কক্স ন্যাশনাল হসপিটালে চিকিৎসার নামে ভয়াবহ প্রতারণা - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ৯ আগস্ট ২০২০ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০৭-২৯ ১৩:৪১:৫২

কক্স ন্যাশনাল হসপিটালে চিকিৎসার নামে ভয়াবহ প্রতারণা

বিশেষ প্রতিবেদক :  কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল সড়কস্থ কক্স ন্যাশনাল হসপিটালের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ উঠেছে। পুরো জেলায় শতাধিক দালাল কমিশন ভিত্তিতে নিয়োগ দিয়ে মহান চিকিৎসা সেবাকে পুঁজি করে এ ভয়াবহ প্রতারণা চালিয়ে যাচ্ছে হাসপাতালটির কর্তৃপক্ষ। সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে কথিত কিছু জামাত শিবিরের নেতাকর্মীরা এ কর্মকান্ড চালাচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

সূত্র জানান, কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল সড়কের একটি বিল্ডিংটি ভাড়া নিয়ে প্রতিনিয়ত, রোহিঙ্গা রোগি ভর্তি, মহিলা ডাক্তার ছাড়া গর্ভবতী অপারেশন, মালিক স্টাফদের অবৈধ বিনোদন, অনভিজ্ঞ ল্যাবম্যান দিয়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষা, ভুলে ভরা চিকিৎসা সেবা ও ভর্তি বাণিজ্যসহ নানা অপকর্ম করে বেড়াচ্ছে এ হাসপাতালটি।

সুত্র আরও জানান, বহু রোগের সমস্যা সমাধানের বিজ্ঞাপন দিয়ে ২ জন এমবিবিএস ডাক্তারের মাধ্যমে এ হাসপাতালটি পরিচালিত হয়ে আসছে। এই হাসপাতালে নিয়মিত মায়ানমার হতে বৈধ-অবৈধ পথে বিভিন্ন অজুহাতে অর্ধশতাধিক রোগি আসে। এ নিয়ে সরকারি কড়া নীতিমালা থাকলেও কথিত ডাক্তারগণ তা তোয়াক্কা না এ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। অন্যদিকে আগত রোগিদের অপারেশনের দোহায় দিয়ে আদায় করা হচ্ছে চড়া টাকা। প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ও যোগ্য জনবল ছাড়াই চলছে অপারেশন নামে এই কসাই কান্ড।

এব্যাপারে কথা হয় কক্সবাজারের কুতুবদিয়ার গর্ভবতী হামিদা বেগম (৪০) এর সাথে। তিনি জানান, গত ২৬ জুলাই আধুনিক সুযোগ সুবিধার প্রতিশ্রুতি দিয়ে কক্স ন্যাশনাল হসপিটালে আনেন এক দালাল। এখানে আসার পর ৪০ হাজার টাকায় সিজার করার চুক্তি করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। তাকে হাসপাতালের ৪র্থ তলায় সাধারণ একটি বেডে রাখা হয়। সেখানে গিয়ে কপালে চোখ উঠে হামিদা বেগমের স্বামী আবদুল করিমের। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত কোন ডাক্তারের দেখা নেই। ১০টির মতো পরীক্ষা দেয়া হয়েছে হামিদাকে। পরীক্ষা ফি চুক্তির মধ্যে নেই। তাই বাড়তি আরও প্রায় ১০ হাজার টাকা গুণতে হলো তার স্বামীকে। গরীব অসহায় কৃষক এত টাকা দিতে হিমশিম খেয়ে উঠে। তবুও তার প্রত্যাশা ছিল ভাল চিকিৎসা পেয়ে নিরাপদে যেন তাদের সন্তান পৃথিবীর আলো দেখে। কিন্তু হাসপাতাল কর্তপক্ষের চরম অবহেলায় তার সেই আশা ফিকে হয়ে যায়।
আবদুল করিম বলেন, এখানে স্বাস্থ্যবিধির কোন বালাই নেই।

সর্বত্র নোংরা ও অস্বস্তিকর পরিবেশ। সিটের বেড থেকে দুর্গন্ত ছড়িয়ে পড়ছে। বেডের ছাদরের অবস্থা আরও নাজুক। উন্নত চিকিৎসার কথা বলে প্রতিনিয়ত রোগীদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে হাসপাতালটির কর্তৃপক্ষ। তার কাছ থেকে ওষুধসহ মোট ৬৫ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়া হয়। একবুক হতাশা নিয়েই তিনি স্ত্রীকে নিয়ে হাসপাতাল ত্যাগ করেন।

হামিদার ভর্তির পরের দিন সকালে প্রচন্ড ব্যথা নিয়ে শহরের সমিতিপাড়ার রোকেয়া বেগম (৫২) ভর্তি হয়। ভর্তির পর তাকে প্রায় ১৫টি পরীক্ষা দেয়া হয়। পরীক্ষাগুলো করতে তার খরচ হয় ২০ হাজার টাকা। সাথে রয়েছে ওষুধ। বিকালে পরীক্ষার সব রিপোর্ট আসার পরও তাকে কোন ডাক্তার দেখতে আসেনি। সন্ধ্যায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, তাকে রেফার করা হয়েছে। এতে অবাক বনেন তিনি।
রোকেয়া বেগম বলেন, ভর্তির পরে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসাও দেয়া হয়নি। অহেতুক পরীক্ষার নামে টাকা হাতিয়ে নেয়ার পর তাকে রেফার করা হয়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের ভাষ্য পরীক্ষার রিপোর্টে রোকেয়া বেগমের হার্টের সমস্যা নির্ণয় হয়। হাসপাতালে হার্টেও ডাক্তার নেই। তাই তাকে রেফার করা হয়।

গর্জনিয়া থেকে আসা ফরিদুল আলম (৫০) তার মাকে নিয়ে কক্সবাজারে সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ৩ দিন আগে। তার মায়ের ব্রেইন টিউমার বলেছে ডাক্তাররা। তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করলেও টাকার অভাবে যেতে পারছে না। পরে এক দালাল আরও উন্নত চিকিৎসার কথা বলে কক্স ন্যাশনাল হসপিটালে আনে। এখানে মাকে নরমাল ডিএস স্যালাইন নিয়েই বেডে ভর্তি দেয়া হয়েছে।
ফরিদ বলেন, আমরা সহজ সরল মানুষ। তেমন কিছু বুঝিনা। আমার পরিচিত আনোয়ার এখানে ভর্তি করিয়েছে ভাল চিকিৎসার কথা বলে দৈনিক ১০০০ টাকা বেড খরচ বলে। এখানে এসে দেখছি আমাদের যে বেড দেওয়া হয়েছে তাতে চাদর নেই। বেডে ছাড় পোকা আছে। তাছাড়া চারিদিকে ময়লা নোংকা পরিবেশ আর গন্ধে ভরা। বুঝতে পারছি না কি করবো। অনুসন্ধানে জামায়াত নিয়ন্ত্রিত এ হসপিটালে চিকিৎসার নামে এমন ভয়াবহ প্রতারণার চিত্র উঠে আসে।

হাসপাতালের আশপাশের দোকানদারেরা বলেন, শুধু হামিদা বেগম বা রোকেয়া বেগম নয়। এ চিত্র এখানকার প্রতিদিনের। জেলাব্যাপী হাসপাতালের শতাধিক দালাল কমিশন ভিত্তিক কাজ করছে। গরীব-অসহায় রোগীদের এখানে ভুলিয়ে বালিয়ে আনা হয়। বিশেষ করে সদর হাসপাতালের রোগীদের উন্নত চিকিৎসার নামে দালালেরা এখানে নিয়ে আসে। তারপর তাদের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে কৌশলে রেফারের নাটক করা হয়। এ নিয়ে এখানে প্রতিদিন হাসপাতালের কর্মকর্তা-কর্মচারিদের নিয়ে রোগীর স্বজনদের বাকতি-তা হতে দেখা যায়। অনেক সময় রোগীর স্বজনদের মারধরও করা হয়। চিকিৎসা প্রতারণা রোগীর স্বজনরা বুঝতে পারলেও কোন লাভ নেই। চিল্লাচিল্লি করলে ক্যাডারদের হাতে নাজেহালের শিকার হয় রোগীর স্বজনরা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বাইরে থেকে বেশ ফিটফাট হাসপাতালটি। ওয়ার্ডে গেলে চোখে পড়ে অব্যবস্থাপনা। কেবিন ও সাধারণ ওয়ার্ডে সর্বত্র নোংরা ছড়িয়ে আছে। বিছানার চাদর ও বেড অপরিস্কার। একটি চাদর ও বেডে ব্যবহার করা হয় দীর্ঘদিন। রোগীরা কিছু বললেও প্রতিকার মেলেনা। করোনাকালীন খোদ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ মানছে না স্বাস্থ্যবিধি। নার্স ও কর্মচারিদের মাস্ক ও গ্লাভস পরার কোন আগ্রহ নেই। প্রতিটি ফ্লোরে গেলে দুর্গন্ধে দম বন্ধ হয়ে যায়। তবে মানুষ ঠকানোর আয়োজন বেশ জমজমাট। হাসপাতালে অপারেশন থিয়েটার, এক্স-রে বা অন্যান্য পরীক্ষায় নিয়োজিত কর্মচারিদের কোন ডিগ্রী নেই বললেই চলে। অভিজ্ঞতা নিয়ে সবাই কাজ করছে বলে জানা গেছে।
হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ডা. মহিউদ্দিন মো. আলমগীরের নাম ব্যবহার করে সেটা কৌশলমাত্র। তাদের নিজস্ব কোন ল্যাব নেই। এক্সরে নেই এমন কি রক্তের গ্রুপও পরীক্ষা করতে পারে না।

আরও জানা যায়, হাসপাতালের পরিচালনা পর্ষদে সবাই সাবেক শিবির ও জামায়াত নেতা রয়েছে। অভিযোগের বিষয়ে কক্স-ন্যাশনাল হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. বাদশা আলমগীর বলেন, হাসপাতাল নিয়ে একটি মহল ষড়যন্ত্র করছে। হাসপাতালের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সত্য নয়। এ নিয়ে নিউজ করলেও কোন সমস্যা নেই। কেউই কিছু করতে পারবে না।
এ ব্যাপারে কক্সবাজার সিভিল সার্জন ডা. মাহবুবুর রহমান বলেন, হাসপাতালটির বিরুদ্ধে অহরহ অভিযোগ রয়েছে। শিগগিরই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়া যারা চিকিৎসার নামে প্রতারণা করছে তাদের বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে স্থানীয়রা জানিয়েছেন, প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ও প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত জনবল ছাড়াই কিভাবে এ প্রতিষ্ঠানে চিকিৎসা চলে তা নিয়ে শহরবাসির মাঝে প্রতিনিয়ত কৌতুহল সৃষ্টি হচ্ছে। শুধু বর্তমান না অতীতেও এ প্রতিষ্ঠানে বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম ও প্রতারণার অভিযোগ রয়েছে। এনিয়ে প্রতিষ্টানের বিরুদ্ধে মামলা-হামলা হয়েছিলো। হাসপাতাল এলাকার বিশিষ্টজনরা মনে করছেন, যারা অবৈধ পথে স্বাস্থ্য সেবার নামে এ অপরাধমুলক কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে যথাযত ব্যবস্থা নিতে সিভিল সার্জনসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের নজরদারী বাড়ানোর দাবী জানান।

আরো সংবাদ