কক্সবাজারে করোনা পরিস্থিতি উন্নতির দিকে - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ৫ ডিসেম্বর ২০২০ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শনিবার

প্রকাশ :  ২০২০-০৭-১৫ ০৪:৩৫:২৭

কক্সবাজারে করোনা পরিস্থিতি উন্নতির দিকে

দেশে করোনা আক্রান্ত হয়ে ২৪ ঘণ্টায় ৩৯ জনের মৃত

নিজস্ব প্রতিবেদক :  পর্যটন নগরী কক্সবাজারে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা তিন হাজারের ছাড়ালেও জুলাই মাসের শুরু থেকে করোনা সংক্রমণ কমতে শুরু করেছে। বর্তমানে জেলায় সংক্রমণের হার শতকরা ৬ থেকে ৮ ভাগে নেমে এসেছে। দেশের প্রথম রেড জোন ঘোষিত কক্সবাজার পৌর এলাকার পাশাপাশি জেলায় লকডাউন বাস্তবায়নের কারণে করোনা সংক্রমণের হার কমতে শুরু করেছে বলে জানিয়েছেন কক্সবাজারের স্বাস্থ্য বিভাগ ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা।

এখন লকডাউনের মেয়াদকাল শেষ হলেও কন্ট্রাক ট্রেসিংয়ের মাধ্যমে সংক্রমণের লাগাম টেনে ধরার কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সংক্রমণের নিন্মমুখী হারের এ ধারা অব্যাহত থাকলে কক্সবাজারকে করোনামুক্ত করা সম্ভব হবে।

কক্সবাজার সিভিল সার্জন অফিস জানিয়েছে, ১৪ জুলাই পর্যন্ত কক্সবাজার জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাড়িয়েছে ৩০৬১ জন। এ পর্যন্ত করোনা রোগ থেকে সুস্থ হয়েছে ১৮১২ জন। করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ৪৭ জন। বর্তমানে আক্রান্তের চেয়ে সুস্থতার হার বেশি। জানা গেছে করোনা সংক্রমণের হার ও মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় জেলা প্রশাসন গত ৬ জুন থেকে ২০ জুন পর্যন্ত কক্সবাজার পৌর এলাকাসহ জেলার কয়েকটি উপজেলার সংক্রমণ প্রবন এলাকাকে দেশের প্রথম রেড জোন ঘোষণা করে দ্বিতীয় দফায় লকডাউন করে। পরে লকডাউনের মেয়াদকাল বাড়িয়ে ৩০ জুন পর্যন্ত বাড়ানো হয়। এ ছাড়া জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ১১ জুলাই পর্যন্ত এসব এলাকায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে।

স্বাস্থ্য বিভাগ ও প্রশাসনের সংশ্লিষ্টদের তথ্য মতে, রেড জোন ঘোষণা করে লকডাউন করার আগে জেলায় করোনা সংক্রমণের হার ছিল নমুনা পরীক্ষার শতকরা ৩০ থেকে ৪০ ভাগের কাছাকাছি। এখন তা দিন দিনই কমতে শুরু করেছে। সর্বশেষ গত ১ জুলাই থেকে ১৪ জুুলাই পর্যন্ত সংক্রমণের এ হার গড়ে ৮ শতাংশের নীচে। সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সুত্রমতে গত ১৪ জুলাই পর্যন্ত ৫৭ জন রোহিঙ্গাসহ কক্সবাজারে করোনা আক্রান্ত হয়েছে ৩ হাজার ৬১ জন, সুস্থ হয়েছে ১ হাজার ৮১২ জন। এছাড়া ৫ জন রোহিঙ্গাসহ জেলায় মৃত্যু ৪৭ জনের।

এদিকে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলছেন, কার্যকর লকডাউনের কারণে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনার ব্যাপারে আশাবাদী। এখন করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসাসেবা প্রদানে ঘাটতি পূরণের জন্য কাজ চলছে। এতে অনেকটা অগ্রগতিও হয়েছে। কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে আইসিও সেবা নিশ্চিত করা হয়েছে। আগামী কোরবানির ইদ পর্যন্ত কক্সবাজার জেলায় স্বাস্থ্য বিধি মেনে সরকারি বেসরকারি অফিসে কার্যক্রম চলবে এবং সৈকতে পর্যটকদের আগমন নিষিদ্ধ থাকবে।

আরো সংবাদ