কক্সবাজার সৈকতে মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্য বিধি - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বুধবার

প্রকাশ :  ২০২০-০৮-০৫ ০৭:২৩:৫৮

কক্সবাজার সৈকতে মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্য বিধি

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনা পরিস্থিতির দীর্ঘ চার মাস বন্ধ থাকার পর অবশেষে পুরনো রূপে ফিরছে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার। দীর্ঘসময় ঘরবন্দি থাকা মানুষগুলো সৈকত দেখতে পেয়ে দারুণ উচ্ছ্বসিত।

ঈদের ছুটিতে সৈকতে ভিড় করতে শুরু করেছে পর্যটকসহ স্থানীয় দর্শনার্থীরা। ঘুরতে এসে অনেকে স্বাস্থ্যবিধি মানার ব্যাপারে উদাসীনতা দেখাচ্ছেন। তবে সৈকতের প্রতিটি পয়েন্টে স্বাস্থ্যবিধি মানার জন্য প্রচারণাসহ মাইকিং করতে দেখা গেছে ট্যুরিস্ট পুলিশকে।
করোনার কারণে চার মাস ধরে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা ছিল। যার কারণে পর্যটক শূন্য ছিল সমুদ্র সৈকত। কিন্তু ঈদের ছুটিতে সৈকতে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞায় আনা হয়েছে শিথিলতা। তাই পুরনো রূপে ফিরতে শুরু করেছে চিরচেনা সৈকতটি।
স্থানীয় দর্শনার্থী কামাল উদ্দিন বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে সৈকত প্রবেশ দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ ছিল। সম্প্রতি সৈকতে প্রবেশে শিথিলতার আসার পর ঘুরতে আসছি। এখন সৈকতে এসে অনুভূতি প্রকাশ করার ভাষা হারিয়ে ফেলেছি। কারণ, বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত প্রত্যেক ভ্রমণপিসাসুর জন্য পছন্দের একটি স্থান।

চট্টগ্রাম থেকে আসা পর্যটক রিয়াজ আহমেদ বলেন, ‘ঘরবন্দি জীবন থেকে মুক্তি পেয়ে সৈকত দেখতে আসলাম। এখন সৈকতে এসে দীর্ঘদিনের ক্লান্তি দূর করার চেষ্টা করছি।

এদিকে সৈকতে প্রবেশে শিথিলতা এলেও এখনো হোটেল-মোটেল, রেস্তোরাঁ ও বার্মিজ দোকানগুলো খুলে দেয়া হয়নি। এদিকে করোনার কারণে সৈকতের প্রতিটি পয়েন্টে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে ট্যুরিস্ট পুলিশের প্রচারণা ও মাইকিং অব্যাহত রয়েছে। তবে অনেকেই এ ব্যাপারে উদাসীনতা দেখাচ্ছেন।

ট্যুরিস্ট পুলিশের পরিদর্শক শাকের আহমেদ বলেন, শিথিলতার কারণে পর্যটকসহ স্থানীয় দর্শনার্থীরা ছুটে আসছে সৈকতে। কিন্তু সৈকতের প্রবেশের পয়েন্ট থেকে শুরু করে পুরো সৈকতের ছয়টি পয়েন্টে ট্যুরিস্ট পুলিশ করোনা পরিস্থিতির জন্য স্বাস্থ্যবিধি মানতে মাইকিং করা হচ্ছে। এর পাশাপাশি সামাজিক দূরত্ব ও মাস্ক পরতে বাধ্য করা হচ্ছে। অনেকে মানছেন, অনেকেই মানছেন না।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক কামাল হোসেন বলেন, সৈকতের দোকানপাট, রেস্তোরাঁ ও প্রায় সাড়ে চার শতাধিক হোটেল-মোটেল ও রিসোর্টে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত আকারে খুলার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এ নিয়ে জেলা প্রশাসনের পর্যটন সেল কাজ করছে।

উল্লেখ্য, করোনা পরিস্থিতির কারণে গত ১৮ মার্চ থেকে সৈকতে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করে প্রশাসন। এরপর ০১ আগস্ট থেকে সৈকতে প্রবেশে শিথিলতা আসে।

আরো সংবাদ