কক্সবাজারে ৪ অক্টোবর থেকে ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০ ১৩ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বৃহস্পতিবার

প্রকাশ :  ২০২০-১০-০১ ০৮:৪৩:৫৩

কক্সবাজারে ৪ অক্টোবর থেকে ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন

নিজস্ব প্রতিবেদক :  কক্সবাজারে ৪ লাখ ৭৯ হাজার ৩৫৩ জন শিশুকে ভিটামিন এ প্লাস ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। ৬-১১ মাস বয়সী শিশু ৬২ হাজার ৪২৮ জন এবং ১২-৫৯ মাস বয়সী শিশুর সংখ্যা ৪ লক্ষ ১৬ হাজার ৯২৫ জন। কক্সবাজারের ৮টি উপজেলা, পৃথকভাবে ইপিআই কাজ পরিচালিত হবে যা একটি পৌরসভা, ৭২ টি ইউনিয়ন ও ২১৬টি ওয়ার্ডে। ৪-১৭ অক্টোবর একযোগে ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন পরিচালিত হবে। ৬-১১ মাস বয়সী শিশু ‘নীল রঙ’ এবং ১২-৫৯ মাস বয়সী শিশু ‘লাল রঙ’ এর ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। ৪ মাস আগে যারা ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খেয়েছে এবং মারাত্মক অসুস্থ এমন কোন শিশুকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে না। ১ অক্টোবর দুপুরে জেলা ইপিআই স্টোর সম্মেলন কক্ষে সাংবাদিক অবহিতকরণ সভায় এসব তথ্য জানান সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার ডাক্তার সৌনম বড়ুয়া। অবহিতকরণ সভায় সভাপতিত্ব করেন ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন ডাক্তার মোহাম্মদ মহিউদ্দিন আলমগীর। তিনি বলেন, টিকা নিতে যাওয়ার বেলায় অবশ্যই সবাই যেনো মাস্ক ব্যবহার করেন। স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে সংশ্লিষ্টদের বিশেষভাবে তিনি অনুরোধ জানান।
জেলা স্বাস্থ্য তত্ত্বাবধায়ক সিরাজুল ইসলাম সবুজের সঞ্চালনায় সাংবাদিক অবহিতকরণ সভায় মাল্টিমিডিয়া প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে বিভিন্ন তথ্য উপস্থাপন করেন সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার সৌনম বড়ুয়া। এতে জানানো হয়, অন্ধত্বের হার কমানো ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করার লক্ষ্যে প্রতি বছর জাতীয় ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ভিটামিন এ প্লাস ক্যাপসুল সাধারণত শিশুর রাতকানা রোগ প্রতিরোধ করে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং শিশুর মৃত্যুর ঝুঁকি কমাতে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খুবই কার্যকর। ভিটামিন এ ঘাটতি পূরণের মাধ্যমে শিশু মৃত্যুর হার ২৩ শতাংশ পর্যন্ত কমানো সম্ভব। মারাত্মক অসুস্থ ছাড়া ৫ থেকে ৫৯ মাস বয়সী যে কোনো শিশু ভিটামিন এ ক্যাপসুল খেতে পারবে। শিশুদের ভরপেটে ক্যাপসুল খাওয়ানোর পরামর্শ দেয়া হয়। কক্সবাজার জেলায় স্থায়ী ৯টি, অস্থায়ী ১৮৪০টি, ভ্রাম্যমান ২৭টি ও অতিরিক্ত ৭৫ টিসহ মোট ১৯৫১ টিকাদান কেন্দ্রে ২০৮ জন স্বাস্থ্য সহকারী রয়েছে। এছাড়াও ১৭৩ জন পরিবার কল্যাণ সহকারী, ৫৪০৭ জন স্বেচ্ছাসেবক এবং ২১৬ জন তত্ত্বাবধায়ক নিয়োজিত রয়েছে। করোনা আক্রান্ত হলেও শিশুকে ভিটামিন এ প্লাস ক্যাপসুল খাওয়ানো যাবে। স্বাস্থ্যকর্মীর পরিবর্তে মা কিংবা অভিভাবক চাইলে ক্যাম্পে ক্যাপসুল খাওয়াতে পারবে। উল্লেখ্য, জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের আয়োজনে জাতীয় ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন সফল বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সভাটি অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আরো সংবাদ