কুতুবজোমের যুবলীগ সভাপতি ইয়াবা ডিলার : থানায় মামলা - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ৬ ডিসেম্বর ২০২০ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০৭-১৫ ১০:০৫:০৭

কুতুবজোমের যুবলীগ সভাপতি ইয়াবা ডিলার : থানায় মামলা

নিউজ ডেস্ক :  পুরো নাম কিবরিয়া সিকদার। এতদিন পরিচয় ছিল কুতুবজোম ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি। গত ৫ জুলাই জানা গেল আরেক ভয়ংকর গোপন পরিচয়। কিবরিয়া সিকদার ইয়াবা কারবারিতে জড়িত। যে কারণে স্থানীয়রা তাকে ‘ইয়াবার ডিলার’ হিসেবে চেনে। মহেশখালী থানায় রেকর্ড হওয়া ৫ নম্বর মামলায় আসামী নম্বর ৭।
স্বীকারোক্তি মতে, সহযোগিসহ পালিয়ে যাওয়া আসামী কিবরিয়ার কাছে ইয়াবা আছে। যা এখনো উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ। তাকে গ্রেফতার এবং ইয়াবা উদ্ধারে পুলিশ এখনো মরিয়া। জানা গেছে গত ৫ জুলাই গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বড় মহেশখালী ইউনিয়নের (৮নং ওয়ার্ডের) পূর্ব ফকিরা ঘোনার বাসিন্দা গিয়াস উদ্দিনের বাড়িতে মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান চালায় মহেশখালী থানা পুলিশ। পুলিশের অভিযান টের পেয়ে তিন/চারজন লোক পালিয়ে যায়। গিয়াস উদ্দিনের নির্মাণাধীন বাড়ির দক্ষিণ কক্ষ থেকে ফাতেমা বেগম, গিয়াস উদ্দিন ও আমানুল করিমকে আটক করে পুলিশ।
ইয়াবা ব্যবসায়ী ফাতেমা, গিয়াস উদ্দিন ও আমানুল করিমকে তল্লাসী করে মাদক বিক্রির ১৪,৩৪০ টাকাসহ মোট ৮৩০ ইয়াবা এবং ৫০ পুরিয়া গাঁজা জব্দ করে পুলিশ। উদ্ধারকৃত ইয়াবাগুলো এ্যামফিটামিন সমৃদ্ধ বলে উল্লেখ করা হয়।
পরে গ্রেফতারকৃত তিনজন আসামী সাক্ষীদের সম্মুখে জিজ্ঞাসাবাদে আসামীরা স্বীকারোক্তি দেয়। পালিয়ে যাওয়া ব্যক্তিরা হলো- কুতুবজোম দৈলার পাড়া ৬নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মৃত মৌলভী মুহিবুল্লাহ পুত্র শান্ত ওরফে কালা মুন, হাজী জালাল আহমদের পুত্র সালাহ উদ্দিন (পুটিবিলার আওয়ামী লীগ নেতা আবু বক্কর হত্যার প্রধান আসামী) ও আনসারুল সিকদারের পুত্র কিবরিয়া সিকদার। তাদের সবার বাড়ি একই এলাকায় দৈলারপাড়ায়। এজাহারানুযায়ী ধৃত ব্যক্তিরা সাক্ষী দেয়, পালিয়ে যাওয়া ওই তিনজন এবং এরা স্থানীয় ইয়াবার ডিলার। আবদু শুক্কুরের পুত্র আমান উল্লাহ এজেন্ট।
কুতুবজোম ইউনিয়নের যুবলীগের অনেকের সাথে কথা হলে জানান, কিবরিয়া বিলাসী জীবনযাপনে অভ্যস্ত। তার এই জীবন যাপন এলাকার অনেকের কাছে প্রশ্নবিদ্ধ।তাদের মতে, এখন মন্তব্য করার সময় শেষ। যাই হোক তদন্তে প্রমাণিত হবে সে ইয়াবার ডিলার নাকি নির্দোষ। পুলিশের এজাহারের ভাষ্যানুযায়ী, আসামীদের স্বীকারোক্তি মতে, পাইকারী ধরে বিক্রি করা ব্যক্তিরা হচ্ছে শান্ত ওরফে কালা মনু, সালাহ উদ্দিন, ও কিবরিয়া সিকদার। ক্রয় করা ইয়াবা খুচরাও বিক্রয় করে থাকে। পালিয়ে যাওয়ার সময় ওই তিনজন ব্যক্তির নিকট আরো বিপুল পরিমাণ ইয়াবা ট্যাবলেট ছিল বলে জবানবন্দি দেয়।
তারা পুলিশকে আরো জানান, পালিয়ে যাওয়ার সময় হুড়োহুড়ি করে তাদের দখলে থাকা উদ্ধারকৃত তিন প্যাকেট ইয়াবা ফেলে অবশিষ্ট ইয়াবা গুলো সঙ্গে নিয়ে পালিয়ে যায়।
গ্রেফতারকৃতদের ভাষ্য মতে, পালিয়ে যাওয়া তিনজনই ইয়াবার ডিলার। আমান উল্লাহ এজেন্ট। মহেশখালী উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক সাজেদুল করিম জানান, পুলিশের অভিযান সম্পর্কে জানা নাই। কিবরিয়া সিকদার যে মাদকদ্রব্য মামলার আসামী তিনি তাও জানেন না। কেন জানেন না এবং সাংগঠনিক কি ব্যবস্থা নিয়েছেন জানতে চাইলে তিনি বিভিন্নভাবে ঘুরিয়েফিরিয়ে উত্তর দেন।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আনিস উদ্দিন জানান, অভিযানের পর সাক্ষী, আলামত এবং আসামীদের স্বীকারোক্তি মোতাবেক জনস্বার্থে মাদকদব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের সংশ্লিষ্ট আইনে মামলা করা হয়েছে। বর্তমানে মামলাটি তদন্তাধীন আছে। পাশাপাশি অন্য আসামীদের গ্রেফতারের সর্বোচ্চ চেষ্টা অব্যাহত আছে।
মহেশখালীর থানার ওসি দিদারুল ফেরদৌস সহযোগিতার আহবান করে জানিয়েছেন, সারাদেশে মাদকের বিরুদ্ধে সরকার জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করেছে। মহেশখালীও তা অব্যাহত থাকবে। যে কোনো প্রকার মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান চলছে।সূত্র- কক্স ৭১ ডটকম।

আরো সংবাদ