চতুর্থ দফায় ভাসানচর গেলেন ৩০২৫ রোহিঙ্গা - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ১ মার্চ ২০২১ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০২-১৬ ১৭:০৫:৩৯

চতুর্থ দফায় ভাসানচর গেলেন ৩০২৫ রোহিঙ্গা

চতুর্থ দফায় ভাসানচর গেলেন ৩০২৫ রোহিঙ্গা

বিশেষ প্রতিবেদক, কক্সবাজার কন্ঠ : উন্নত জীবনের আশায় কক্সাবাজারে আশ্রয় নেয়া আরও ১ হাজার ১১ রোহিঙ্গা নোয়াখালীর ভাসানচরে গেছেন। চতুর্থ দফায় ৩০২৫ জনসহ এ পর্যন্ত সাড়ে ৯ হাজার রোহিঙ্গা ভাসানচরে গেছেন।
মঙ্গলবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০টায় চট্টগ্রামের পতেঙ্গা বোট ক্লাব সংলগ্ন জেটি থেকে নানা বয়সী ১ হাজার ১১ রোহিঙ্গা বাংলাদেশ নৌবাহিনীর তিনটি জাহাজে করে রওনা দেন।

সূত্র জানায়, তাদের সোমবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) রাতে কক্সবাজারের উখিয়া ক্যাম্প থেকে চট্টগ্রাম আনা হয়। সেখান থেকে নৌবাহিনীর তত্ত্বাবধানে বিএএফ শাহীন কলেজ মাঠের অস্থায়ী ক্যাম্পে রাতযাপনের পর সকালে তাদের জাহাজে তোলা হয়।
নৌবাহিনীর চট্টগ্রাম অঞ্চলের প্রধান রিয়ার অ্যাডমিরাল মোজাম্মেল হক জানান, পর্যায়ক্রমে আরও ৯০ হাজার রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে নেয়া হবে।

এদিকে চট্টগ্রামস্থ পটিয়া মুজিব কানন মিড পয়েন্টে ভাসানচরে যাওয়া রোহিঙ্গাদের মাঝে বিফ্রিং করেন ১৫ আনাসার ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক আজিম উদ্দিন। তিনি জানান, রোহিঙ্গাদের মুজিব কানন ব্যাটালিয়ন আনসার সদস্যদের বিভিন্ন কৃষি উন্নয়ন মডেল কর্মসূচি দেখে তারা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন ভাসানচরে অপরাধমুক্ত জীবন যাপন, পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি গ্রহণ করে ছোট পরিবার গঠন, মাদক মুক্ত জীবন যাপন, কৃষি শাক সব্জি আবাদ পোল্ট্রি খামার মৎস্যচাষ খেলাধুলাসহ সার্বিক কৃষি উৎপাদনে অংশ নিয়ে বাংলাদেশ সরকারের আইন শৃংখলা মেনে চলবে ।

শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের কার্যালয় সূত্র জানায়, গত ৪ ডিসেম্বর প্রথম দফায় ১ হাজার ৬৪২ জন, ২৯ ডিসেম্বর দ্বিতীয় দফায় ১ হাজার ৮০৪ জন, ২৯ জানুয়ারি তৃতীয় দফার প্রথমদিন ১ হাজার ৭৭৮জন ও ৩০ জানুয়ারি তৃতীয় দফার দ্বিতীয়দিন ১ হাজার ৪৬৪ জন ও আজ ১৫ ফেব্রুয়ারি চতুর্থ দফার প্রথমদিন ২ হাজার ১৪ জন ও ১৬ ফেব্রুয়ারি ১০১১ জনসহ এ পর্যন্ত ভাসানচর আশ্রয়ন প্রকল্পে রোহিঙ্গা স্থানান্তর করা হয়েছে সাড়ে ৯ হাজার।

তার আগে ২০২০ সালের মে মাসে অবৈধভাবে সাগরপথে মালয়েশিয়া যেতে ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসা ৩০৬ রোহিঙ্গা নারী, পুরুষ ও শিশুকে কক্সবাজার ও টেকনাফ থেকে উদ্ধার করার পর ভাসানচর নিয়ে যায় সরকার।

ভাসানচরের আশ্রয় শিবিরে ১ লাখ রোহিঙ্গাকে সরিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। সেই লক্ষ্যে কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফ রোহিঙ্গা শিবির থেকে স্বেচ্ছায় যেতে ইচ্ছুক এসব রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে হস্তান্তর করা হচ্ছে ।

স্বরাষ্ট্র, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত হয়ে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গার সংখ্যা বর্তমানে ১১ লাখ ১৮ হাজার ৫৭৬ জন। এই হিসাব ২০২০ সালের ৫ আগস্ট পর্যন্ত।

২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর থেকে ৭ লাখ ৪১ হাজার ৮৪১ জন মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নাগরিক বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে। এদের মধ্যে থেকে সরকার ১ লাখ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তরের পরিকল্পনা নেয়।

সরকারি তথ্য অনুযায়ী, রোহিঙ্গা স্থানান্তরের জন্য নিজস্ব তহবিল থেকে ৩ হাজার ৯৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ভাসানচর আশ্রয়ণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে সরকার। সেখানে এক লাখ রোহিঙ্গা বসবাসের উপযোগী ১২০টি গুচ্ছগ্রামের অবকাঠামো তৈরি করা হয়েছে। ভাসানচরের পুরো আবাসন প্রকল্পটি বাস্তবায়ন ও ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী।

উল্লেখ্য যে, বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে ১৩ হাজার একর আয়তনের ভাসানচরে ১২০টি অত্যাধুনিক পরিবেশবান্ধব গুচ্ছগ্রামের অবকাঠামো তৈরি করেছে নৌবাহিনী। রোহিঙ্গাদের জন্য বাসস্থান ছাড়াও বেসামরিক প্রশাসনের প্রশাসনিক ও আবাসিক ভবন, আইন প্রয়োগকারী সংস্থার ভবন, ধর্মীয় উপাসনালয়, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, চিকিৎসালয়, শিশুদের খেলার মাঠ ও বিনোদন স্পট গড়ে তোলা হয়েছে ভাসানচরে।

 

আরো সংবাদ