কক্সবাজারে পর্যটকের ঢল : মানছে না স্বাস্থ্যবিধি - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১ ১১ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০২-২০ ১৩:৩৯:০৮

কক্সবাজারে পর্যটকের ঢল : মানছে না স্বাস্থ্যবিধি

কক্সবাজারের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে পর্যটকের ঢল
Spread the love

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার : বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও করোনার নতুন সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার বেড়েই চলেছে। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের সম্ভাব্যতা নিয়েও সঙ্কিত সরকার। করোনা সংক্রমণের ঝুঁকির মধ্যে সেখানে কেউই মানছে না স্বাস্থ্যবিধি। এমনকি এসব দেখারও যেনো কেউ নাই। মনে হয় যেন যেমন খুশি, তেমন সাজো সেখানকার নিয়মনীতি। কোনো কিছুতেই মানছে না স্বাস্থবিধি।

বছরের অন্য সময়ের তুলনায় কক্সবাজারের পর্যটনকেন্দ্রগুলোতে এই সময়টায় বেশ পরিপূর্ণ থাকে। বিশেষ করে সমুদ্র সৈকতগুলো পর্যটকদের কোলাহলে মুখরিত থাকে। তবে করোনা ভাইরাসের মহামারির কারণে এবার চিত্রটা ভিন্ন হওয়ার কথা ছিল। কলাতলী, সুগন্ধা, ইনানী এমন কোনও স্পট নেই যেখানে পর্যটকরা ভিড় করছেন না।

করোনায় সচেতনতার অংশ হিসেবে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হলেও তা মানা হচ্ছে না এসব পর্যটনকেন্দ্রে। কেউ মানছেন না সামাজিক দূরত্বও। এক কথায় কক্সবাজারের কোথাও স্বাস্থ্যবিধি মানার দৃশ্য দেখা যায়নি। প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে অসংখ্য মানুষ এসব পর্যটন কেন্দ্রে ভিড় করছেন। এসব জায়গায় পর্যটকদের জন্য গড়ে ওঠা হোটেল-মোটেলগুলোতেও নেই স্বাস্থ্যবিধির কোন নিয়ম।

বিশেষজ্ঞদের মতে, করোনা ভাইরাস প্রথম ধাপেই বড়সড় আতঙ্ক ছড়িয়ে দিয়ে গেছে। এরই মধ্যে দ্বিতীয় ধাপেও বহু মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন। দ্বিতীয় জোয়ারের মাঝেই কক্সবাজারসহ পর্যটন কেন্দ্রগুলো যে হারে জনসমাগম হচ্ছে তাতে ভয়াবহ রূপ ধারণ করতে পারে।

দেখা যায়, শুক্রবার সকাল থেকেই কক্সবাজারের কলাতলী সমুদ্র সৈকতে কয়েক লাখ পর্যটক। সমুদ্র সৈকতে বেড়াতে আসা এসব পর্যটকের অনেকের মুখেই মাস্ক নেই। কারও কারও মাস্ক থাকলেও তা মুখের বদলে গলার দিকে নামানো। তাছাড়া একই পরিবার কিংবা বন্ধুদের নিয়ে বেড়াতে আসা পর্যটকরা দূরত্ব বজায় ছাড়াই সৈকতের একপ্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ঘুরে বেড়াচ্ছেন।

এতে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে অনেকাংশে। ভাইরাস সংক্রমণ রোধে সংশ্লিষ্টদের সচেতনতামূলক নির্দেশনা থাকলেও বাস্তবে কেউ মানছেন না। আগত পর্যটকরা সমুদ্র সৈকতের পাশাপাশি দরিয়ানগর, হিমছড়ি ঝর্ণা, ইনানীর পাথুরে সৈকত, রামু বৌদ্ধ বিহার, মহেশখালী আদিনাথ মন্দিরসহ জেলার পর্যটন স্পটগুলোতেও দেদারছে ঘুরে বেড়াচ্ছেন।

কক্সবাজারের হোটেল-মোটেল ও গেস্টহাউস মালিক সমিতির তথ্যানুযায়ী, কক্সবাজারের প্রায় সাড়ে ৪ শতাধিক হোটেল-মোটেল, রিসোর্ট ও কটেজে রয়েছে। যেখানে ২ লক্ষাধিক পর্যটক অবস্থান করতে পারেন। এখন টানা ৩ দিনের ছুটিতে ৫ লক্ষাধিক পর্যটক কক্সবাজারে অবস্থান করছেন। শতভাগ বুকিংয়ে জমজমাট ব্যবসা করছে তারকা হোটেলগুলো। নামকরা হোটেল ছাড়া বেশির ভাগ হোটেলে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না বলে অভিযোগ রয়েছে।

কক্সবাজার বীচ ম্যানেজমেন্ট কমিটি সূত্র জানায়, আগত পর্যটকদের সেবা নিশ্চিতে সর্তক অবস্থায় দায়িত্ব পালন করছে ট্যুরিস্ট ও জেলা পুলিশ। স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে প্রতিনিয়ত প্রচার করা হচ্ছে। সাপ্তাহিক ছুটিতে পর্যটক সমাগম বেড়ে যাওয়ায় মোতায়েন রাখা হয় অতিরিক্ত পুলিশও। পর্যটক হয়রানি রোধে পর্যটন স্পটগুলোকে সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে।

ব্যস্ত শহর কক্সবাজারে সাগরের উত্তাল ঢেউয়ের সাথে মানুষের ঢল। সবাই উচ্ছ্বাস আর উল্লাসে প্রাণের সঞ্চার খুঁজতে ব্যস্ত। কক্সবাজার এসে সমুদ্রের সুরে তাল মিলিয়ে ভুলে গেছে করোনা আতংক। শহরের অলিগলিসহ বিভিন্ন পয়েন্টে মানুষ আর মানুষ। উচ্ছ্বাসের কাছে যেনো পরাজিত করোনা। হোটেলে ঠাঁই না পেয়ে অনেকে র্দুভোগে পড়েছেন। শুক্রবার সকাল থেকে জেলার পর্যটন স্পটগুলোতে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন ভ্রমণ পিপাসুরা।

এদিকে সৈকতে পর্যটকের ভিড় বাড়ায়, বাড়ছে করোনার ঝুঁকিও। পর্যটকদের বড় অংশই মানছেন না কোনো নির্দেশনা। করোনা মহামারিতে হাফিয়ে ওঠা অনেকেই এখন কক্সবাজারে। ভিড় বাড়ছে সৈকতে, সেই সাথে বাড়ছে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি। সচেতন না হলে আবারও বড় সংকটের আশংকা প্রশাসনের।

সুগন্ধা পয়েন্টের প্রবেশ মুখে বড় করে লেখা মাস্ক ছাড়া প্রবেশ নিষেধ। সাইবোর্ডে আছে নানা নির্দেশনা, কিন্তু নির্দেশনা মানছেন না অনেকেই। এ বিষয়ে প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকে সারাদিনই সতর্ক করা হচ্ছে। তারপরও কারো কোনো বিকার নেই। ঝুঁকি জেনেও মাস্ক না পরাতে আছে নানা অজুহাতও।

ট্যুরিস্ট পুলিশ সচেতন করার চেষ্টা করলেও কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না। এ অবস্থায় স্বাস্থ্যবিধি মানাতে আরও কঠোর হওয়ার কথা ভাবছে তারা।

এনিয়ে ট্যুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজার জোনের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জিল্লুর রহমান জানান, আমাদের কাজ হচ্ছে তাদেরকে সচেতন করা, তাদেরকে বলা। এরপরেও যদি না হয় তাহলে সেগুলোতে আইনগত ব্যবস্থায় এগুতে হবে। এ বিষয়টাতে আমরা আরেকটু চেষ্টা করে দেখি কতটুকু করতে পারি, যদি না করতে পারি তখন আমরা আইনে যাবই।

আরো সংবাদ