কক্সবাজারে শিশু ধর্ষণের শিকার : ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১ ৯ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-১০-০৬ ০৮:৩৯:০২

কক্সবাজারে শিশু ধর্ষণের শিকার : ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা

কক্সবাজারে শিশু ধর্ষণের শিকার ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা

নিউজ ডেস্ক :  কক্সবাজার সদর উপজেলার খুরুশকুল রোডে মাদ্রাসা পড়ুয়া এক শিশু শিক্ষার্থীকে দোকানদার কর্তৃক ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় শিশুটির পরিবারকে জিম্মি করে ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে একটি প্রভাবশালী মহল।

গত ২৩ সেপ্টেম্বর কক্সবাজার শহরের খুরুশকুল রোডে অবস্থিত শহীদ তিতুমীর ইনস্টিটিউটের কম্পাউন্ডস্থ এক দোকানে এ ঘটনাটি ঘটেছে বলে স্থানীয় নানা সূত্র জানিয়েছে। ঘটনায় অভিযুক্ত দোকানদার হাসান (৫৫) শহীদ তিতুমীর ইনস্টিটিউটের প্রতিষ্টাতা ও পরিচালক শফিকুর রহমান ওরফে শফিক মাষ্টারের ভাই।

ধর্ষণের শিকার মেয়েটি শহীদ তিতুমীর ইনস্টিটিউটের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান হযরত ফাতেমাতুজ জুহুরা আদর্শ নূরানী হিফয মাদ্রাসার শিশু শ্রেণীর ছাত্রী। তার বয়স আনুমানিক ৬ থেকে ৭ বছর।
ছাত্রীটির পরিবার কক্সবাজার সদরের খুরুশকুল ইউনিয়নের খুলিয়া পাড়ায় ভাড়া বাসায় থাকে। ধর্ষিত শিশুটির পিতা একটি প্রতিষ্টানে চাকুরি করেন। এদিকে ঘটনা জানাজানির পর থেকে অভিযুক্ত হাসান দোকান বন্ধ রেখে আত্মগোপনে চলে যায়।

স্থানীয় নানা সূত্র নিশ্চিত করেছে, ওই শিশু ছাত্রী হযরত ফাতেমাতুজ জুহুরা আদর্শ নূরানী হিফয মাদ্রাসায় পড়তে আসলে গত ২০ সেপ্টেম্বর ফুসলিয়ে দোকানের ভিতরে নিয়ে যায় স্থানীয় দোকানদার হাসান। পরে শিশু ছাত্রীকে সে ধর্ষণ করে। এরপর আরও কয়েকদিন একই কায়দায় সে ধর্ষণ করে ওই ছাত্রীকে।

এরই ধারাবাহিকতায় গত ২৩ সেপ্টেম্বর মাদ্রাসা পড়ুয়া ওই শিশু ছাত্রীকে ফুসলিয়ে দোকানে নিয়ে ধর্ষণ করে দোকানদার হাসান। এক পর্যায়ে ছাত্রীটির আত্ম-চিৎকার আর কান্নার শব্দ শুনে স্থানীয় লোকজন ওই শিশুটিকে উদ্ধার করে।

স্থানীয়রা জানিয়েছে, পরে ঘটনার খবর পেয়ে শহীদ তিতুমীর ইনস্টিটিউটের পরিচালক শফিকুর রহমান ওরফে শফিক মাষ্টার ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ছাত্রীটিকে উদ্ধার করে কক্সবাজারের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে ছাত্রীটিকে ৩/৪ দিন চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

একদিকে ঘটনার ব্যাপারে কোন ধরণের আইনি ব্যবস্থা না নিতে শফিক মাষ্টারসহ একটি প্রভাবশালী মহল ছাত্রীটির পরিবারকে জিম্মি করে ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে বলে জানিয়েছে বিশ্বস্থ সূত্রটি।

এমন কি প্রভাবশালী মহলটি ছাত্রটির পরিবারকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে কয়েকজন সাবেক ও বর্তমান জনপ্রতিনিধিকেও ব্যবহার করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

সূত্রটি জানিয়েছে, লম্পট হাসানের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ নতুন নয়। সে যুগ যুগ ধরে এ অপরাধ করে আসছে। ওই মাদ্রাসা ছাত্রী ছাড়াও শহীদ তিতুমীর ইনস্টিটিউট এবং হযরত ফাতেমাতুজ জুহুরা আদর্শ নূরানী হিফয মাদ্রাসার আরও কয়েকজন শিশু ছাত্রীকে হাসান ফুসলিয়ে ধর্ষণ করেছে।

ঘটনার ব্যাপারে খুরুশকুল ইউপি চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন বলেন, খুরুশকুলের খুলিয়া পাড়ায় জনৈক ব্যক্তির ভাড়া বাসায় অবস্থানকারি একটি পরিবারের মাদ্রাসা পড়ুয়া এক শিশু শিক্ষার্থী ধর্ষিত হওয়ার খবর শুনেছি। ধর্ষিত শিশুর পরিবারের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা চলছে।

তবে ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার জন্য খুরুশকুলের সাবেক এক জনপ্রতিনিধি ধর্ষক চক্রের লোকজনের হয়ে নানা মহলে অপচেষ্টা চালাচ্ছে বলেও জানান এ ইউপি চেয়ারম্যান।

এ ব্যাপারে শহীদ তিতুমীর ইনস্টিটিউটের পরিচালক শফিকুর রহমান বলেন, এ ধরণের কোন ঘটনা ঘটেনি। এটা তার প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার ও সুনাম ক্ষুন্নের জন্য অপপ্রচার। তিনি আরও জানান, মূলত, শহীদ তিতুমীর ইনস্টিটিউটের মালিকানাধীন জমি ও কবরস্থানের জায়গা নিয়ে কিছু ব্যক্তির সঙ্গে বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের লোকজন এ ধরণের মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছে বলে জানান মাষ্টার শফিকুর।

তবে হযরত ফাতেমাতুজ জুহুরা আদর্শ নূরানী হিফয মাদ্রাসা শহীদ তিতুমীর ইনস্টিটিউটের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান বলে স্বীকার করলেও মাদ্রাসাটি পরিচালনা সাথে তিনি জড়িত নন বলে জানান।

এ ঘটনার ব্যাপারে কক্সবাজার সদর থানার ওসি মুনীর উল গীয়াস বলেন, মাদ্রাসা পড়ুয়া এক শিশু শিক্ষার্থী ধর্ষিত হওয়ার খবরটি তিনি মৌখিকভাবে নানা মাধ্যমে জেনেছে। ঘটনার ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।সূত্র- কক্সবাজার টাইমস ডট কম।

 

আরো সংবাদ