অফিসের কর্মচারির অফিস! ভুমি অফিসের শক্তিশালী দালাল চক্র সিন্ডিকেটের প্রধান সরকারী ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারি হাশেম। ঝাউতলায় অফিস করেছে সাহাব উদ্দিন, হাজি ফরিদ, আবু ছালেক মামুন সিন্ডিকেট। কস্তুরাঘাট সংলগ্ন হোটেল গার্ডেনের ১ নং কক্ষে ইব্রাহিম, আমান উল্লাহ সিন্ডিকেট অফিস। হোটেল এম. রহমানে খোরশেদ আলম সিন্ডিকেট, শহীদ সরণিস্থ হোটেল কোহিনূর-এ রমিজ, মতিন, আসাদ উল্লাহর অফিস। বদর মোকাম সড়কে বাবর চৌধুরী ও দিদারের অফিস। দালাল মুসা, হেলাল ও মৌলভী মোর্শেদের অফিস হলিডে মোড়ের হোটেল এলিন পার্কে। হোটেল হলিডে তে অফিস রয়েছে অলিদ চৌধুরী, ঢাকার আহাদ, মিঠুনের। লালদিঘী পূর্বপাড়ের পূরাতন এস.আলম কাউন্টারের জমিতে নির্মিত কক্সসিটি সেন্টারেও সম্প্রতি দালালের অফিস গড়ে উঠেছে। এছাড়া বিভিন্ন বাসা বাড়ী কেন্দ্রীক ভ্রাম্যমান কাজ করে- এমন অনেক দালাল রয়েছে। সব মিলিয়ে কক্সবাজার ভূমি অধিগ্রহণ অফিস অনেকটা দালালদের কব্জায় চলে গেছে। দালাল ছাড়া কোন কাজই হয়না। এদিকে উখিয়ার জালিপালং রুপপতি মুহিবুল্লাহ, চোয়ানখালী আব্দুর রহিম, মনখালীর মোস্তাক আহমদ, কুমিল্লার বাহার, ঈদগাও এলাকার আরিফ, সোস্যাল ব্যাংকের কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম, মাতারবাড়ীর আশেক, শাপলাপুরের সেলিম, ধলঘাটা এলাকার তাজ উদ্দিন, মাতারবাড়ীর পাতলা হোসেন, কালারমারছড়ার মোটা হোসেন ড্রাইভার, কথিত এডভোকেট নামধারি মুসলিম, সাঈদ, আনসার, কলিম উল্লাহ ও রেজাউল করিম। সূত্রটি আরও জানায়, মহেশখালীর ঝাপুয়ার খোরশেদ, হোয়ানক হাবিরছড়া মো. ইব্রাহিমকে,কালারমারছড়ার নোমান, নুনাছড়ির রকি উল্লাহ রকি ও মাতারবাড়ির মাইজপাড়ার আবদুল কাইয়ুম, উখিয়ার বশর, হেলাল, শহরের স্বেচ্ছাসেবক দলের মালেক, আরও অনেকই।

এছাড়াও উক্ত দালাল চক্রের মধ্যে কথিত সাংবাদিক, আইনজীবি, সরকারী অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারি, বহিরাগত, রাজনীতিবিদসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ রয়েছে। যা সংশ্লিষ্ট দপ্তর অবগত রয়েছে। এলএ অফিসের চারদিকে সিসি ক্যামেরা সক্রিয় রয়েছে। ভিডিও ফুটেজ দেখলে বুঝা যাবে আসলে কারা দালালী করে? অভিযুক্ত দালালদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে বিভিন্ন মহল হতে সম্প্রতি দাবী উঠেছে প্রশাসনের কাছে। তাদের কারনে হাজারো জমি’র মালিক আজ পথে বসেছে বলে সূত্রটি দাবী করছেন।

Advertisements

এ প্রসঙ্গে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আশরাফুল আফসার বলেন, ক্ষতিগ্রস্তদের টাকা নিয়ে বিভিন্ন দালালের বিরুদ্ধে অভিযোগ দীর্ঘদিনের। অধিগ্রহণ শাখাকে দালাল ও সুভিধাভোগিমুক্ত করতে প্রশাসন তৎপর রয়েছে। তিনি আরও বলেন, জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের এলএ শাখায় দালাল বা ফড়িয়াদের উৎপিড়ন বেড়ে যাওয়ায় কিছুদিন আগে জেলা প্রশাসক মহোদয়ের নির্দেশে তাদের তালিকা করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

আরো সংবাদ