কক্সবাজার উপকূলে পুরোদমে চলছে শুঁটকি উৎপাদন - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১ ২রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বৃহস্পতিবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০২০-১১-৩০ ২০:৪৭:০১

কক্সবাজার উপকূলে পুরোদমে চলছে শুঁটকি উৎপাদন

কক্সবাজার উপকূলে পুরোদমে চলছে শুঁটকি উৎপাদন

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার কন্ঠ : কক্সবাজারের উপকূলে পুরোদমে চলছে শুঁটকি উৎপাদন। সমুদ্র থেকে মাছ শিকার করে রোদে শুকিয়ে শুঁটকি উৎপাদনে ব্যস্ত সময় পার করছেন শ্রমিকেরা। বঙ্গোপসাগর থেকে সংগ্রহ করা প্রায় ৩০ প্রজাতির মাছ রোদে শুকিয়ে শুঁটকি তৈরি করা হচ্ছে। সবচেয়ে বেশি উৎপাদিত হচ্ছে ছুরি ও লইট্যা। কক্সবাজার উপকূলের সর্ব বৃহত্তর শুঁটকি উৎপাদন কেন্দ্র নাজিরারটেক শুঁটকি মহাল। শীতের শুরুতে কর্মচাঞ্চল্যে প্রাণবন্ত হয়ে উঠেছে এ মহালটি। আগামী ৩০ মে পর্যন্ত শুঁটকি উৎপাদনে ব্যস্ত সময় পার করবেন জেলার বিভিন্ন শুঁটকি মহালের শ্রমিকেরা। সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা বলছেন, কক্সবাজারে ভ্রমণে আসা পর্যটকদের খাবারের তালিকায় থাকে শুঁটকির ভর্তা। এ ছাড়া পর্যটকদের বড় একটি অংশ বাড়ি ফেরার সময় এ শুঁটকি মহাল থেকে শুঁটকি কিনে নিয়ে যান।
পর্যটন মৌসুমের ৫ মাসে (নভেম্বর-মার্চ) কক্সবাজার শহরের শুঁটকির দোকানগুলোতে ২০০ কোটি টাকার বেচাকেনা হয় বলে জানান কক্সবাজার চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি আবু মোর্শেদ চৌধুরী খোকা। তিনি আরও বলেন, শুঁটকির চাহিদা পূরণ করতে অনেকে ভারত ও মিয়ানমার থেকে শুঁটকি আমদানি করে কক্সবাজার সৈকতে বিক্রি করেন।
শহরের নাজিরারটেক শুঁটকি ব্যবসায়ী বহুমুখী সমবায় সমিতির সভাপতি আতিক উল্লাহ কোম্পানী জানান, নাজিরারটেক শুটকি মহালে ছোট-বড় অর্ধশতাধিক আড়ৎ রয়েছে। এটিই দেশের সবচেয়ে বড় শুঁটকি মহাল। এ মহাল থেকে প্রতিদিন প্রায় ২০০ টন বিভিন্ন জাতের শুঁটকি উৎপাদন করা হয়। প্রতি মৌসুমে উৎপাদন হয় ৫০ থেকে ৬০ হাজার টন শুঁটকি। যার বাজার মূল্য প্রায় ২০০ কোটি টাকা। তিনি আরও বলেন, করোনা মহামারী এবং সাগর থেকে মাছ কম ধরা পড়ার কারণে উৎপাদন কম হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।
কক্সবাজার ফিশিং বোট মালিক সমিতির সভাপতি ও কক্সবাজার পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান বলেন, কক্সবাজার জেলার প্রায় ৬ হাজার ট্রলার সাগরে গিয়ে ইলিশ, কোরাল, লাক্ষা, চাপা, কামিলা, রুপচাঁদা, পোপাসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ ধরে আনছে। এসব মাছের বড় একটা অংশ যাচ্ছে শুঁটকি মহালে।
এদিকে কক্সবাজার নাজিরারটেক উপকূলে দেখা যায়, অন্তত ৫০-৬০টি মহালে উৎপাদিত হচ্ছে শত শত মণ শুঁটকি। এতে দেখা যায়, ছুরি, লইট্যা, কোরাল, লাক্ষা, চাপা, মাইট্যা, ফাইস্যা, চিংড়ি, পোপা, রাঙাচকি, গুইজ্যাসহ বিভিন্ন ধরনের মাছ রোদে শুকিয়ে শুঁটকি তৈরি করা হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা মহাল থেকে শুঁটকি কিনে ট্রাকে করে নিয়ে যাচ্ছেন দেশের বিভিন্ন এলাকায়।
শুঁটকি মহালে আরও দেখা যায়, ৩০ জনের বেশি নারী কাঁচা মাছ ধুয়ে পরিষ্কার করছেন।এরপর লবণ মিশিয়ে সেই মাছ বাঁশের মাচায় তুলেই রোদে শোকাচ্ছেন। ফরিদা বেগম নামে একজন শুঁটকি শ্রমিক বলেন, সকাল সাতটা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত কাজ করে তিনি পান ৩০০ টাকা। অথচ সমান কাজ করে পুরুষ শ্রমিকেরা মজুরি পান ৫০০ টাকা। শ্রমিকেরা বলেন, দৈনিক এবং মাঝে মাঝে কন্ট্রাক্টে আমরা কাজ করি। মজুরি তুলনামূলক কম, তবুও কি করবো, পেট তো চালাতে হচ্ছে। এভাবে আমাদের দিন চলে যাচ্ছে। এ শুঁটকি মহালে নারী-পুরুষের পাশাপাশি ১০-১২টি শিশু-কিশোরকেও শুঁটকি উৎপাদন করতে দেখা যায়। শিশুরা মজুরি হিসেবে পায় ৫০ থেকে ১০০ টাকা।
শুঁটকি শ্রমিক সোহেল, রফিক, সাহাব উদ্দিনসহ আরও একাধিক শ্রমিক প্রতিবেদককে বলেন, নাজিরারটেক এলাকার প্রায় ৬০টি মতো মহালে শ্রমিক আছে প্রায় ৭ হাজারের কাছাকাছি। এর মধ্যে ৫ হাজার নারী ও ১ হাজার শিশু শ্রমিক। কম টাকায় কাজ আদায়ের জন্য মহালের মালিকেরা নারী ও শিশুদের কাজ দেন।
নাজিরারটেক এলাকার পাশের ফদনার ডেইল, নুনিয়াছড়া, কুতুবদিয়াপাড়া, মগছিতা পাড়া উপকূলেও অসংখ্য মহালে শুঁটকি উৎপাদনের ধুম পড়েছে। রোদ যতো বেশি শুঁটকি উৎপাদনও ততো বেশি হচ্ছে।
নাজিরারটেক এলাকার একটি মহালের মালিক সোহেল আহমদ বলেন, শুঁটকি উৎপাদনের ভরা মৌসুম হলেও কয়েক দিন ধরে মাছের সংকট চলছে। জেলেদের ধরে আনা বড় মাছগুলো পর্যটকদের জন্য শহরের হোটেল-মোটেল-রেস্তোরাঁয় সরবরাহ করা হচ্ছে। আর ছোট মাছ যেমন ছুরি, লইট্যা, ফাইস্যা, ছিটকিরি, চিংড়ি শুঁটকির জন্য মহালে আনা হচ্ছে। বর্তমানে প্রতি কেজি ছুরি শুঁটকি বিক্রি হচ্ছে ৩০০ থেকে ১ হাজার ৬০০ টাকা, চিংড়ি ৮০০ থেকে ২ হাজার টাকা, রুপচাঁদা ৮০০ থেকে ২ হাজার ৪০০ টাকা, মাইট্যা ৬০০ থেকে ৯০০ টাকা, লইট্যা ৪০০ থেকে ১ হাজার ২০০ টাকা, কোরাল ৮০০ থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকা, পোপা ৪০০ থেকে ১ হাজার ৩০০ টাকা।
শহরের নাজিরারটেক, ফদনারডেইল, সমিতিপাড়া, কুতুবদিয়া উপকূল নিয়ে কক্সবাজার পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ড। ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আকতার কামাল বলেন, প্রতি সপ্তাহে এই উপকূল থেকে অন্তত ৫ কোটি টাকার শুঁটকি দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হচ্ছে। শুঁটকি উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত আছে প্রায় ২০ হাজার শ্রমিক।
পাশাপাশি মহেশখালী উপজেলার সোনাদিয়া, ধলঘাটা, কক্সবাজার সদর উপজেলার চৌফলদন্ডি, খুরুশকুল, টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপ, সেন্টমার্টিন, বাহারছড়া, কুতুবদিয়া উপজেলার লেমশিখালী, কৈয়ারবিল, আলী আকবর ডেইল উপকূলে শুঁটকি উৎপাদিত হচ্ছে।
নুনিয়াছটার শুঁটকি ব্যবসায়ী ছৈয়দ আলম বলেন, প্রতি সপ্তাহে তিনি নাজিরারটেক, ফদনার ডেইল, ফিশারিঘাট, মগছিতাপাড়া থেকে ৫০০ মণের অধিক শুঁটকি কিনে চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জে সরবরাহ দিচ্ছেন। সেখান থেকে শুঁটকি যাচ্ছে খাগড়াছড়ি, বান্দরবান ও রাঙামাটি জেলায়।
কক্সবাজার মৎস্য কর্মকতা এসএম খালেকুজ্জামান বলেন, কক্সবাজারের উপকূলে উৎপাদিত শুঁটকি দিয়ে ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, যশোর, নাটোরসহ দেশের বিভিন্ন জেলার মানুষের চাহিদা মেটানো সম্ভব হচ্ছে। এমনকি শুঁটকির একটি উল্লেখযোগ্য অংশ বিদেশে রফতানিও করা হচ্ছে, পাশাপাশি রাজস্ব পাচ্ছে সরকার। শুঁটকিতে ক্ষতিকর কীটনাশক ব্যবহারের বিষয়ে তিনি বলেন, এক সময় মাছের পচন রোধের জন্য এখানকার ব্যবসায়ীরা কীটনাশক ব্যবহার করতো বেশি। কিন্তু এ বিষয়ে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তাদের সচেতন করা হয়েছে।
উল্লেখ্য যে, কক্সবাজার উপকূলের সবচেয়ে বড় শুঁটকি মহাল নাজিরারটেকে অবস্থিত। কক্সবাজার শহর থেকে প্রায় ৩ কিলোমিটার দূরে পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের বঙ্গোপসাগর ঘেঁষে প্রায় ১০০ একর বালুচরজুড়ে গড়ে তোলা হয়েছে নাজিরারটেক শুঁটকি মহালটি। ওই মহালে শুধুমাত্র সূর্যের তাপের মাধ্যমে বিভিন্ন রকমের মাছ শুকানো হয়।

আরো সংবাদ