কক্সবাজারে জন-আকাঙ্ক্ষার বাংলাদেশের কর্মশালা - Coxsbazarkontho.com

বুধবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২০ ১৫ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০১-০৩ ২০:৩১:২৪

কক্সবাজারে জন-আকাঙ্ক্ষার বাংলাদেশের কর্মশালা

নিউজ ডেস্ক:  জামায়াতে ইসলামীর রাজনীতিকে যুগোপযোগী ও আধুনিকায়নের ডাক দিয়ে ‘জন-আকাঙ্ক্ষার বাংলাদেশ’ নামে নতুন রাজনৈতিক উদ্যোগের দুই দিনব্যাপী কেন্দ্রীয় কর্মশালা গতকাল শুক্রবার শুরু হয়েছে কক্সবাজারে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেছেন, দেশে নারী নেতৃত্বের দরকার রয়েছে। এ জন্য দলে নারীদের সম্পৃক্ততা বাড়ানোরও দরকার রয়েছে। আলোচকরা বলেন, ধর্ম ও মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে কোনোভাবেই রাজনীতির নামে ব্যবসা করা চলবে না। বিএনপি ও আওয়ামী লীগে গণতন্ত্র নেই বলেও তাঁরা দাবি করেন।
Advertisements

কক্সবাজারে সাগরপারের কলাতলী এলাকায় একটি হোটেলের সম্মেলনকক্ষে ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক ড. দিলারা চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন ফেনীর আলোচিত সাবেক জেলা প্রশাসক ও সাবেক সচিব এ এফ এম সোলায়মান চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে ড. দিলারা চৌধুরী বলেন, ‘বিএনপি ও আওয়ামী লীগ দেশে বংশানুক্রমিক রাজনীতি চালু করেছে। এ দলগুলোতে গণতন্ত্র নেই। দেশকে রক্ষা করতে হলে তরুণদের এগিয়ে আসতে হবে। যদিও তরুণদের চিন্তা ও চরিত্র ধ্বংস করতে রাজনৈতিক দলগুলোই দায়ী।’ তিনি জন-আকাঙ্ক্ষাকে নিজেদের মধ্যে গঠনমূলক সমালোচনা চালু করার পরামর্শ দেন। সেই সঙ্গে জন-আকাঙ্ক্ষায় নারীদের অংশগ্রহণ বাড়ানোর ওপরও তিনি গুরুত্বারোপ করেন।

অনুষ্ঠানে জন-আকাঙ্ক্ষার প্রধান সমন্বয়ক মজিবুর রহমান মনজু বলেন, ‘রাজনৈতিক দল গঠনের কার্যক্রমে আমাদের অনেক উপহাস ও প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে এগোতে হচ্ছে। পাশাপাশি দেশে-বিদেশে আমরা যথেষ্ট সাড়াও পাচ্ছি।’ কক্সবাজারের কর্মশালাকে একটি মাইলফলক হিসেবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এখান থেকেই আমাদের যথাযথভাবে সংগঠিত হওয়ার সূচনা হলো।’

Advertisements

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে জামায়াত নেতাদের পক্ষে মামলা পরিচালনাকারী আইনজীবী তাজুল ইসলাম বলেন, নতুন বাংলাদেশ গড়তে হলে সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক সুবিচার নিশ্চিত করার রাজনীতিকে মূলধারার রাজনীতি হিসেবে গ্রহণ করতে হবে।

লালমনিরহাট-১ আসনের জামায়াত ও ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী আবু হেনা এরশাদ হোসেন সাজু রংপুর অঞ্চলের এক দল সংগঠকসহ যোগ দেন কর্মশালায়। তিনি জামায়াত থেকে পদত্যাগ করে জন-আকাঙ্ক্ষায় যুক্ত হওয়ার কারণ ব্যখ্যা করেন। তিনি বলেন, ‘ধর্ম ও মুক্তিযুদ্ধকে ব্যবসার পণ্য বানানো খুবই দুঃখজনক।’

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন রবীন্দ্র বিজয় বড়ুয়া, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. এনায়েত উল্লাহ পাটোয়ারী, অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম, আনিসুর রহমান কচি, চট্টগ্রাম কলেজের সাবেক শিবির নেতা জাহাঙ্গীর কাসেম, জাহাঙ্গীর চৌধুরী, অ্যাডভোকেট গোলাম ফারুক খান কায়সার, সাংবাদিক শামসুল হক শারেক প্রমুখ।

আরো সংবাদ