করোনাভাইরাস ২৮ দিন পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে - কক্সবাজার কন্ঠ

মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মঙ্গলবার

প্রকাশ :  ২০২০-১০-১২ ০৮:২০:৩৮

করোনাভাইরাস ২৮ দিন পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে

করোনাভাইরাস ২৮ দিন পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে

নিউজ ডেস্ক :  টাকা,  মোবাইল ফোনের স্ক্রিন ও স্টেইনলেস ষ্টীলের ওপর করোনাভাইরাস ২৮ দিন পর্যন্ত বাঁচতে পারে। তার মানে যা ভাবা হয়েছিল তার চেয়ে দীর্ঘসময় বাঁচে তারা। অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় বিজ্ঞান সংস্থার গবেষকেরা জানিয়েছেন এ কথা। বিবিসির খবরে জানানো হয়, অন্ধকারে এই পরীক্ষা চালানো হয়। পরীক্ষায় দেখা গেছে অতিবেগুনি রশ্মি পড়লে ভাইরাসগুলো আর বাঁচে না। তবে কোনো কিছুর উপরিতল থেকে করোনা আসলে ছড়ায় কিনা তা নিয়ে অনেক বিশেষজ্ঞেরই সন্দেহ আছে।

 

এখন পর্যন্ত যতটুকু নিশ্চিত হওয়া গেছো তা হলো করোনা মূলত হাঁচি, কাশি, শ্লেষ্মার মাধ্যমে, এবং কথা বলার সময় ছড়ায়। বাতাসে ভেসে থাকা কণার সংস্পর্শে করোনা সংক্রমণ হতে পারে। যুক্তরাষ্ট্র সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল এর তথ্য হচ্ছে ধাতু বা প্লাস্টিকে লেগে থাকা করোনা মানবদেহে সংক্রমিত হতে পারে। অবশ্য এ ধরনের সংক্রমণের ঘটনা তুলনামুলকভাবে কম।

 

এর আগে সার্স ভাইরাসের ক্ষেত্রে দেখা গিয়েছিল তারা প্লাস্টিক বা ইস্পাতের উপরিতলে দু-তিনদিন বেঁচে থাকতে পারে। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার ওই প্রতিষ্ঠানের গবেষণায় দেখা যাচ্ছে করোনা ভাইরাস তার চেয়ে অনেকগুণ দীর্ঘজীবী। শক্ত সমতলে, অন্ধকারে, ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় তাদের আয়ু পরীক্ষা করে এ তথ্য পাওয়া যায়।

দেখা গেছে, একই পরিবেশে ফ্লুর ভাইরাস ১৭ দিন বাঁচতে পারে।

 

ভাইরোলজি জার্নালে প্রকাশিত গবেষণার ফলাফল থেকে আরো জানা যায়, সার্সের ভাইরাস গরমের চেয়ে ঠাণ্ডায় বেশি বাঁচে। ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে ২৪ ঘণ্টার পর সংক্রমিত হয় না। আরো দেখা গেছে, মসৃণ, ছিদ্রহীন তলে তার দীর্ঘতর আয়ুষ্কাল পায়। যেমন, ১৪ ড়দিন পরে কাপড়ে ভাইরাসটি আর পাওয়া যায়নি। তবে কার্ডিফ বিশ্ববিদ্যালয়ের কমন কোল্ড সেন্টারের দসাবেক পরিচালক প্রফেসর রন একলেস বলেন, ভাইরাস ২৮ দিন পর্যন্ত বাঁচতে পারে এসব বলে সাধারণ মানুষের মধ্যে অযথাই আতঙ্ক ছড়ানো হচ্ছে।

 

মূলত শ্লেষ্মার মাধ্যমে ভাইরাস ছড়ায়, এই গবেষণায় মানুষের শরীরের শ্লেষ্মাই নেওয়া হয়নি, বলেন তিনি। তিনি বলেন, শ্লেষ্মায় কিছু রোগ প্রতিরোধী উপাদান থাকায় ভাইরাস কয়েক ঘণ্টার মতো বাঁচে। এদিকে জুলাইয়ে ল্যান্সেট প্রকাশিত নিবন্ধে ইমানুয়েল গোল্ডম্যান বলেন, জড়বস্তুর উপরিতল থেকে ভাইরাস সংক্রমণের সম্ভাবনা খুবই কম। ক্যালিফোর্নিয়া ইউনিভার্সিটির ওষুধবিজ্ঞানের অধ্যাপক মনিকা গান্ধীও কদিন আগে বলেন বস্তুর উপরিতল দিয়ে ছড়ায় না করোনাভাইরাস।

আরো সংবাদ