করোনায় রমরমা প্রযুক্তি পণ্যের ব্যবসা - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১ ৬ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বুধবার

প্রকাশ :  ২০২০-১২-০১ ০৭:১৩:৫৫

করোনায় রমরমা প্রযুক্তি পণ্যের ব্যবসা

করোনায় রমরমা প্রযুক্তি পণ্যের ব্যবসা

করোনা মহামারিতে ‘ওয়ার্ক ফ্রম হোম’ শুরু হওয়ার কারণে প্রযুক্তি পণ্যের চাহিদা বেড়েছে। বিশেষ করে অনলাইনে মিটিং করার জন্য যেসব পণ্যের দরকার হয়, সেগুলোর চাহিদা বেড়েছে সবচেয়ে বেশি

দেশের সর্ববৃহৎ ‍দুই প্রযুক্তি পণ্যের মার্কেট এলিফ্যান্ট রোডের মাল্টিপ্ল্যান কম্পিউটার সিটি সেন্টার এবং আগারগাঁয়ের আইডিবি ভবনের বিসিএস কম্পিউটার সিটির ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, করোনা মহামারিতে ‘ওয়ার্ক ফ্রম হোম’ শুরু হওয়ার কারণে প্রযুক্তি পণ্যের চাহিদা বেড়েছে। বিশেষ করে অনলাইনে মিটিং করার জন্য যেসব পণ্যের দরকার হয়, সেগুলোর চাহিদা বেড়েছে সবচেয়ে বেশি।

মাল্টিপ্ল্যান কম্পিউটার সিটি সেন্টারের ব্যবসায়ী এনামুল হক সারাক্ষণকে বলেন, ‘হাইকনফিগারেশন ল্যাপটপ, ওয়েবক্যাম, রাউটার, ক্যামেরা বসানোর ট্রাইপড এবং লাইট সেটের ব্যবসা কয়েকগুণ বেড়েছে। শিক্ষকরা বাসা থেকে ক্লাস নিচ্ছেন, শিক্ষার্থীরা ক্লাস করছে এবং অন্য পেশার মানুষরা বাসায় বা অফিসে বসে অনলাইনে মিটিং করছেন বেশি। এ কারণে এসব পণ্যের চাহিদা বেড়েছে।’

এ প্রসঙ্গে মাল্টিপ্ল্যান সেন্টারের সাধারণ সম্পাদক সুব্রত সরকার বলেন, ‘ল্যাপটপের পাশাপাশি বেশি বিক্রি হচ্ছে ডেস্কটপ কম্পিউটার, ওয়েবক্যাম, রাউটার, হেডফোন, ট্রাইপড ইত্যাদি। এখন ইতিহাসের রেকর্ড সংখ্যক মানুষ মার্কেটে আসছে। লকডাউনের পরে একদিনে সর্বোচ্চ ১৭ হাজার মানুষ মার্কেটে প্রবেশ করেছে। এরমধ্যে ৫ হাজারের মতো হলো দোকান মালিক ও বিক্রয়কর্মী। ক্রেতার সংখ্যা ছিল ১০ হাজারের বেশি। এখনও প্রতিদিন ১২-১৩ হাজার মানুষ মার্কেটে আসে। এরমধ্যে ৭-৮ হাজার ক্রেতা। করোনার আগে এই সংখ্যা ছিল পাঁচ হাজারের মতো।’

মাইক্রোসফটের অ্যাকটিভেশন তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে বাংলাদেশে ১৫ হাজার ৮৩৭টি নতুন ল্যাপটপ মাইক্রোসফট অপারেটিং সিস্টেম নিয়ে ইন্টারনেটে সচল হয়। এরপর বিক্রি কমতে কমতে এপ্রিলে নেমে আসে ২ হাজারে। তবে জুনে ২০ হাজার ৭৮৭টি নতুন ল্যাপটপ সচল হয়। জুলাইতে আবার রেকর্ড সংখ্যাক, ২৬ হাজার ১৪৮টি নতুন ল্যাপটপ সচল হয়, তবে আগষ্ট থেকে বিক্রি আবারও নিম্নমুখী হয়ে যায়।

এই সংখ্যার সঙ্গে অন্তত ২০ শতাংশ বেশি ধরে মোট ল্যাপটপ বিক্রির হিসাব করা হয়। ওই পরিমাণ ল্যাপটপ অন্য অপারেটিং সিস্টেমে চলে।

আশানুরূপ প্রবৃদ্ধি হয়েছে মোবাইল বিক্রিতেও। সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয়েছে কম দামের ভাল কনফিগারেশনের স্মার্টফোনের।

এ প্রসঙ্গে মতিঝিলের স্নেহা মোবাইল পয়েন্টের স্বত্বাধিকারী সবুজ হাসান সারাক্ষণকে বলেন, ‘জুন থেকে শুরু করে চলতি মাস পর্যন্ত ব্যবসা উর্ধ্বমুখী। তবে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয়েছিল জুলাই মাসে। ভাল বিক্রির কারণে আমরা আগষ্ট মাসে অপো মোবাইলের সিলভার পার্টনার হয়েছি।’

সিলভার পার্টনার হওয়ার ব্যপারে তিনি বলেন, ‘এক মাসে কোম্পানির সবগুলো মডেল মিলে অন্তত ২৫০ ইউনিট বিক্রি করতে হয়। অর্থাৎ গড়ে প্রতিদিন ১০ টি করে মোবাইল সেট বিক্রি করতে হয়। জুলাই থেকে এখন পর্যন্ত আমাদের বিক্রি এর চাইতে বেশি।’

এসব পণ্যের সাথে সফটওয়ারের ব্যবসাও বেড়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। এ প্রসঙ্গে সফট হ্যাভেন লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুল্লাহ জুনাইদ সারাক্ষণকে বলেন, ‘এখন বাধ্য হয়ে সবাই অনলাইনে ঝুঁকছে। যে কোন ব্যবসা থেকে শুরু করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, ক্লিনিক সবাই এই পথে হাঁটছে। এ কারণে সব সফটওয়্যারের ব্যবসা বেড়েছে। কাজের চাপ সামাল দিতে আমরা আমাদের পুরাতন কর্মীদের বাইরেও কিছু খণ্ডকালীন চুক্তিভিত্তিক কর্মী নিয়োগ দিয়েছি।’

কম সরবরাহের অযুহাতে দাম বেড়েছে

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রযুক্তি বাজারের প্রায় প্রতিটি পণ্যেরই দাম বেড়েছে। কোন কোন পণ্যের দাম দ্বিগুণ পর্যন্ত বেড়েছে। যেমন: সবচেয়ে নিম্নমানের কম্পিউটার কিবোর্ড এখন পাওয়া যাচ্ছে ৩০০ টাকায়। আগে একই পণ্য পাওয়া যেত ১৫০ টাকায়। পণ্যভেদে ল্যাপটপের দাম বেড়েছে ৫-১০ হাজার টাকা, মনিটর, সিপিইউ, ইউপিএসসহ সব পণ্যের দামই বেড়েছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে গ্রিন টেক কম্পিউটারের সত্বাধিকারি জাহাঙ্গির আলম সারাক্ষনকে বলেন, ‘এখন সব পণ্যেরই সরবরাহ সমস্যা আছে। শিপিং খরচ বেড়েছে। আবার চীনেও কোন কোন পণ্যের দাম বেড়েছে। একারণে বাজারে দাম বেড়েছে। আবার সব পণ্য এভেইলেবল পাবেনও না।’

সংশ্লিষ্টরা বলছেন বাজারে কম দামের মধ্যে ল্যাপটপের প্রকৃতই সংকট রয়েছে। আর এধরনের ল্যাপটপের ক্রেতাই সব থেকে বেশি।

অনলাইনে বিক্রির সঙ্গে বেড়েছে প্রতারণা

করোনা মহামারির সময়ে অনলাইনে বিক্রি বেড়েছে। ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ’র (ই-ক্যাব) তথ্যমতে, অনলাইন বাজারের আকার ২০২০ এ দাঁড়িয়েছে প্রায় ১৬ হাজার ৬শ ১৬ কোটি টাকা। ২০১৯ সালে এর আকার ছিল ১৩ হাজার কোটি টাকার মতো। এর মধ্যে প্রযুক্তি পণ্যের বাজার কতো টাকার তা নির্দিষ্ট করে জানা না গেলেও, সংশ্লিষ্টরা বলছেন অনলাইনেও প্রযুক্তি পণ্যের বিপুল বিক্রি হচ্ছে। বিশেষ করে স্মার্টফোন, হেডফোন, ট্রাইপডের মতো তুলনামূলক কম দামের পণ্যের বিক্রি অনলাইনে বেড়েছে।

এতে অনেক সময় ক্রেতারা প্রতারিত হচ্ছেন। সম্প্রতি অনলাইনে মোবাইল অর্ডার করে কাঠের টুকরা পাওয়ার ঘটনায় কয়েকজনকে গ্রেফতার করেছে আইনশৃংখলা বাহিনী। আবার অনলাইনে অর্ডার করে পণ্য না পাওয়ার ঘটনাও আছে অহরহ।

এ প্রসঙ্গে ধানমন্ডির একটি বেসরকারি স্কুলের প্রধান শিক্ষক নাম প্রকাশ না করার শর্তে সারাক্ষণকে বলেন, ‘জুন মাসে একটি ই-কমার্সে কম দামের অফার পেয়ে ২০টি স্যামসাং মোবাইলের অর্ডার দিয়েছিলাম। তারা সাত দিনের মধ্যে পণ্য ডেলিভারি দিবে বলেছিল। মোবাইলগুলো আমাদের শিক্ষকদের ক্লাস নেয়ার জন্য দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু ২০ দিন পরেও না পেয়ে বাইরে থেকে মোবাইল কিনতে হয়। পরে অবশ্য তারা টাকার পরিবর্তে চেক দিয়েছে।’

প্রযুক্তি পণ্য বিক্রির অনলাইন প্রতিষ্ঠান বি-পোর্ট এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাসুদ আজিজ এ বিষয়ে বলেন, ‘ক্রেতারা সবচেয়ে বেশি প্রতারিত হন মান নিয়ে। দেখা গেল একটি হেড ফোনের অর্ডার দিলেন কিন্তু হাতে পাওয়ার পরে দেখলেন নকল পণ্য। আবার একটি ট্রাইপড অর্ডার দিলেন কিন্তু হাতে পাওয়ার পরে দেখা গেল একাংশ নষ্ট বা যে পণ্যের ছবি দেখানো হয়েছে সে পণ্য নয়। এ কারণে নির্ভরযোগ্য প্রতিষ্ঠান ছাড়া পণ্য না কেনাই ভাল।’

আরো সংবাদ