করোনায় সশস্ত্র বাহিনীর সেবা বিশ্বে দৃষ্টান্ত-প্রধানমন্ত্রী - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০ ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-১০-২৮ ০৮:২৬:৩৭

করোনায় সশস্ত্র বাহিনীর সেবা বিশ্বে দৃষ্টান্ত-প্রধানমন্ত্রী

করোনায় সশস্ত্র বাহিনীর সেবা বিশ্বে দৃষ্টান্ত-প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক :  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সেনাবাহিনী জনগণের বাহিনী। আমাদের দেশে নানা ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় এ বাহিনীর সদস্যরা কাজ করছেন। সেনাবাহিনী ও নৌবাহিনীর সদস্যদের মাধ্যমে ভূমিহীনদের জন্য কাজ করছে সরকার। একটি মানুষও যাতে ভূমিহীন না থাকে সেভাবে আমরা এগোতে চাই। করোনাকালেও সশস্ত্রবাহিনী যেভাবে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে, তাদের সেবা বিশ্বে একটা দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

বুধবার (২৮ অক্টোবর) গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর আটটি ইউনিট ও সংস্থাকে জাতীয় পতাকা প্রদান অনুষ্ঠান তিনি এসব কথা বলেন। সরকারপ্রধান বলেন, দেশ ও জাতির প্রতি দায়িত্ব ও কর্তব্যবোধ থেকেই আপনারা কাজ করবেন। আপনারা যেখানেই যান সামাজিক কাজ করেন। অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ান, তাদের সেবা করেন।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ দেশকে ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত হিসেবে গড়ে তুলতে চেয়েছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। জনগণের পাশে দাঁড়ানোর জন্য তিনি সশস্ত্রবাহিনী গড়ে তোলেন। তাদের ট্রেনিং ও অস্ত্রের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। ১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধু প্রতিরক্ষা নীতিমালা করে যান। দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় নিয়েছিলেন পদক্ষেপ। প্রত্যেকটা বাহিনীর জন্য বন্ধুপ্রতিম দেশগুলোর সহযোগিতা নিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধু প্রতিরক্ষায় যে নীতিমালা দিয়ে গেছেন ৯৬ সালে সরকারে আসার পর আমরা সশস্ত্রবাহিনীর জন্য বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ করি।

শেখ হাসিনা বলেন, করোনা ভাইরাসের প্রভাবে সারাবিশ্ব স্থবির হয়ে পড়েছে। এ পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ যাতে অর্থনৈতিক কবলে না পড়ে সে বিষয়ে আমরা পদক্ষেপ নিয়েছি। আমাদের অর্থনৈতিক চাকা সচল রাখতে সক্ষম হয়েছি। আমাদের লক্ষ্য বাংলাদেশ সম্পূর্ণ দারিদ্রমুক্ত হবে। ২০২১ আমাদের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী। এর মধ্যে নানা রকম উন্নয়ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছি। কিন্তু করোনায় এসব কাজ বন্ধ হয়ে যায়। এরপরও আমরা এসব উন্নয়ন কাজ অব্যাহত রাখতে চাই।

তিনি বলেন, ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ উন্নত হতে পারে। ব-দ্বীপ এলাকায় সার্বিক উন্নয়নের জন্য ডেলটা প্ল্যান ২১০০ পরিকল্পনা দিয়েছি। এতে ভবিষ্যত বংশধররাও সুন্দরভাবে জীবন পার করতে পারবে। এরই মধ্যে প্রত্যেক ঘরে ঘরে আলো জ্বালানোর ব্যবস্থা করেছি। কেউই বিদ্যুৎবিহীন থাকবে না।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, শীতে করোনার আরেকটি ধাক্কা আসতে পারে। এরই মধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয়ে গেছে। তাই আমাদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। সবাইকে মাস্কসহ সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনে দায়িত্ব পালন করতে হবে।

আরো সংবাদ