কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের কার্যক্রম ঝিমিয়ে পড়েছে - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১৭ জানুয়ারী ২০২১ ৩রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০১-১৩ ০৭:২৩:০৬

কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের কার্যক্রম ঝিমিয়ে পড়েছে

কক্সবাজার কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের কার্যক্রম ঝিমিয়ে পড়েছে

মোহাম্মদ ফারুক :  কক্সবাজার জেলায় কৃষি বিপণন অধিদপ্তর (মার্কেটিং অফিস) আছে, কিন্তু জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে কোনো ধরণের কার্যক্রম নেই বলে অভিযোগ উঠেছে। বাজার তদারকি এবং কৃষি পণ্যে বাণিজ্যে ও পরিচালনার লাইসেন্স, ব্যবসায়ীদের দেয়া লাইসেন্স নবায়নসহ কোন কার্যক্রম হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। এতে সরকার রাজস্ব হারাচ্ছে। পাশাপাশি অনিয়ন্ত্রিত বাজারদরের জন্য জনমনে ক্ষোভ বিরাজ করছে।
ব্যবসায়ী ও ক্রেতা সূত্রে জানা যায়, বর্তমান বাজারে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দৈনিক বাজার দর, মার্কেটিং অফিস কর্তৃক তদারকি করার কথা থাকলেও মাসের পর মাস দোকান ও হাটবাজারে তা তদারকি করা হচ্ছে না। সম্প্রতি বাজারের দর বেশ উঠা নামা করছে। ক্রেতা-বিক্রেতার মধ্যে বাজার দর নিয়ে প্রায় হরহামেশা বির্তকের ঘটনা ঘটে চলছে।

সরেজমিনে গিয়ে জেলা মার্কেটিং অফিসটি তারাবনিয়াছড়ায় একটি বিল্ডিং এর দ্বিতীয় তলায় খুব ভিআইপি অবস্থায় দেখা যায়। বাইরে সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে রেখেছে। মাসে ২২ হাজার টাকা ভাড়া দিতে হয় এই অফিসের । কর্মকর্তা আছেন ১২ দিন যাবৎ কক্সবাজারের বাইরে। একজন কর্মচারী অফিসটি পাহারা দিচ্ছেন। এসব তথ্য কক্সবাজার কৃষি বিপণন অধিদপ্তর কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে।
শহরের বিভিন্ন ব্যবসায়ী জানান, এক মাসের মধ্যে কোন বাজার মনিটরিং অফিসার দোকানে আসেনি। এবং বাজারদর জানতে চায়নি। এদিকে শহরের সমিতি পাড়া বাজারের ফল ব্যবসায়ী সুমন জানান, কৃষি পণ্যে ব্যবসা বা পরিচালনার জন্য লাইসেন্স নিতে হয় তাঁর জানা নেই। মুদি দোকানি শফিকুর রহমান বলেন, দুই বছর আগে লাইসেন্স নিয়েছিলাম, মেয়াদ শেষ হয়েছে অনেক আগে। সামনে নবায়ন করে নেব।

এভাবে পুরো জেলার অনেক ব্যব্যসায়ীরা জানে না, কৃষি পণ্যে বিক্রি করলে তাদের লাইসেন্স নিতে হয়। কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের অবহেলার কারণে সরকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

পেশকার পাড়া এলাকার মোঃ রফিক জানান, মাকেটিং অফিস আছে কিন্তু কোন কর্যক্রম নেই। কখনও অফিসার বা বাজারের দৈনন্দিন দর নিতেও তাদের কখনও দেখা যায়নি। এতে করে বর্তমান বাজারের বিভিন্ন সমস্যা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন।

বড় বাজারের সবজি বিক্রেতা রেজাউল করিম জানান, মাঝে-মধ্যে আসে জেলা মার্কেটিং অফিসার। তবে এই এক মাসের মধ্যে আসে নাই।

শহরের দর্জি রুহুল কাদের বলেন, এক সপ্তাহ ব্যবধানে চালের বস্তা প্রতি ২০০ টাকা বাড়িয়ে নিচ্ছে দোকানিরা। তাদের দেখার কেউ নেই।

এ বিষয়ে কক্সবাজার কৃষি বিপণন অধিদপ্তর এর জেলা মার্কেটিং অফিসার শাহজান আলীর নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি ঢাকাতে ট্রেনিং এ আছি। অনেক জায়গায় মানবিক কারণে লাইসেন্স দেয়া হয়না। আর করোনা মহামারীর কারণে বাজার তদারকি একটু ঢিলেঢালা হচ্ছে।
এব্যাপারে  জেলা প্রশাসক মোঃ মামুনুর রশীদ বলেন, এসব বিষয়ে তদন্ত করে দেখা হবে।

আরো সংবাদ