কেন হারলেন মৌসুমী? - Coxsbazarkontho.com | Newspaper

মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯ ২৭শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মঙ্গলবার

প্রকাশ :  ২০১৯-১০-২৬ ১৯:৩৮:৩৮

কেন হারলেন মৌসুমী?

প্রিয়দর্শিনী চিত্রনায়িকা মৌসুমী অসংখ্য জনপ্রিয় সিনেমায় অভিনয় করে মুগ্ধ করেছেন ভক্তদের। একাধিকবার তার হাতে উঠেছে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। চলচ্চিত্রে অভিনয়ের পাশাপাশি চলচ্চিত্র পরিচালনা ও প্রযোজনা করেছেন তিনি। এ ছাড়া নাটকেও অভিনয় করেছেন। দেশব্যাপী রয়েছে তার অসংখ্য ভক্ত।

জনপ্রিয় এই অভিনেত্রী এবারের শিল্পী সমিতির নির্বাচনে সভাপতি পদে নির্বাচন করে জয়ের দেখা পাননি। নির্বাচনে মৌসুমী জয় লাভ করলে তৈরি হতো নতুন ইতিহাস! শিল্পী সমিতির যাত্রা শুরুর পর এবারেই প্রথমবার পেতো কোনো নারী নেতৃত্ব!

নির্বাচনে অংশ নেয়ার পর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভক্তরা তাকে নিয়ে বিভিন্ন পোস্ট দিয়ে পাশে থেকেছেন। ভক্তদের আবেগ এতটাই ছিল যে ভোট গণনার আগেই বিজয়ের শুভেচ্ছায় ভাসিয়েছেন তাকে। কিন্তু ভক্তদের ভালোবাসায় সিক্ত হলেও চলচ্চিত্র শিল্পের ভোটারগণ তাকে নিরাশ করেছেন। ২২৭ ভোট পেয়ে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মিশা সওদাগর। মৌসুমী পেয়েছেন ১২৫ ভোট।

Advertisements

কেন হেরে গেলেন মৌসুমী জানতে চাইলে ওমর সানি রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি প্রকৃত শিল্পীরা মৌসুমীকে ভোট দিয়েছেন। কিন্তু শিল্পী সমিতিতে আরো দুইটা অংশ রয়েছে। নৃত্যশিল্পী ও ফাইটের লোকজন। এদের মধ্যে ফাইটের যে গ্রুপটা রয়েছে তাদের কাছ থেকে আমরা ভোট পাইনি। এরা নির্বাচনের সময় সবাই মিলে এক হয়ে যায়। এদেরকে কিভাবে তারা ম্যানেজ করেছে সেটা আমি বলতে চাই না। হেরে যাওয়ার এটা অন্যতম কারণ। তারপরও বলবো যারা বিজয়ী হয়েছেন তাদেরকে আমার পক্ষ থেকে অভিনন্দন। আশা করছি তারা ভালো কাজ করবেন।’

Advertisements

এদিকে নির্বাচনের শুরু থেকেই মৌসুমীর পাশে ছিলেন চিত্রনায়িকা পপি। তার হয়ে প্রচার-প্রচারণাও অংশ নেন পপি। রাতভর মৌসুমীর সঙ্গে থেকে ফলাফলের জন্য অপেক্ষাও করেছেন তিনি। নির্বাচনে মৌসুমীর হেরে যাওয়ার কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘শিল্পী সমিতির নির্বাচন ছিল ভালোবাসার নির্বাচন। এখন আর তা নেই। এখন টাকার হয়ে গেছে। শুনেছি টাকা দিয়ে ভোট কেনা হয়েছে। এমনকি অনেক ভোটারকে ধর্মগ্রন্থ দিয়েও শপথ করানো হয়েছে। এ কারণেই মৌসুমী আপা হেরেছেন।’

এবার ২১টি পদের বিপরীতে ২৭ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। মোট ভোটার ৪৪৯ জন। এর মধ্যে ভোট দিয়েছেন ৩৮৫ জন। শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হয়ে বিকেল ৫টায় শেষ হয়।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
নভেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০