কক্সবাজার সাগরপাড়ে চালু হচ্ছে আইসোলেশন সেন্টার - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ১৫ জুলাই ২০২০ ৩১ আষাঢ়, ১৪২৭

মঙ্গলবার

প্রকাশ :  ২০২০-০৬-১৮ ১৬:৩০:০৮

কক্সবাজার সাগরপাড়ে চালু হচ্ছে আইসোলেশন সেন্টার

নিজস্ব প্রতিবেদক : কক্সবাজার সাগরপাড়ে ২০ জুন শনিবার সকাল থেকে চালু হচ্ছে কোভিড ১৯ রোগীদের বিনা মূল্যে থাকা-খাওয়া ও চিকিৎসার জন্য ২০০ বেডের আইসোলেশন সেন্টার। সেন্টারটি হচ্ছে ১১ তলাবিশিষ্ট তারকামানের হোটেল সি-প্রিন্সেস। হোটেলটির অবস্থান সৈকতের সুগন্ধা পয়েন্টে। যেখান থেকে সমুদ্রের দূরত্ব প্রায় ৭০০ ফুট। হোটেলটির সব কক্ষ থেকে দেখা যায় পশ্চিম দিকে সমুদ্র এবং পূর্ব দিকের উঁচু পাহাড়ের সারি। সমুদ্রের উত্তাল ঢেউ, নির্মল হাওয়ার সঙ্গে সবুজের সমারোহের মধ্যে করোনা রোগীরা অবস্থান করবেন। বৈরী পরিবেশে সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার এখন উত্তাল। চলছে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেতও। তিন দিন ধরে চলছে টানা ভারী বর্ষণ। করোনা পরিস্থিতির কারণে তিন মাস ধরে সৈকতে পর্যটকের যাতায়াতও নিষিদ্ধ। এ কারণে ফাঁকা পড়ে আছে পুরো সৈকত এলাকা।

এদিকে করোনা চিকিৎসার অন্যতম উপাদান হলো নির্মল বাতাস। ফুসফুসে আঘাত হানা ভাইরাস করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করতে আইসোলেশন কক্ষটি জানালার পাশে রাখার নির্দেশনা আছে। সেটি মাথায় রেখে সমুদ্রের তীরের নির্মল পরিবেশে আইসোলেশন সেন্টারটি গড়ে তোলা হয়েছে, বলে জানান কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আশরাফুল আফসার। রোহিঙ্গা শিবিরে শরণার্থীদের মানবিক সেবায় নিয়োজিত জাতিসংঘের একাধিক দাতা সংস্থা, বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থাসহ জেলা প্রশাসনের সহায়তায় ২০০ বেডের এই আইসোলেশন সেন্টার গড়ে তোলা হয়েছে।

এ নিয়ে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক কামাল হোসেন বলেন, অদৃশ্য করোনা ভাইরাস নিয়ে সবাই আতঙ্কে আছি। সংক্রমণও দিন দিন বাড়ছে। হাসপাতাল-আইসোলেশন সেন্টারে গাদাগাদি অবস্থা, জায়গার সংকট। বহু করোনা রোগীর ঘরে থাকার জায়গা নেই। থাকলেও আলাদাভাবে থাকার পরিবেশ নেই। সবদিকে বিবেচনা করে সৈকত তীরের নির্মল পরিবেশে তারকা হোটেলটি আইসোলেশনের জন্য বেছে নেয়া হয়েছে। আশা করছি রোগীরা চিকিৎসার পাশাপাশি মন ভরে শ্বাস নিতে পারবেন। ২০ জুন শনিবার সকাল থেকে সেন্টারটি চালু হচ্ছে। করোনা রোগীরা বিনা ভাড়ায় হোটেলে থাকার সুযোগ পাচ্ছেন। তবে অসচ্ছল রোগীদের জন্য বিনা মূল্যে খাবারের ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে।
রোগীদের স্বাস্থ্যসেবা দিতে চিকিৎসক, নার্স ও কর্মী জোগান দিচ্ছে কক্সবাজার সিভিল সার্জন অফিস। রোগীদের ঔষধ, খাবার, বেতন ভাতাসহ আনুষঙ্গিক ব্যয় বহন করছে জাতিসংঘের একাধিক সংস্থাসহ বিভিন্ন বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা। জেলা প্রশাসন ও সিভিল সার্জন অফিস সমন্বিতভাবে আইসোলেশন সেন্টারের কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

কক্সবাজার সিভিল সার্জন মাহবুবুর রহমান বলেন, তুলনামূলকভাবে যেসব করোনা রোগীর উপসর্গ নেই, যাঁরা মোটামুটি সুস্থ, তাঁদের এই আইসোলেশন সেন্টারে রাখা হবে। আর যেসব রোগীর বাড়িতে আলাদা থাকার জায়গা বা ব্যবস্থা নেই বা সংক্রমণ ঝুঁকির কারণে বাড়িতে থাকতে চান না, তাঁদেরও এই হোটেলে রাখা হবে।

আরো সংবাদ