গণহত্যার বিচার: রোহিঙ্গারা ন্যায়বিচারে আশাবাদী - Coxsbazarkontho.com

শনিবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২০ ১১ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০১৯-১২-১১ ০৯:৩২:০৫

গণহত্যার বিচার: রোহিঙ্গারা ন্যায়বিচারে আশাবাদী

বিশেষ প্রতিবেদক: মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলিম সংখ্যালঘুদের ওপর দেশটির সেনাবাহিনীর গণহত্যার অভিযোগে নেদারল্যান্ডের হেগে ‘আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালতে (আইসিজে)’ বিচারকার্য শুরু হওয়ায় ন্যায়বিচার পাওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করছেন রোহিঙ্গারা।

রোহিঙ্গারা জানিয়েছেন, আদালতে ন্যায়বিচার নিশ্চিত হলে তারা নাগরিকত্ব ফিরে পাওয়াসহ মিয়ানমারে ফিরতে পারবে। এ জন্য বাংলাদেশে আশ্রয় গ্রহণকারি রোহিঙ্গারা তাকিয়ে আছে আইসিজের ঘোষিত রায়ের দিকে।

এদিকে কক্সবাজারের স্থানীয় সচেতন মহলের অভিমত, আন্তর্জাতিক আদালতে বিচার শুরু হওয়া বাংলাদেশের কূটনৈতিক সফলতার প্রাথমিক ধাপ। এর মধ্যদিয়ে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের পথ সুগম হবে।

গণহত্যার অভিযোগ উত্থাপন করে গত নভেম্বর মাসে নেদারল্যান্ডের হেগে অবস্থিত ‘আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালতে’ আন্তর্জাতিক ইসলামী সম্মেলন সংস্থার (ওআইসি’র) পক্ষ হয়ে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে মামলা করে পশ্চিম আফ্রিকার মুসলিম অধ্যূষিত দেশ গাম্বিয়া।

আজ ১০ ডিসেম্বর থেকে শুরু হয়েছে গণহত্যা নিয়ে আইসিজের অভিযোগের প্রথম ৩ দিনের শুনানী। এতে জাতিসংঘের বিচারকদের ১৬ সদস্যের প্যানেল অংশগ্রহণ করবেন। মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলার অং সান সূচি’র নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল শুনানীতে অংশগ্রহণের জন্য হেগে অবস্থান করছেন।

Advertisements

এদিকে আইসিজে’তে স্বাক্ষ্য দিতে কক্সবাজারের উখিয়ার ক্যাম্প থেকে রোহিঙ্গাদের ৩ জনের একটি প্রতিনিধি দল নেদারল্যান্ডের হেগে গেছেন। তারা আদালতে গণহত্যার স্বপক্ষে বিভিন্ন তথ্য-প্রমাণাদি তুলে ধরবেন এবং রোহিঙ্গাদের জন্য সুরক্ষার জন্য জাতিসংঘের বিচারিক প্যানেলের কাছে ‘অন্তর্বর্তীকালীন পদক্ষেপ’ জারি করার আবেদন জানাবে। রোহিঙ্গারা জানিয়েছেন, এর মধ্যদিয়ে আদালতের কাছে তাদের ন্যায়বিচার নিশ্চিত হবে।

উখিয়ার কুতুপালং এলাকার লম্বাশিয়া ক্যাম্প-১ এর ব্লক মাঝি ছুরত আলম বলেন, আইসিজে’তে বিচারের যে প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে তাতে মিয়ানমার সেনাবাহিনী কর্তৃক সংঘটিত গণহত্যার বিষয়টি প্রমাণিত হবে বলে রোহিঙ্গারা আশাবাদী। আদালতের কাছে রোহিঙ্গারা ন্যায়বিচার পাবে।

দীর্ঘদিন প্রতীক্ষার পর আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালতে মামলার বিচারকাজ শুরু হওয়ায় রোহিঙ্গারা খুশি বলে মন্তব্য করেন রোহিঙ্গা কমিউনিটির এ নেতা।

বাংলাদেশ সরকারের আন্তরিক প্রচেষ্টা এবং আন্তর্জাতিক মহলের কূটনৈতিক তৎপরতার কারণে মিয়ানমার সরকার বিচারের মুখোমুখি হতে বাধ্য হয়েছে বলে মন্তব্য করেন লম্বাশিয়া ক্যাম্পের প্রধান মাঝি ছৈয়দ নূর।

ছৈয়দ নূর বলেন, রোহিঙ্গারা আশাবাদী গণহত্যার জন্য মিয়ানমার আদালতের কাছে দোষী সাব্যস্ত হবে। আন্তর্জাতিক মহলের তৎপরতায় রোহিঙ্গারা ন্যায়বিচার পাবে।

উখিয়া থেকে রোহিঙ্গাদের ৩ জনের একটি প্রতিনিধি দল আইসিজে’তে স্বাক্ষ্য প্রদানের জন্য নেদারল্যান্ডের হেগে গেছেন বলে তথ্য দিয়েছেন কুতুপালং ক্যাম্প-২ এর ব্লক মাঝি কামাল উদ্দিন।

কামাল বলেন, উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে ২ জন নারী ও ১ জন পুরুষের একটি দল আইসিজে’তে স্বাক্ষ্য প্রদানের জন্য হেগে গেছে। তারা আদালতের কাছে গণহত্যার তথ্য-প্রমাণাদি তুলে ধরবেন।

অন্যদিকে মিয়ানমার স্টেট কাউন্সিলার অং সান সূচির নেতৃত্বে যে প্রতিনিধি দল আইসিজে’তে গেছে তারা দেশটির সেনাবাহিনীকে নির্দোষ প্রমাণ করতে নানা তাল-বাহানা করছে বলে মন্তব্য করেন রোহিঙ্গা কমিউনিটির এ নেতা।

আইসিজে’তে বিচারকার্য শুরু হওয়ায় রোহিঙ্গারা খুশি বলে মন্তব্য করে আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস এন্ড হিউম্যান রাইটস্ (এআরএসপিএইচ) এর সদস্য মোহাম্মদ জুবায়ের বলেন, গত ৭০ বছর ধরে রোহিঙ্গাদের উপর চলমান জাতিগত নির্যাতন-নিপীড়নের অভিযোগে মিয়ানমারকে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো সম্ভব হয়নি। কিন্তু এবার ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও ওআইসি সহ আন্তর্জাতিক মহলের তৎপরতায় মিয়ানমারকে বিচারের মুখোমুখি করানো সম্ভব হয়েছে।

এটি রোহিঙ্গাদের জন্য অত্যন্ত সুখকর খবর বলে মন্তব্য করেন রোহিঙ্গাদের এ নেতা।

Advertisements

এদিকে কক্সবাজারের সচেতন নাগরিকদের অভিমত, আইসিজে’তে শুরু হওয়া বিচারকার্যটি রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের জন্য বাংলাদেশ কূটনৈতিক সফলতার প্রাথমিক ধাপ। এতে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ বাড়বে।

এদিকে নেদারল্য্যান্ডের হেগে অবস্থিত আইসিজে’তে বিচারকার্য হওয়ার খবর গত সোমবার উখিয়া ও টেকনাফের ক্যাম্পগুলোতে ছড়িয়ে পড়লে খুশিতে আশায় বুক বাঁধে রোহিঙ্গারা। এ নিয়ে তারা ক্যাম্পগুলোর বিভিন্ন মসজিদ ও মাদ্রাসায় মিলাদ ও দোয়া মাহফিল করেছে।

আরো সংবাদ