করোনায় বিপর্যস্ত পর্যটন খাত : ক্ষতি পোষাতে লাগবে - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২ ডিসেম্বর ২০২০ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-১০-২৮ ০৮:২১:৩৬

করোনায় বিপর্যস্ত পর্যটন খাত : ক্ষতি পোষাতে লাগবে

করোনায় বিপর্যস্ত পর্যটন খাত: ক্ষতি পোষাতে লাগবে ২ বছর

সারাক্ষণ :  বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসের কারণে স্থবির দেশের পর্যটন শিল্প। জুনের পর রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি, কক্সবাজারসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে কিছু হোটেল খুললেও আশানুরূপ পর্যটক নেই। কথা বলে জানা গেছে, বেশিরভাগ হোটেল, মোটেল এখনও ফাঁকা। করোনার প্রকোপ কমলে শীতে অবস্থার উন্নতির আশা সংশ্লিষ্টদের। তবে শীতে করোনা বাড়লে দীর্ঘমেয়াদী সংকটে পড়বেন খাত সংশ্লিষ্টরা।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, পর্যটন শিল্পে সংশ্লিষ্ট রয়েছে ১০০ টির বেশী উপখাত। করোনার কারণে পর্যটন খাতে ক্ষয়-ক্ষতি সূক্ষ্ণভাবে নিরূপন করা সম্ভব না। তবে তাদের ধারণা, এই ক্ষতির পরিমান ১০ থেকে ১৫ হাজার কোটির টাকার বেশি। এই ক্ষতি পোষাতে সব কিছু ঠিক হবার পর আরো দুই বছর সময় লাগবে, অনুমান করছেন খাত সংশ্লিষ্টরা। তারা বলছেন, ক্ষতি কমাতে উদ্যোক্তাদের স্বল্পসুদে ঋণের ব্যবস্থা করে দিতে হবে।

গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর থেকেই অভ্যন্তরীণ পর্যটন খাত অচল হয়ে পড়ে। ২৬ মার্চ সাধারণ ছুটি ঘোষণা হওয়ার পর দেশের পর্যটন স্পট, হোটেল, মোটেল সবই স্থবির হয়ে পড়ে। তবে দেশের করোনা পরিস্থিতি খারাপ হওয়ায় ও দীর্ঘদিন সাধারণ ছুটি চলায় প্রতিদিন লোকসান গুনেতে হচ্ছে খাত সংশ্লিষ্টদের।

একই সময়ে বাতিল হয়েছে আউটবাউন্ড, ইনবাউন্ড ও আভ্যন্তরীণ পর্যটনের শতভাগ বুকিং। আর তাই জীবিকা নিয়ে গভীর অনিশ্চয়তায় রয়েছেন ট্যুর অপারেটর, ট্রাভেল এজেন্ট, হোটেল, মোটেল, রিসোর্ট, রেস্তোরা, এয়ারলাইন্স, পর্যটক পরিবহন, ক্রুজিং ও গাইডিং সংশ্লিষ্ট কয়েকলাখ পেশাজীবী মানুষ।

ওয়ার্ল্ড ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজম কাউন্সিল (ডব্লিউটিটিসি) বলছে, বাংলাদেশের জিডিপিতে ২০১৯ সালে পর্যটনের অবদান ছিল ৭৭ হাজার ৩০০ কোটি টাকা। তবে এবার মুজিববর্ষ উদযাপন করতে বিগত বছরের তুলনায় আরো বেশী পর্যটক আসার কথা ছিল। করোনার কারণে মুজিবর্ষের সব অনুষ্ঠান বাতিল হয়। এখনও বিভিন্ন দেশের সঙ্গে বিমান যোগাযোগ ও বন্ধ আছে। এতে বিপুল পরিমান আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে দেশের পর্যটন খাতের।

কক্সবাজারের হোটেল সি নাইটের ম্যানেজার মঞ্জুরুল আলম সারাক্ষণ’কে বলেন, পর্যটক এখনও আসছে। এটা ও যদি অব্যাহত থাকে তাহলে ভালো। আমরা অনেক লস দিয়েছি। অনেক কর্মচারীকে ছাঁটাই করেছি। পরিস্থিতি ভালো হলে তাদের আবার কাজে নেব।

ঢাকার বিভিন্ন ৪ ও ৫ তারকা হোটেলের ম্যানেজারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, নিয়মিত ভ্রমণের বাইরে বিভিন্ন কনফারেন্স, সেমিনার, ইভেন্ট কিংবা ফেয়ার আয়োজন করে হোটেলগুলো। কিন্তু করোনার কারণে ৬-৭ মাস ধরে এই আয়োজনগুলো বন্ধ। এতে হোটেলের আয় অনেক কমেছে। মার্চের পরে এক দুই মাস পর্যটকহীন ছিল বেশ কিছু হোটেল।

এ প্রসঙ্গে ট্যুরিজম ডেভলপার এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (টিডাব) সভাপতি সৈয়দ হাবীব আলী সারাক্ষণ’কে বলেন, ‘গত জানুয়ারি থেকেই আমাদের ট্যুরিজমে প্রভাব পড়তে শুরু হয়েছে। সেটা চলমান আছে।’

সৈয়দ হাবীব বলেন, ‘করোনার কারণে পর্যটন খাতে ক্ষয়-ক্ষতির নিরূপণ মুশকিল। কেননা এর সঙ্গে অন্য অনেক খাত জড়িত। আবার করোনা শেষ হবে কবে সেটাও বল মুশকিল।’

তিনি বলেন, শুধুমাত্র বিমানেই প্রতিমাসে সাড়ে ৫০০ থেকে ৬০০ কোটি টাকার টিকেট বিক্রি হত। সেটা তো বন্ধ আছে। এই টিকেটের উপর নির্ভর করে ট্রাভেল এজেন্ট, ট্যুর অপারেটররা বেঁচে থাকতো। আবার হোটেল মোটেল সেক্টরে একটা বড় ক্ষতি হয়েছে। কক্সবাজারে বিভিন্ন মানের প্রায় তিন শতাধিক হোটেল আছে। আবার ঢাকার ৪ তারকা, ৫ তারকা হোটেলগুলোও লোকসান গুনছে। আমাদের এখানে ক্ষয় ক্ষতির পরিমাণ বিরাট। এখন সবাই নিজেদের ক্ষতির হিসাব কষছে। ’

করোনার ক্ষতি পোষাতে ছোট-বড় উদ্যোক্তাদের জন্য প্রায় এক লাখ কোটি টাকার বিভিন্ন প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রণোদনার প্রসঙ্গে সৈয়দ হাবীব আলী বলেন, আমরা ইতোমধ্যেই বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের সঙ্গে কথা বলেছি।

তিনি বলেন, ‘করোনার কারণে আমাদের এভিয়েশন খাতের অবস্থা নাজুক। সরকার এক হাজার কোটি টাকা দিয়েছে। তবে বেসরকারি এয়ারলাইন্সগুলোকে সহযোগিতা দিতে হবে।’

এই ক্ষতি কিভাবে পুষবে এমন প্রশ্নের জবাবে টিডাব সভাপতি বলেন, ‘২০১৬ সালে হলি আর্টিজনে হামলার পর দেশের ট্যুরিজম খাতের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছিল। সেটা থেকে উত্তরণে আমাদের ছয় মাস থেকে এক বছর সময় লেগেছিল। কিন্তু সেটা ছিলো আমাদের দেশের সমস্যা। আর করোনা পুরো দুনিয়ার সমস্যা।’ তিনি বলেন, ‘সব কিছু ঠিক হলে আর দেশের চলমান ডেভলপমেন্ট প্রকল্পগুলোর কাজ শুরু হলে কিছুটা আশার আলো দেখবে দেশের ট্যুরিজম খাত।’

করোনা ক্ষতি পোষাতে কত সময় লাগতে পারে এমন প্রশ্নের জবাবে টিডাব সভাপতি বলেন, ‘এইখানে দুইটা জিনিস হবে। করোনা আমাদের দেশে ভালো হয়েছে- অন্যদের হয়নি, আবার অন্যদের ভালো হয়নি- আমাদের হয়েছে, তাতে আসলে ট্যুরিজমের উন্নতি হবে না। সবার পরিস্থিতির উন্নতি হলেই কেবল এ খাতে আস্থা ফিরবে। এক্ষেত্রে প্রতিষেধক বের হওয়া জরুরি। যতদিন ভ্যাক্সিন না বের হবে ততদিন আসলে মানুষের আস্থা আসবে না।’

তিনি বলেন, ‘আমরা ধরে নিচ্ছি নতুন বছরের জানুয়ারি থেকে পরিস্থিতি ঠিক হবে। আমাদের ধারণা, ‘আরো অন্তত দু’ বছর লাগবে করোনার ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে। ট্যুরিজম খাতের ক্ষতি সবার আগে শুরু হলেও উঠবে সবার শেষে। তাও নির্ভর করবে বৈশ্বিক অবস্থার উপরে।’

আরো সংবাদ