কক্সবাজারে ৩ চিকিৎসকের বিরুদ্ধে মামলা - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ ৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সোমবার

প্রকাশ :  ২০২০-০৯-১৫ ১৪:৩৫:৪৮

কক্সবাজারে ৩ চিকিৎসকের বিরুদ্ধে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক : কক্সবাজার সী সাইড হাসপিটালের তিন চিকিৎসকের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেছেন তৌহিদুল ইসলাম খোকন নামের এক ভুক্তভোগী। ১৫ সেপ্টেম্বর কক্সবাজারের সিনিয়র জুড়িসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না ফারাহার আদালতে মামলাটি দায়ের করা হয়।
এতে প্রধান আসামী করা হয়েছে আসাদুজাজ্জামানকে। এছাড়াও ডা. আনিসা, রফিকুল আসামী করা হয়। প্রসূতি রোগীকে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে রেখে ৫০ হাজার টাকা দাবি করে না পেয়ে সিজার না করার অভিযোগে মামলাটি দায়ের করা হয়। তবে পরে অন্য হাসপাতালে ওই মহিলার নরমাল সন্তান ডেলিভারি হয় বলে বাদি এজাহারে উল্লেখ করেছে।

বাদি এজাহারে জানান, তার স্ত্রী ইফতেসাম ইসলাম গর্ভবতী হওয়ার পর থেকে ডা. আসাদুজ্জামানের অধীনের পর্যবেক্ষণে ছিলেন। এর মধ্যে সন্তান ডেলিভারি সময় ঘনিয়ে এলে পরামর্শের জন্য গেলে ডা. আসাদুজ্জামান রোগীকে সী-সাইড হাসপাতালে ভর্তি করাতে বলেন। গত ৭ সেপ্টেম্বর ৫ হাজার টাকা অগ্রিম দিয়ে রোগীকে সী-সাইড হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। সেখানে রোগী ডা. আনিসার তত্ত্বাবধানে ছিলো। এর মধ্যে প্রসব বেদনা শুরু হলে রাত সাড়ে ৯টার দিকে ডা. আসাদুজ্জামান হাসপাতালে আসেন। তিনি এসেই সিজার করাতে হবে বলে রোগীর স্বামীকে জানিয়ে দেন। তিনি, ডা. আনিসা ও রফিকুল ইসলাম সিজার করার কথা জানান। কিন্তু সিজারের জন্য দাবি করে বসেন ৫০ হাজার টাকা। কিন্তু সামর্থ্য না থাকায় ওই চিকিৎসকদের নরমাল ডেলিভারি করার অনুরোধ করা হয়। কিন্তু তারা (চিকিৎসকেরা) কোনো কথা আমলে না নিয়ে ৫০ হাজার টাকা নেয়ার জন্য অটল থাকে। দীর্ঘ সময় অনুনয়বিনয় করেও তাদের মন গলাতে পারেনি। অর্থ সংকটের কারণে শেষে রাত ১২টার দিকে বাধ্য হয়ে রোগীকে ডুলাহাজারা মালুমঘাট খ্রিস্টান মেমোরিয়াল হাসপাতালে নিয়ে পরিবার। সেখানে পরদিন সকাল ১১টার দিকে ওই নরমাল ডেলিভারি হয়। তবে সময় মতো ডেলিভারি না হওয়ায় মা ও নবজাতকের শারীরিক ক্ষতি হয় বলে জানান সেখানকার চিকিৎসকেরা।
বাদির আইনজীবি সাইফুল্লাহ মনসুর বলেন, অহেতুক সিজার করার চেষ্টা, সিজারের জন্য মোটা অংকের টাকা দাবি এবং সময় মতো ডেলিভারি না হওয়ায় প্রসূতি ও সন্তানের শারীরিক ক্ষতি হয়েছে। এসব কর্মকান্ড আইনের বিধি মতে অপরাধ। তাই সে ধারা উল্লেখ করে আমার মক্কেল মামলাটি দায়ের করেছেন। মামলাটি তদন্তের জন্য সিভিল সার্জনকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

আরো সংবাদ