কক্সবাজার শহর জুড়ে অবৈধ স্টেশন - Coxsbazarkontho.com | Newspaper

মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ ৪ঠা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মঙ্গলবার

প্রকাশ :  ২০১৯-১০-১৩ ০৫:০০:১৩

কক্সবাজার শহর জুড়ে অবৈধ স্টেশন

শহরবাসীর অভিযোগ, শহরের প্রধান সড়ক এবং উপ-সড়কগুলো এখন অস্থায়ী অটোরিক্সা কিংবা টমটম স্টেশনে পরিণত হয়েছে। নিয়ম না থাকলেও প্রধান সড়কের পাশে ফুটপাতের উপর রাখা হচ্ছে ভাড়ায় চালিত অটোরিক্সাগুলো। এতে শহর জুড়ে সৃষ্টি হচ্ছে অসহনীয় যানজট। যার কারণে প্রশাসন যানজটের সমস্যা সমাধানে বার বার ব্যর্থ হচ্ছে। অন্যদিকে প্রধান সড়কের পাশে ফুটপাতের উপর যত্রতত্র ভাড়ায় চালিত অটোরিক্সা স্টেশন সৃষ্টি করায় চলাচলেও সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন সাধারণ মানুষ।

Advertisements

জানা গেছে, প্রধান সড়ক ও উপ-সড়কগুলোতে অস্থায়ী ভাড়ায় চালিত ৮/১০ অটোরিক্সা পার্কিং স্টেশন রয়েছে। এসব অটোরিক্সা পার্কিং স্টেশন করার কোন নিয়ম নেই সংশ্লিষ্ট চালকদের। এমনকি এসব পার্কিং স্টেশন করার জন্য ট্রাফিকের কোন অনুমতিও নেই। তারপরও অটোরিক্সাগুলো শহরের প্রধান সড়কের পাশে দাঁড় করিয়ে অন্যান্য যানবাহন চলাচলে বাঁধা সৃষ্টি করছে। বাধাগ্রস্থ করা হচ্ছে সাধারণ মানুষের চলাচলের উপরেও। অস্থায়ী পার্কিং স্টেশনগুলো যাত্রী উঠানামা করায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে চলাচলের। ফুটপাত দখল করে অঘোষিত পার্কিং স্টেশন করায় যানজট লেগে থাকছে ওইসব স্থানে।
সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, শহরের প্রধান সড়কের উভয় পাশে করা হয়েছে অঘোষিত অটোরিক্সা পার্কিং স্টেশন। এসব অঘোষিত অটোরিক্সা পার্কিং স্টেশন থেকে তোলা হচ্ছে যাত্রী। শহরের পৌরসভা গেইট, পাবলিক হলের সামনে প্রধান সড়ক, লালদিঘীর উত্তর পাড়, ভোলা বাবুর পেট্রোল পাম্পের পশ্চিম পাশ ও হাসপাতাল সড়কমুখের পশ্চিম পাশ, বাজারঘাটার নিউমার্কেটের উত্তর পাশে, সি-সাইড হসপিটাল ও শেভরণের সামনে, স্টেডিয়াম, ঈদগা ময়দান ও প্রিপ্যার‌্যাটরি স্কুল সংলগ্ন এবং কলাতলীর মোড় সহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ প্রধান সড়ক ও উপ-সড়কের আশে পাশে অটোরিক্সা পার্কিং স্টেশন রয়েছে। এসব পার্কিং স্টেশন থেকে শহরের বাসটার্মিনাল, রামু, উখিয়া, সোনা পাড়া, ইনানী, জালিয়াপালং, মরিচ্যা, টেকনাফে যাতায়াত করা হয়।
সাধারণ মানুষের অভিমত, শহরের ভাড়ায় চালিত অটোরিক্সাগুলো যথারীতি প্রধান সড়ক এবং ফুটপাতের উপর অস্থায়ী স্টেশন গড়ে তোলায় শহরবাসী সহ পর্যটকদের অসহনীয় দূর্ভোগ সৃষ্টি হচ্ছে। সাধারণ মানুষের নাগালের ভিতরে থাকে এমন জায়গায় এসব অটোরিক্সাগুলো সরানো গেলে প্রধান সড়ক ও ফুটপাত অনেকটা উন্মুক্ত হতো এবং যানজট অনেকটা কমে যেতো।

কক্সবাজার সোসাইটির সভাপতি কমরেড গিয়াস উদ্দিন জানান, শহরে বৃদ্ধি পাচ্ছে যানজট। এর বিভিন্ন কারণও রয়েছে। শহরজুড়ো এখন আগের তুলনায় অটোরিক্সা স্টেশন বৃদ্ধি পাচ্ছে। অন্যদিকে সড়কের অবস্থাও বেশি ভাল নয়। প্রতি ইঞ্চি জুড়ে গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। আটকে থাকে চলাচলরত যানবাহন। যার কারণে পেছনে থাকা যানবাহন চলাচল করতে পারে না। এর ফলে দীর্ঘ যানজট সৃষ্টি হয়। অন্যদিকে ধীরগতির যানজটের কারণে গতিশীল যানজট চলাচলে বাঁধাপ্রাপ্ত হচ্ছে। শহর থেকে অস্থায়ী অটোরিক্সাগুলো সরিয়ে নেয়া হলে কিছুটা যানজট কমে যেত বলে মনে করি। গতিশীল যানবাহনগুলো চলাচলে আলাদা ব্যবস্থা করতে পারলে আরো ভাল হতো।
Advertisements

এদিকে শহরে যানজট নিরসনে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে অভিযান চালানো হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে রেজিষ্ট্রেশনবিহীন ১০টি সিএনজি অটোরিকশা চালককে জরিমানা করা হয় এবং অনুমোদনহীন ২টি ব্যাটারি চালিত ইজি বাইক জব্দ করা হয়।
জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, অবৈধ ব্যাটারি চালিত ইজি বাইক ও রেজিষ্ট্রেশনবিহীন সিএনজি অটোরিকশার বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্ট আইনে অভিযান পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ রেজাউল করিম। এসময় বিআরটিএ এর সহকারী পরিচালক ও পৌরসভার লাইসেন্স পরিদর্শক উপস্থিত ছিলেন। শহরের যানজট নিরসনে জেলা প্রশাসনের এ অভিযান অব্যাহত রাখা হবে বলে জানা গেছে জেলা প্রশাসন সূত্রে।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
নভেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০