করোনার ধাক্কা কাটিয়ে পর্যটন ব্যবসায়ীদের মুখে হাসি - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ১ মার্চ ২০২১ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০২-১৭ ০৭:৪৪:৩৭

করোনার ধাক্কা কাটিয়ে পর্যটন ব্যবসায়ীদের মুখে হাসি

করোনার ধাক্কা কাটিয়ে পর্যটন ব্যবসায়ীদের মুখে হাসি

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার :  অবশেষ করোনার ধাক্কা কাটিয়ে কক্সবাজার পর্যটন ব্যবসায়ীদের মুখে হাসি ফুটতে শুরু করেছে। ব্যবসায়ীরা গেল ৬ মাস ধরে করোনা মহামারির কারণে পর্যটন ব্যবসায় বিপুল অংকের লোকসানে পড়েছিলেন। বর্তমানে পর্যটন মৌসুমে বিপুল সংখ্যক পর্যটক আসতে শুরু করায় ক্ষতি পুষিয়ে উঠার পরিকল্পনা করছেন ব্যবসায়ীরা।

এদিকে করোনার ভীতি হ্রাস পাওয়ায় ২১ ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে টানা তিন দিনের ছুটিতে কক্সবাজার ভ্রমণে সব ধরণের টিকেট অগ্রিম বুকিং হয়ে গেছে। ৪ শতাধিক হোটেল মোটেল ছাড়াও বিমান ও বাসের কোনো টিকেট নেই। টিকেট নেই সেন্টামার্টিন ভ্রমণে নিয়োজিত জাহাজগুলোতেও। করোনার ভীতি হ্রাস পাওয়ায় মৌসুমের শেষ দিকে পর্যটন নগরী কক্সবাজারে প্রায় ১০ লাখ পর্যটক আগমন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এ পর্যটকদের বরণের জন্য আইন-শৃংখলা বাহিনীর পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে সব ধরনের প্রস্তুতি।

এ আশানুরূপ পর্যটক আগমনে পর্যটক ব্যবসায়ীরা দারুণ খুশি। পযটন মৌসুমে তারা সে লোকসান কাটিয়ে আলোর মুখে হাসতে শুরু করেছে। পর্যটক আগমনে পযটন ব্যবসায়ীদের মাঝে নয়া দিগন্তের হাওয়া লেগেছে। এতে হাসি ফুটেছে পর্যটন ব্যবসায়ীদের। তবে কেউ কেউ মানছেন না স্বাস্থ্যবিধি। স্বাস্থ্য বিধি নিয়ে প্রশাসনের পক্ষ থেকে পর্যটকদের মাঝে প্রতিনিয়ত সর্তকবানী দেয়া হচ্ছে। অন্যদিকে আগত পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সব ধরণের প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে আইন-শৃংখলা বাহিনী।

পর্যটন সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ইতোমধ্যে বুকিং হয়ে গেছে কক্সবাজার শহরের ৪ শতাধিক আবাসিক হোটেল-মোটেল, গেস্ট হাউজ ও রিসোর্ট। করোনার ভীতি হ্রাস পাওয়ায় মৌসুমের শেষ দিকে পর্যটন নগরী কক্সবাজারে প্রায় ১০ লাখ পর্যটক আগমন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। শুধু কক্সবাজারের সমুদ্র সৈকত নয়। ছুটির দিনগুলোতে বাড়ে দর্শনার্থী সমাগম। দীর্ঘসময় ঘরে বন্দী থাকার পর করোনার ভীতি হ্রাস পাওয়ায় প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে পর্যটকরা ভিড় করছেন সমুদ্র সৈকত পাড়, হিমছড়ি পাহাড়ী ঝর্ণায়, পাথুরে বীচ ইনানী, দরিয়ানগর, মহেশখালীর আদিনাথ মন্দির, সেন্টমার্টিন ও ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কসহ জেলার বিভিন্ন পর্যটন স্পটে দেশী-বিদেশী পর্যটক আগমনে ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানাগেছে, ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। এ উপলক্ষে ১৯ ফেব্রুয়ারি হতে ২১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত টানা ৩ দিন সরকারি ছুটি রয়েছে। এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে পরিবার পরিজন নিয়ে পর্যটন নগরী কক্সবাজারে দল বেঁধে আসছে পর্যটকের দল।

টানা এ ৩ দিন কক্সবাজারের হোটেল মোটেলে রুম পাওয়া দুস্কর হয়ে পড়েছে। একইভাবে কক্সবাজার ভ্রমণের বিমান টিকেট, বাসের টিকেট ও সেন্টমার্টিন ভ্রমণেও নেই জাহাজের টিকেট। এ সব পরিবহনখাতে আগত পর্যটকদের চাহিদার সুযোগে অতিরিক্ত ভাড়া বৃদ্ধি করা হয়েছে।

বিশেষ করে কক্সবাজার-কলাতলী পর্যটন জোনে অবস্থানরত হোটেলের প্রতি রুম ভাড়া সর্বনি¤œ ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা করে আদায় করা হচ্ছে। অন্যদিকে হোটেল জোনে প্রতি রুম ভাড়া ৭ থেকে ৮ হাজার টাকা করে চাওয়া হচ্ছে। এতে ২১ ফেব্রুয়ারির ছুটিতে পর্যটকদের কাছ থেকে গলাকাটা ভাড়া আদায়সহ নানা হয়রানির শিকার হওয়ার সম্ভাবনা দেখছেন সচেতন মহল।

কক্সবাজার হোটেল-মোটেল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম সিকদার জানান, শহরের চার শতাধিক আবাসিক হোটেল বুকিং হয়ে গেছে। রুম না পেয়ে ফেরত যাচ্ছে অনেকেই। এ করোনাকালে আশানুরূপ পর্যটক আগমনে আমরা খুশি। তিনি আরও জানান, করোনার ভীতি হ্রাস পাওয়ায় পর্যটন মৌসুমে বিপুল সংখ্যক পর্যটক আসতে শুরু করায় ক্ষতি পুষিয়ে উঠার পরিকল্পনা পর্যটন সংশ্লিষ্টদের। তবে পর্যটকদের কাছ থেকে গলাকাটা ভাড়া আদায়সহ নানা হয়রানির শিকার সম্ভাবনার বিষয়টি তিনি গুরুত্বের সাথে দেখবেন বলে জানান।

কক্সবাজারের হোটেল ব্যবসায়ী মোহাম্মদ মুকিম খান জানান, পর্যটন মৌসুমে এ বিপুল সংখ্যক পর্যটক কক্সবাজারে আসার সুযোগ পেলে আমাদের অতীত ক্ষতি পুষিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে পারবো। আর পর্যটকদের বরণ করতে ইতোমধ্যে হোটেল মোটেল জোনের পক্ষ থেকে সব ধরণের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।

কক্সবাজার ট্যুর অপারেটর অ্যাসোসিয়েশনের (টুয়াক) প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এস এম কিবরিয়া খান বলেন, ১৯, ২০, ও ২১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত কোনো আবাসিক হোটেলে রুম খালি নেই। এক সপ্তাহ আগে থেকেই রুম পাননি অনেকে। কক্সবাজারে আসা পর্যটকদের সেবায় আমরা নিয়োজিত আছি। স্থানীয় প্রশাসনও পর্যটকদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করছে।

কক্সবাজারের তারকামানের হোটেল লং বীচের অপারেশন অফিসার মোহাম্মদ তারেক বলেন, শুক্র, শনি ও রোববারে হোটেলের কোনো কক্ষ খালি নেই। এক মাস আগেই বুকিং হয়ে গেছে। তবু প্রতিদিন অনেকে কক্ষ বরাদ্ধ নিতে ফোন করেন পর্যটকরা।

কক্সবাজারের তারকামানের হোটেল সি-গালের এজিএম মোহাম্মদ আরেফিন জানান, ডিসকাউন্টে রুম বুকিং দেয়া হচ্ছে। শুক্র, শনি ও রোববারে হোটেলের প্রায় কক্ষ বুকিং হয়েছে।

কক্সবাজার চেম্বারের দেয়া তথ্যমতে, বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার শহর, ইনানী ও প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিন, বাংলাদেশের একমাত্র পাহাড়ী দ্বীপ মহেশখালীসহ জেলার বিভিন্ন নান্দনিক স্থানে আগামী ৩ দিনে ভ্রমণে আসছে প্রায় ৫ লাখেরও বেশি পর্যটক। এসব এলাকায় পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে কাজ করছে পুলিশ ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা।

কক্সবাজার চেম্বার অফ কমার্সের সভাপতি আবু মোর্শেদ চৌধুরী খোকা জানান, স্বাস্থ্যবিধি মেনে করোনাকালীন সময়ে অবস্থার উত্তরণ ঘটাতে পারলে পর্যটনের চলমান অর্থনৈতিক চাকা সচল রাখতে পারব। তবে করোনার ভীতি হ্রাস পাওয়ায় মৌসুমের শেষ দিকে পর্যটন নগরী কক্সবাজারে প্রায় ১০ লাখ পর্যটক আগমন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এতে কক্সবাজার পর্যটন ব্যবসায় আবারও নতুন করে আলোর মুখ দেখবে।

কক্সবাজার ট্যুরিষ্ট পুলিশের এসপি মোহাম্মদ জিল্লুর রহমান জানান, পর্যটকদের সেবা দিতে ট্যুরিষ্ট পুলিশ সার্বক্ষনিক কাজ করছে। ২১ ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে কক্সবাজারের বাহির থেকে অতিরিক্ত টিম আনা হয়েছে। তাদেরকে বিভিন্ন পর্যটন স্থানে কয়েকটি গ্রুপ করে দেয়া হয়েছে। তারা পর্যটকদের সেবায় কাজ করছে।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মামুনুর রশিদ জানান, হোটেল ব্যবসায়ীদের পর্যটকদের সেবার মান বাড়ানোসহ সব ধরনের সহযোগিতা প্রদানের জন্য জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। আশা করছি অতীতের ন্যায় তারা সেভাবে প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তিনি আরও জানান, কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের একাধিক মোবাইল টিম পর্যটন এলাকায় দায়িত্ব পালন করছেন।

অন্যদিকে, বিপুল সংখ্যক পর্যটকের আগমনে কর্মব্যস্ততা বেড়েছে সৈকত এলাকার ফটোগ্রাফার, জেডস্কি ও বিচ বাইক চালকদের। একই সঙ্গে জমজমাট ব্যবসা শুরু হয়েছে বার্মিজ মার্কেটগুলোতে। ক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড়ে পণ্যের কেনাবেচায় সরগরম হওয়ার অপেক্ষায় শপিংমলগুলো।

আরো সংবাদ