কক্সবাজারে ভূঁইফোড় সাংবাদিকদের দৌরাত্ব্য - কক্সবাজার কন্ঠ । কক্সবাজারের মুখপত্র

শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০ ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

প্রকাশ :  ২০১৯-১১-০৫ ২২:১১:১২

কক্সবাজারে ভূঁইফোড় সাংবাদিকদের দৌরাত্ব্য

বিশেষ প্রতিবেদক: কক্সবাজারে “ভূঁয়া আর নামধারী” সাংবাদিকদের দৌরাত্ব্যে প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে উঠেছে সাংবাদিকতা পেশাটি; যারা জাতীয় ও আঞ্চলিক পর্যায়ের বিভিন্ন অখ্যাত দৈনিক ও অনলাইনের পাশাপাশি স্থানীয় পর্যায়ের ভূঁইফোড় অনলাইন নিউজপোর্টালের প্রতিনিধিত্বের পরিচয়ে ইয়াবা ব্যবসাসহ নানা অপরাধে জড়িত।

এসব কথিত সাংবাদিক নামধারীদের মধ্যে অনেকে আবার ব্যক্তিগতভাবে একেকটি অনলাইন নিউজপোর্টালেরও সম্পাদক ও প্রকাশক।

এদিকে সরকারের চলমান শুদ্ধি অভিযানের কারণে কক্সবাজারে সম্প্রতি নানা অপরাধে জড়িত বা বিতর্কিত ব্যক্তিদের মধ্যে কাউকে কাউকে সাংবাদিক পরিচয় দেয়ার হিড়িক লক্ষ্য করা গেছে।

ভূঁইফোড় এসব সাংবাদিকদের মধ্যে কেউ কেউ ইয়াবা ব্যবসাসহ নানা অপরাধে জড়িত থাকলেও অনেকের দৌরাত্ব্য সরকারি বিভিন্ন দপ্তরে। যা কক্সবাজার শহরসহ উপজেলা সমূহের প্রতিদিনকার চিত্র।

অন্যদিকে কক্সবাজার শহরে ‘প্রেস ও গণমাধ্যমের’ নাম লিখা নম্বর প্লেটের বিভিন্ন যানবাহন দৌঁড়ঝাপ চোখে পড়ার মত; যেসব যানবাহনের অধিকাংশই আবার নিবন্ধনও নেই।

এসব অপরাধীদের কারণে সাংবাদিকতার মত মহান পেশাটিও বিতর্কিত হওয়ার পাশাপাশি পেশাধার সাংবাদিকরাও প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে পড়েছেন।

এ নিয়ে কক্সবাজারের সাংবাদিক মহলের প্রতিনিধি সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ভূঁইফোড় আর নামধারী কথিত সাংবাদিকদের সর্বত্রই দৌরাত্ব্যের বিষয়টি খুবই উদ্বেগজনক। তাদের নানা অপকর্মের কারণে মহান এ পেশাটি আজ প্রশ্নবিদ্ধ।

Advertisements

এর থেকে উত্তোরণে সংশ্লিষ্ট সকলের সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণ জরুরী বলে মন্তব্য করেন সাংবাদিক প্রতিনিধিরা।

দেশে প্রতিদিন জাতীয়, আঞ্চলিক ও স্থানীয় অসংখ্য দৈনিক পত্রিকা প্রকাশিত, বেশকিছু অনলাইন নিউজপোর্টাল এবং ৩০ টির বেশী স্যাটেলাইট চ্যানেল সম্প্রচারিত হচ্ছে। এগুলোর অধিকাংশই মূলধারার সাংবাদিকতার প্রতিনিধিত্ব করছে।

এসবের পাশাপাশি প্রতিদিনই প্রকাশিত হচ্ছে অখ্যাত বেশকিছু জাতীয়, আঞ্চলিক ও স্থানীয় পত্রিকা। এছাড়া সম্প্রচারিত হচ্ছে অসংখ্য অনলাইন নিউজপোর্টাল এবং অনলাইন ভিত্তিক ইউটিউব টিভি চ্যানেল। মূলত: এসব গণমাধ্যমের কর্মিদের মধ্যে অধিকাংশই ভূঁইফোড় সাংবাদিক। যারা সাংবাদিকতা পরিচয়ের আড়ালে জড়িয়ে পড়ছে নানা অপরাধকর্মে। এদের দৌরাত্ব্যের কারণেই মূলত: সাংবাদিকতার মত মহান পেশাটি আজ প্রশ্নবিদ্ধ।

এমনও দেখা গেছে, সাংবাদিক পরিচয় দানকারি এসব ভূঁইফোড়দের কেউ কেউ নিজেরাই একেকটি অনলাইন নিউজপোর্টাল বা ইউটিউব চ্যানেলের মালিক। এসব সংবাদ মাধ্যমে তারাই আবার নিজেরা নিয়োগ দিচ্ছে যথেচ্ছা কর্মি।

এ ধরণের কথিত সাংবাদিকরা স্ব-স্ব গণমাধ্যমের লগো হাতে নিয়ে থানা, আদালত, ট্রফিক অফিস ও সরকারি-বেসরকারি দপ্তরে আনাগোনা চোখে পড়ার মত। সাংবাদিক পরিচয়ে হেনতেন কাজ নেই তারা করে না। তাদের কারো কারো সঙ্গে গভীর সখ্যতা রয়েছে চিহ্নিত ভূমিদস্যূ, মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসীদের।

সাম্প্রতিক সময়ে সরকারের চলমান শুদ্ধি অভিযানের কারণে অনেকটা কোনঠাসা ভূমিদস্যূ ও মাদক ব্যবসায়িরাসহ নানা অপরাধ সংশ্লিষ্টরা। এদের মধ্যে কেউ কেউ এসব অপরাধ আড়াল করতে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করছে ‘সাংবাদিকতা’ পেশাটিকে। তাদের অনেকে সাম্প্রতিক সময়ে সংগ্রহ করেছে ভূঁইফোড় সংবাদ মাধ্যমের পরিচয়পত্র। তারা সাংবাদিকতার জন্য নয়, বেগতিক অবস্থায় পার পেতে ‘সাংবাদিকতার’ পরিচয়টি ব্যবহার করার উদ্দ্যেশেই মূলত: এসব সংবাদ মাধ্যমের পরিচয়পত্র সংগ্রহ করে রেখেছে।

কক্সবাজার শহরের অলি-গলিসহ বিভিন্ন এলাকায় ‘প্রেস ও গণমাধ্যমের’ নাম লেখা নম্বর প্লেটের মোটর সাইকেলসহ যানবাহন চলাচল চোখে পড়ার মত। মূলত: ভূঁইফোড় ও নামধারীদের অধিকাংশই ব্যবহার করে চলছে এসব যানবাহন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অখ্যাত পত্রিকা ও অন্য গণমাধ্যমগুলোতে যাদের নিয়োগ দেয়া হচ্ছে তাতে সাংবাদিকতার কোন ধরণের মানদন্ডই মানা হচ্ছে না। এ সুযোগে এসব গণমাধ্যমে কর্মি হিসেবে পাচ্ছে সরকারি-বেসরকারি অফিস-দপ্তর ও থানার দালাল, পানের দোকানদার, হোটেল বয়, ছিঁচকে চোর, সন্ত্রাসী, ছিনতাইকারি ও মাদক ব্যবসায়ি আর রাজনৈতিক দলের কতিপয় পাতি নেতাসহ নানা অপরাধ সংশ্লিষ্টরা।

ভূঁইফোড় আর নামধারীদের দৌরাত্ব্যের কারণে সাংবাদিকতা পেশাটি সম্পর্কে মানুষের কাছে নেতিবাচক মনোভাব সৃষ্টি হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন সংস্কৃতি কর্মি এডভোকেট রিদুয়ান আলী।

রিদুয়ান বলেন, একটি রাষ্ট্র কাঠামোর অন্যতম স্তম্ভ সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতা। গণতান্ত্রিক একটি রাষ্ট্রের চালিকা শক্তিও। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে কক্সবাজারে কিছু পত্রিকা ও অন্য গণমাধ্যমে কোন বাছ-বিচার ছাড়াই সাংবাদিক নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

“ এতে সাংবাদিকতার মত মহান এ পেশাটিতে অ-পেশাদার লোকজনের অনুপ্রবেশ ঘটেছে। যারা এ পেশাটির পরিচয় ব্যবহার করে নানা অপরাধের জড়িয়ে পড়েছে। তাদের দৌরাত্ব্যের কাছে অনেকটা অসহায় পেশাদার সাংবাদিকরাও। ”

ভূঁইফোড় ও নামধারীদের দৌরাত্ব্যের কারণে সমাজের সর্বমহলে পেশাদার সাংবাদিকদের মান-মর্যদা আজ সংকটের মুখোমুখি বলেও মন্তব্য করেন সংস্কৃতি কর্মি রিদুয়ান।

কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) মো. ফরিদুল আলম বলেন, সাংবাদিকতা পেশায় আজ ‘নকলের ভিড়ে আসল পরিচয়’ পাওয়াটা দিন দিন কঠিন হয়ে পড়ছে। পেশাটিতে দিনান্তর ভূঁইফোড়দের দৌরাত্ব্য বাড়ছে। এটি খুবই উদ্বেগজনক।

তিনি বলেন,“ কোন দৈনিক পত্রিকা বা গণমাধ্যমে কর্মি নিয়োগের ক্ষেত্রে কিছু মানদন্ড বজায় রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু কক্সবাজারে এর ব্যতয় ঘটছে। এতে সাংবাদিকতার পেশাদারিত্ব বজায় রাখা যেমন দুরুহ হচ্ছে; তেমনি মহান এ পেশাটিতে অনৈতিকতা চর্চা এবং অ-পেশাদার লোকজনের অনুপ্রবেশেরও সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে। ”

কক্সবাজারে এ দৈন্যদশা থেকে উত্তোরণে সাংবাদিক সংগঠনের প্রতিনিধি এবং প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কর্তাব্যক্তিদের সমন্বিত উদ্যোগের মাধ্যমে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়ার পরামর্শ দেন সরকারি এ আইন কর্মকর্তা ফরিদুল।

এ ব্যাপারে কক্সবাজার প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের বলেন, ভূঁইফোড় ও নামধারী সাংবাদিকদের দৌরাত্ব্যের বিষয়টি খুবই উদ্বেগজনক। এদের কারণে পেশাদার সাংবাদিকতা আজ প্রশ্নবিদ্ধ। এতে সাংবাদিকতা পেশাটির দিন দিন মান-মর্যদা দিন দিন ক্ষুন্ন হচ্ছে।

Advertisements

এ সাংবাদিক নেতা বলেন, “ কক্সবাজারের দীর্ঘদিন ধরে সাংবাদিকতা পেশায় জড়িতদের মধ্যে বিষয়টি উত্তোরণের পথ খুঁজতে আলাপ-অলোচনা হচ্ছে। কিছু বিতর্কিত লোকজনের কারণে প্রশ্নবিদ্ধ মহান এ পেশাটিকে এভাবে আর চলতে দেয়া উচিত নয়। ”

সংশ্লিষ্টদের সমন্বয়ে অপ-সাংবাদিকতা রোধে পেশাদার সাংবাদিকদের তালিকা তৈরী করে প্রশাসনের সহযোগীতা একটি কার্যকর উদ্যোগ নেয়া হবে বলেও জানান প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের।

বিষয়টি কক্সবাজারের পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেনের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে বলেন, গণমাধ্যমের কর্মি পরিচয়ে যে কেউ তথ্য জানতে পারে। এতে কে বা কারা ভুূঁইফোড় ও নামধারী তা পুলিশের পক্ষে নিশ্চিত হওয়া কঠিন।

“ যদি গণমাধ্যম ও প্রশাসন সংশ্লিষ্টরা কক্সবাজারের কর্মরত পেশাদার সাংবাদিকদের কাছ থেকে একটি তালিকা পাওয়া সম্ভব হত তাহলে অপ-সাংবাদিকদের পরিচয় নিশ্চিত করা যেত। ”

তবে সাংবাদিক পরিচয়ে চলাচলকারি নম্বর ও নিবন্ধন বিহীন যানবাহনগুলো জব্দ করতে দ্রুতসময়ে অভিযান চালানো হবে জানিয়ে এসপি মাসুদ বলেন, “ আইন ও নিয়ম না মেনে চলাচলকারি যে কোন ধরণের যানবাহন জব্দ করা হবে। এক্ষেত্রে সাংবাদিকতা পরিচয়টি অবান্তর। অনুমোদনবিহীন যে কোন যানবাহনই অভিযানে জব্দ করা হবে। Ref.coxsbazartimes.com

আরো সংবাদ