কক্সবাজার পৌর কাউন্সিলরসহ পাঁচ জনের ইয়াবা সিন্ডিকেট - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ৫ ডিসেম্বর ২০২০ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-১১-১১ ২১:৪৬:০৭

কক্সবাজার পৌর কাউন্সিলরসহ পাঁচ জনের ইয়াবা সিন্ডিকেট

কক্সবাজার পৌর কাউন্সিলরসহ পাঁচ জনের ইয়াবা সিন্ডিকেট

নিউজ ডেস্ক : কক্সবাজার শহরের নুনিয়ারছড়া থেকে ৬০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার করেছে পুলিশ। এসময় পাচারে জড়িত সন্দেহে দুইজনকে আটক করা হয়।

পুলিশ জানায়, নুনিয়ারছড়া এলাকায় ইয়াবার চালান মজুদের খবর পেয়ে ১১ নভেম্বর দুপুরে অভিযান চালায় কক্সবাজার সদর থানা পুলিশ। অভিযানে নুনিয়ারছড়া বড়কবর স্থান এলাকার কাউন্সিলর’র ভগ্নিপতি মমতাজ মিয়ার বাড়ির একটি কক্ষ থেকে ৬০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। ইয়াবাগুলো মাছ ধরার জালে মোড়ানো ছিল।

এনিয়ে কক্সবাজার সদর থানার ওসি (তদন্ত) বিপুল চন্দ্র দে জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওই বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। ওই সময় ফিরোজ আলম (২৬) ও মোহাম্মদ সুমন (২৫) নামে দুই যুবককে আটক করা হয়। পরে বাড়িতে তল্লাশী চালিয়ে ৬০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। আটকদের মধ্যে মোহাম্মদ সুমন টমটম চালক।

তিনি আরও জানান, তিন জন ব্যক্তি মমতাজ মিয়ার টিনশেড বাড়িটি ভাড়া নিয়েছিল। ওই বাড়িতে তারা ফিশিং বোটের জালসহ অন্যান্য জিনিসপত্র রাখতেন। তবে অভিযানে তাদের কাউকে পাওয়া যায়নি। যে দুই যুবককে আটক করা হয়েছে তারা ইয়াবা পাচারের সাথে জড়িত আছে কিনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

তবে সুত্রে জানা গেছে, কক্সবাজার পৌরসভার কাউন্সিলর মিজান ও তার ভগ্নিপতি মমতাজের নেতৃত্বে দীর্ঘদিন ধরে একটি সক্রিয় সিন্ডিকেট নানা কৌশলে ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে আসছে। মাদক বিরোধী অভিযানে ওই পৌর কাউন্সিলর বেশ কিছুদিন আত্মগোপনে ছিল। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে তিনি এলাকায় ফিরে ফের জনপ্রতিনিধির লেবাসে ইয়াবা ব্যবসা করে আসছে বলে জানা গেছে। কয়েকদিন আগে ওই কাউন্সিলর ও তার ভগ্নিপতি মমতাজ মিয়া, নতুন বাহারছড়ার সেলিম, বাহারছড়ার আমিন, রুমালিয়ার ছড়ার নুরু, গুরামিয়া, খুরুশকুলের লালুসহ একটি সিন্ডিকেট পাচারের উদ্দেশ্যে ৫ লাখ ইয়াবা মজুদ করেন। মোটা অংকের বিনিময়ে ইয়াবা পাচারের কাজে ব্যবহার করে স্থানীয় মাঝিমাল্লাদের।
সূত্রে আরও জানাগেছে, গত মঙ্গলবার দিবাগত রাতে রোহিঙ্গাদের ইয়াবা বোঝাই ৩টি ফিশিং ট্রলার টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপে খালাস হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বিজিবি ও কোস্ট গার্ডের ধাওয়া খেয়ে ২টি ফিশিং ট্রলার সটকে পড়ে। তার মধ্যে ১টি ফিশিং ট্রলার পালিয়ে নুনিয়ার ছড়া ঘাটে চলে আসে। রাত ২টায় বোটে থাকা রোহিঙ্গা নতুন বাহারছড়ার সেলিমকে ফোনে ফিশিং ট্রলারে ৫ লাখ ইয়াবা থাকার তথ্য জানায়। এসময় সেলিম ওই পৌর কাউন্সিলরকে বিষয়টি জানান। কাউন্সিলর এবং ভগ্নিপতি মমতাজকে পাঠিয়ে ভোর ৪টার দিকে ইয়াবাগুলো নিয়ে আসে। মমতাজের ঘরে ইয়াবাগুলো জালের সাথে কৌশলে রাখা হয়। পরদিন বুধবার সকালে সেলিম মমতাজকে ইয়াবার ভাগ দিতে বললে লোক পাঠাতে বলে। সেলিম তার টমটম ড্রাইভারকে মমতাজের বাড়িতে ইয়াবা আনার জন্য পাঠায়। কিন্তু টমটম ড্রাইভার সেখানে গিয়ে দেখেন পুলিশের টিম।

বিষয়টি সেলিম মমতাজকে জানালে সে মোবাইল বন্ধ করে দেয়। পরে পুলিশ ওই টমটম ড্রাইভারকে আটক করে। অথচ সে ওই বিষয়ে কিছুই জানে না।

কাউন্সিলর ও তার ভগ্নিপতি ৬০ হাজার ইয়াবার পুলিশকে তথ্য দিয়ে বাকি ৪ লাখ ৪০ হাজার ইয়াবা নিজেরাই রেখে দেন। এখনও ইয়াবাগুলো কাউন্সিলর ও তার ভগ্নিপতির কাছে রয়েছে বলে সূত্রের দাবী।

স্থানীয়রা জানান, কাউন্সিলর’র শেল্টারে সেলিম ফিশিং ট্রলারের আড়ালে ইয়াবা পাচার করে আসছে। ইয়াবা ব্যবসা করে সেলিম আঙ্গুল ফুলে কলা গাছ বনে যায় অল্পদিনের মধ্যে। কাউন্সিলর ও তার ভগ্নিপতি মমতাজকে দিয়ে ইয়াবাসহ নানা অপকর্ম করে বলে জানান এলাকাবাসী।

অভিযোগের বিষয়ে কাউন্সিলর মিজানুর রহমান মিজান বলেন, আমার বোন ৬০ হাজার ইয়াবাসহ আটক ওই দুই ব্যক্তিদের বাসা ভাড়া দেয়। তারা আমার ভগ্নিপতি মমতাজ মিয়ার বন্ধু। তাদের সাথে মমতাজ মিয়া ব্যবসা বাণিজ্য করতো। কিন্তু তাদের গতিবিধি সন্দেহ হলে আমি কক্সবাজার সদর থানা পুলিশকে খবর দিই। পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাদের ইয়াবাসহ আটক করে। আমার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ ভিত্তিহীন।
কক্সবাজার সদর থানার ওসি শেখ মুনীর উল গীয়াস বলেন, বিষয়টি খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে। তদন্ত সাপেক্ষে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সূত্র দৈনিক আজকের কক্সবাজার বার্তা ও কক্স বাংলা।

আরো সংবাদ