কক্সবাজারের ৩ পুকুরকে ঘিরে বিনোদন স্থান,শীঘ্রই কাজ শুরু - Coxsbazarkontho.com

শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৯-০৪-০৬ ১০:০০:৩৯

কক্সবাজারের ৩ পুকুরকে ঘিরে বিনোদন স্থান,শীঘ্রই কাজ শুরু

@৩৬ কোটি টাকা ব্যয়ে সৌন্দর্য্যবর্ধন প্রকল্পের আওতায়@
জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার: কক্সবাজার শহরের ঐতিহ্যবাহী তিন দীঘির সৌন্দর্য্য বর্ধনের উদ্যোগ নিয়েছে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ। পুকুর তিনটি হলো শহরের লালদীঘি, গোলদীঘি ও বাজারঘাটাস্থ নাপিতা পুকুর। এই ৩ পুুকুরকে ঘিরে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে ৩৬ কোটি টাকার সৌন্দর্যবর্ধন প্রকল্প। সম্প্রতি এই প্রকল্পের কার্যাদেশও প্রদান করা হয়েছে। সৌন্দর্য্য বর্ধন হলে এই পুকুর তিনটি হবে পর্যটন নগরী কক্সবাজারের নতুন বিনোদন কেন্দ্র। কক্সবাজারে বেড়াতে আসা পর্যটকদের বাড়তি বেড়ানোর স্থান হবে এই তিন পুকুর। সেই সাথে শহরবাসীদের সুন্দর ও স্বস্তিদায়ক অবসর সময় কাটবে সেখানে। এমন পরিকল্পনা নিয়ে এই তিন পুকুরের সৌন্দর্য্য বর্ধন প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (কউক)। কউক’র চেয়ারম্যান লে. কর্ণেল (অব.) ফোরকান আহমদ এই প্রতিবেদককে তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন। কউক সূত্রে জানা গেছে, কক্সবাজার শহরকে একটি পরিকল্পিত পর্যটন নগরী হিসেবে গড়তে শহরের লালদীঘি, গোলদীঘি ও বাজারঘাটাস্থ নাপিতা পুকুরকে কেন্দ্র করে সৌন্দর্যবর্ধন প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এসব পুকুর পুনঃখননসহ ভৌত সুযোগ সুবিধার উন্নয়ন ঘটিয়ে আধুনিক ও পর্যটন বান্ধব হিসাবে গড়ে তোলা হবে। ইতোমধ্যে সরকারিভাবে ই-টেন্ডারের মাধ্যমে ৩৬ কোটি টাকার তিনটি প্রকল্পের কার্যাদেশ তিনটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে দেয়া হয়েছে। ২০২০ সালের জুনের দিকে প্রকল্প তিনটির কাজ শেষ হবার কথা রয়েছে। এসব প্রকল্পের আওতায় পুকুর তিনটি ঘিরে সবুজ বেষ্টনী, সাইকেল স্ট্যান্ড, পুকুরের পাড় বাঁধাই, ওয়াকওয়ে নির্মাণ, রিটেইনিং ওয়াল নির্মাণ, আলোকসজ্জা, বিদ্যুতায়ন, পয়:নিষ্কাশন ও পানি সরবরাহ ব্যবস্থা রয়েছে। প্রকল্পগুলো বাস্তবায়িত হলে শহরের চিত্রই পাল্টে যাবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।
কউক চেয়ারম্যান লে. কর্নেল (অব.) ফোরকান আহমদ বলেন, কক্সবাজারের ঐতিহ্যবাহী এই তিন পুকুরের সৌন্দর্য্য বর্ধন প্রকল্প অত্যন্ত গুরুত্বের নিয়ে বাস্তবায়ন করছি। এই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে এই তিন পুকুর হবে অত্যন্ত আনন্দদায়ক বিনোদনের স্পট। কউক চেয়ারম্যান আরও বলেন, খুব শীঘ্রই পুকুরগুলো পুন:খননের মাধ্যমে প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ শুরু হবে। অবৈধভাবে গড়ে উঠা স্থাপনাগুলো সরিয়ে বা সরকারি জমি পুনরুদ্ধার করেই কাজ শুরু করা হবে। ইতোমধ্যে মসজিদ ও রাজনৈতিক দলের অফিসগুলো সমঝোতার মাধ্যমে অন্যত্র সরিয়ে নিতে দায়িত্বশীলদের সাথে বৈঠক হয়েছে বলে জানান তিনি।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
সেপ্টেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০