করোনায় দাতা সংস্থাগুলোর উদ্যোগে বিশ্ব শরণার্থী দিবস পালন - কক্সবাজার কন্ঠ । কক্সবাজারের মুখপত্র

রোববার, ১২ জুলাই ২০২০ ২৮ আষাঢ়, ১৪২৭

প্রকাশ :  ২০২০-০৬-২০ ০৯:১৬:৫৫

করোনায় দাতা সংস্থাগুলোর উদ্যোগে বিশ্ব শরণার্থী দিবস পালন

কক্সবাজার কন্ঠ ডেস্ক : বাংলাদেশে অবস্থানরত শরণার্থী ও তাদের আশ্রয়দাতা বাংলাদেশী জনগোষ্ঠীর সঙ্গে সংহতি প্রকাশের জন্য প্রতিবছর ২০ জুন বিশ্ব শরণার্থী দিবসটি পালিত হয়ে আসছে। আজ রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর পাশাপাশি সারা বিশ্বের শরণার্থীদের টিকে থাকার সংগ্রামকে স্মরণ ও সম্মান জানাতে কক্সবাজারের মানবিক সহায়তা প্রদানকারী সংস্থাগুলো দিনটি একসঙ্গে পালন করছে।

কক্সবাজারে প্রায় আট লক্ষ ষাট হাজার রোহিঙ্গা শরণার্থী রয়েছেন যার ৮০ শতাংশই নারী এবং শিশু। রোহিঙ্গা শরণার্থীরা ভয়াবহ নির্যাতন ও সহিংসতা থেকে পালিয়ে দীর্ঘ, বিপজ্জনক ও কঠিন পথ পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশে সুরক্ষার আশায় আশ্রয় নিয়ে ছিলেন। শুরু থেকেই স্থানীয় জনগণ তাদের সহযোগিতা করে যে উদারতা দেখিয়েছেন তা এখনও তা অব্যাহত রয়েছে। নিজেদের সামান্য সংস্থানগুলি পর্যন্ত শরণার্থীদের সঙ্গে সহযোগিতা করে নিয়ে ছিলেন; যাদের জন্য এটি ভীষন প্রয়োজন ছিল।

ইন্টার সেক্টর কো-অর্ডিনেশন গ্রুপ (আইএসসিজি)-এর অংশীদার জাতিসংঘ ও এনজিওগুলো সহস্রাধিক রোহিঙ্গা শরণার্থী ও ক্ষতিগ্রস্থ বাংলাদেশী জনগোষ্ঠীর জীবনরক্ষায় প্রতিদিন সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে। আইএসসিজি’র সিনিয়র কো-অর্ডিনেটর, নিকোল এপটিং বলেন, অংশীদাররা মানবিক সহায়তাগুলো আরও উদ্ভাবনী উপায়ে সম্পৃক্ত করার জন্য শরণার্থী ও স্থানীয় জনগোষ্ঠীর সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে, এবং সহায়তাগুলি যাদের সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন তাদের অন্তর্ভুক্তির ব্যাপারে গুরুত্ব দিচ্ছে। তবে, বাংলাদেশের রোহিঙ্গা মানবিক সংকট মোকাবেলায়, দায়িত্বের বোঝা ভাগ করে নিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের আরও সহযোগিতা প্রয়োজন। বিশেষ করে, কোভিড ১৯ মহামারীর এই চ্যালেঞ্জিং সময়টি যখন পরিস্থিতিকে আরো জটিলতর করে তুলেছে।

নিকোল এপটিং আরও বলেন, বর্তমানে সারা পৃথিবীতেই জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত মানুষের সংখ্যা ক্রমশ বেড়েই চলেছে। যে কারনে দীর্ঘস্থায়ী সমাধান আরো বেশি কঠিন হয়ে যাচ্ছে। চলমান সংকটের কারনেই শরণার্থীরা নিজ দেশে ফিরে যেতে পারছেন না। দ্বন্দ ও সংঘাতের কারনে যারা সবকিছু হারিয়েছেন তাদের আশ্রয় ও সুরক্ষা দিতে, আমরা সমগ্র বিশ্বের সরকার ও সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

শরণার্থীরা অন্য সবার মতো মানুষ। হয় তারা পুরুষ, নারী, শিশু কিংবা প্রবীণ। তারা সঙ্গে করে প্রচুর জ্ঞান আর দক্ষতা নিয়ে এসেছিলেন এবং সঠিক সময়ে নিজেদের ঠিকানায় সুরক্ষাসহ মর্যাদা নিয়ে ফিরে যাওয়ার স্বপ্ন দেখেন। আজ তাদের জন্য আমাদের সহযোগিতা প্রয়োজন। বিশ্ব শরণার্থী দিবসে আসুন আমরা আমাদের সহজাত মনবিকতাকে পুন:জাগ্রত করি এবং বৈচিত্রকে উদযাপন করি। আপনি কে বা কোথা থেকে এসেছেন সেটি মূখ্য নয়। আমরা প্রত্যেকেই কিছুনা কিছু অবদান রাখতে পারি। প্রতিটি পদক্ষেপ’ই অর্থবহ।

বিশ্ব শরনার্থী দিবসের পেক্ষাপট : ২০০০ সালের ৪ ডিসেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে ৫৫/৭৬ ভোটে অনুমোদিত হয় যে, ২০ জুন আন্তর্জাতিক শরণার্থী দিবস হিসেবে পালন করা হবে। এ কারণে এ দিনটি নির্ধারণ করা হয় যে, ১৯৫১ সালে অনুষ্ঠিত শরণার্থীদের অবস্থান নির্ণয় বিষয়ক কনভেনশনের ৫০ বছর পূর্তি হয় ২০০১ সালে। বিশ্ব শরণার্থী দিবস বিশ্বব্যাপী লক্ষ লক্ষ শরণার্থীর মনোবল, সাহস এবং টিকে থাকার সক্ষমতাকে সম্মানের সাথে স্মরণ করার জন্য। সূত্র- আইএসসিজি।

আরো সংবাদ