কক্সবাজারে প্লট বাতিল হলেও বহালে অবৈধ স্থাপনা - Coxsbazarkontho.com

শনিবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২০ ১১ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০১৯-১২-১১ ০৯:৪১:৪১

কক্সবাজারে প্লট বাতিল হলেও বহালে অবৈধ স্থাপনা

নিজস্ব প্রতিবেদক : কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের সুগন্ধা পয়েন্টের ‘হাড়ি রেস্টুরেন্ট’ ৬ বার উচ্ছেদ করার পরও জেলা প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে আবারো গড়ে তুলেছে স্থাপনা। বাতিলকৃত প্লটে হাড়ির মতোই রয়েছে আরও একাধিক অবৈধ স্থাপনা। কিন্তু কয়েক দফা উচ্ছেদের পরও বহালে থেকে যায় এসব প্রতিষ্ঠান। সর্বশেষ জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্লটগুলো বাতিল বলে সাইনবোর্ড দেয়া হয়। এরপরও এসব অবৈধ স্থাপনা রয়ে গেছে বহাল তবীয়তে।

জেলা প্রশাসনের একাধিক সুত্র বলছে, হাড়ি ও তরঙ্গ রেস্টুরেন্টকে একাধিকবার উচ্ছেদের পরও কোন এক অদৃশ্য শক্তির প্রভাবে আবারো স্থাপনা তৈরী করে এসব অবৈধ প্রতিষ্ঠানের মালিকরা। সমুদ্র সৈকতের সুগন্ধা পয়েন্টের এ দুইটি প্রতিষ্ঠান ছাড়াও আরও একাধিক স্থাপনা রয়ে গেছে বহাল তবীয়তে। কিছু অসাধু রাজনৈতিক নেতা ও প্রশাসনের কিছু কর্মকর্তা মিলে এমন কাজ করে যাচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

Advertisements

এসব প্রতিষ্ঠানের সামনে ঝুলানো সাইনবোর্ডে লেখা রয়েছে, ১০০ একর জমির মধ্যে ১১-১২ নং প্লটগুলো বাতিল বলে সাইনবোর্ড দেয় জেলা প্রশাসন। সেখানে একটি বন্দোবস্ত মামলা কথা বলা হয় (যার নং-০২/২০০২-০৩)। কিন্তু রহস্যজনক কারণে ওই দুইটি প্লটে থাকা হাড়ি ও তরঙ্গ রেস্টুরেন্টসহ একাধিক প্রতিষ্ঠান বহাল থেকে যায়।
পাশের লোকজনের অভিযোগ, এসব প্রতিষ্ঠান বার বার প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে স্থাপনা নির্মাণ করে যাচ্ছে। যার ফলে ৬ বারের বেশী উচ্ছেদ করার পরও হাড়ি রেস্টুরেন্ট এখনো বহাল তবীয়তে। স্থাপনা করতে একাধিক ঝাউগাছ কেটে নিয়েছে তারা। যা সম্পূর্ণ অবৈধ ও ক্ষমতার অপব্যবহার করা হয়েছে।

এদিকে, পরিবেশগত ছাড়পত্র ছাড়া কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা ধ্বংস ও অপসারণের নির্দেশ কেন দেয়া হবে না-তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

Advertisements

বাংলাদেশ পরিবেশবিদ আইনজীবী সমিতির এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে সোমবার (৯ ডিসেম্বর) হাইকোর্টের বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ রুল জারি করে।

একই সঙ্গে কক্সবাজারের ১২০ কিলোমিটার সমুদ্র সৈকতের মধ্যে থাকা অবৈধ দখল, নির্মাণ, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক দূষণ, পৌরবর্জ্য ও ওয়ান টাইম ইউজ প্লাস্টিক যত্রতত্র ফেলা বন্ধ করতে বিবাদীদের ব্যর্থতাকে কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, রুলে তাও জানতে চেয়েছেন আদালত।

এছাড়াও ২০১৮ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারির টাস্কফোর্সের সভায় কক্সবাজারের সংরক্ষিত এলাকায় ১০তলা সার্কিট হাউজ ভবন নির্মাণের সিদ্ধান্ত কেন স্বেচ্ছাচারী ও বেআইনি ঘোষণা করা হবে না এবং পরিবেশগত ছাড়পত্র ও সুয়ারেজ প্লান্ট ছাড়া কক্সবাজার পৌর এলাকায় হোটেল-মোটেল-রেস্তোরাঁ মার্কেট ও বাণিজ্যিক কাঠামো নির্মাণ এবং কক্সবাজার পৌরসভায় বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণের নির্দেশ কেন দেয়া হবে না, তা জানতেও রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর এসেছে এসব তথ্য।

এদিকে সুগন্ধা পয়েন্টের হাড়ি রেস্টুরেন্টের মালিক লিয়াকত আলীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সাইনবোর্ড দিয়েছে, প্লট বাতিল হয়েছে সেটিও শুনেছি। কিসের ভিত্তিতে এখনো স্থাপনা গড়ে তুলেছেন বা বহাল তবীয়তে আছেন এমন প্রশ্নের উত্তর লিয়াকত আলী দিতে পারেননি।

অপর রেস্টুরেন্ট তরঙ্গের ব্যবস্থাপক মো. মহিউদ্দিনের মুঠোফোনে একাধিকবার কল দিলেও সংযোগ পাওয়া যায়নি।

এবিষয়ে জানতে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আশরাফুল আবছারের মুঠোফোনে একাধিকবার চেষ্টা করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।তবে সদর সহকারী কমিশনার (ভুমি) শাহরিয়ার মোক্তার এ প্রতিবেদককে বলেন, আমরা প্লট বাতিল বলে ঘোষণা করেছি। কিন্তু কিসের ভিত্তিতে আছে তা খতিয়ে দেখে ব্যবস্তা নেবো।

আরো সংবাদ