চরম হুমকির মুখে পর্যটনের দ্বীপ সেন্টমার্টিন - Coxsbazarkontho.com | Newspaper

মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯ ২৭শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মঙ্গলবার

প্রকাশ :  ২০১৯-১০-২৯ ১২:৫৬:১২

চরম হুমকির মুখে পর্যটনের দ্বীপ সেন্টমার্টিন

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার: দেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিন হচ্ছে প্রাকৃতিক এক লীলাভূমি। এ প্রবাল দ্বীপকে সংরক্ষণ করতে বিভিন্ন সময় পদক্ষেপ নেয়া হলেও প্রভাবশালীরা সে পদক্ষেপকে বৃদ্ধঙ্গুলি দেখিয়েছেন। সময়ের সাথে সাথে তাল মিলিয়ে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য নষ্ট করে সেখানে গড়ে তোলা হচ্ছে কৃত্রিম অবকাঠামো। যা প্রকৃতির জন্য যেমন হুমকি সাথে সাথে সেন্টমার্টিনের মতো একটি দ্বীপের জন্যও হুমকি। পরিবেশবিদরা মনে করেন, প্রাকৃতিক এ সৌন্দর্যকে প্রশাসন ইচ্ছা করেই ধ্বংস করছে। প্রশাসন ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা যদি চায় তাহলে এর সৌন্দর্য রক্ষা করা এবং প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্য ধরে রাখা সম্ভব। তাদের সদিচ্ছার কারণেই হচ্ছে না বলে তারা দাবি করেছেন।
স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে, প্রভাবশালীরা প্রাকৃতিক এই সৌন্দর্য ধ্বংস করছেন প্রশাসনের সাথে যোগসাজশ করে। তারা প্রাকৃতিক এই সৌন্দর্যকে বাঁচাতে সকল শ্রেণি-পেশার মানুষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। ভাটার সময় সেন্টমার্টিনে জমির পরিমাণ আট বর্গকিলোমিটার আর জোয়ারের সময় পাঁচ বর্গকিলোমিটার। এর ওপরও চোখ পড়েছে দখলবাজদের। দ্বীপের রয়েছে তিনটি অংশ উত্তরপাড়া, দক্ষিণপাড়া আর ২ অংশের মাঝখানটা গলার মতো সরু বলে গলাচিপা নামে পরিচিত। এই তিন অংশের মাঝে উত্তর অংশ মূলত জনপদ। গলাচিপায় কিছু ভালো কটেজ, নৌবাহিনীর স্থাপনা আর কিছু স্থানীয় মানুষের বসবাস। নারিকেল গাছ আর আবাদি জমির বেশিরভাগই এ অংশে। দক্ষিণ অংশ এখন পর্যন্ত ‘রেস্ট্রিকটেড অ্যাকসেস জোন’ হিসেবেই পরিচিত। সেখানে পড়ে আছে বিশাল বিশাল প্রবাল পাথর।


দক্ষিণপাড়ায় গিয়ে দেখা যায়, চারদিকে শুধু জমি মালিকানার সীমানা আর সাইনবোর্ড। সীমিত প্রবেশাধিকার জোনের জমিগুলোও বিক্রি হয়ে গেছে। শত বছরের সঞ্চিত প্রবাল পাথর সরিয়ে মাটি বের করা হচ্ছে কটেজ বানানোর জন্য। শুধু তাই নয়, প্রবাল পাথরের টুকরাগুলো দিয়ে বানানো হচ্ছে প্লটের সীমানা প্রাচীর।
স্থানীয়রা জানান, পর্যটন শিল্প বিকাশের দোহাই দিয়ে ৯০ দশকের পর থেকে সেন্টমার্টিনে একের পর এক গড়ে উঠে প্রসাদ। সেন্টমার্টিনের জীব বৈচিত্র্য রক্ষায় দায়ের করা এক রিটের পরিপ্রেক্ষিতে ২০০৯ সালে দ্বীপে পাকা স্থাপনা নির্মাণ বন্ধ এবং নির্মিত সব স্থাপনা উচ্ছেদ করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছিলেন সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগ।
নির্দেশনা মতে, সেন্টমার্টিনে ছোট কিংবা বড় কোনো স্থাপনাই নির্মাণের সুযোগ নেই। কিন্তু প্রভাবশালীরা এই রায়কে অমান্য করে গড়ে তুলছেন বড় বড় দালান।
সরেজমিন দেখা যায়, দ্বীপের ডেইলপাড়া রাস্তার পাশে ‘হোটেল ফ্যান্টাসি’ নামে একটি বিশাল ভবনের কাজ চলছে। ৩০ জনের মতো শ্রমিক নির্মাণ কাজ করছেন। এরই মধ্যে প্রায় কাজ শেষ পর্যায়ে থাকা ওই ভবনের আন্ডার গ্রাউন্ডেও রয়েছে আলিশান কক্ষ ও সুইমিংপুল। নির্মাণ শেষ হওয়া অংশে রয়েছে চোখ ধাঁধানো সব ফিটিংস ও আলোক সজ্জার কাজ। পশ্চিম কোনাপাড়া সৈকতের সঙ্গে লাগোয়া ‘রিসোর্ট লাবিবা বিলাস’। সেখানেও তৃতীয় তলার ছাদ ঢালাইয়ের কাজ চলছে প্রকাশ্যে। এ দুটি ভবন ছাড়া আরও ১০-১৫টি ছোট-বড় স্থাপনার নির্মাণ কাজ চলছে। দ্বীপ ঘুরে দেখা যায়, দ্বীপের উত্তর অংশের এক বর্গকিলোমিটার এলাকার মধ্যে গড়ে উঠেছে ৮৪টিরও বেশি হোটেল-মোটেল ও ২৮টি রেস্টুরেন্ট। স্থানীয় সূত্রমতে, গত পাঁচ বছরে ৫৬টির মতো বহুতল হোটেল তৈরি হয়েছে।
Advertisements

সূত্র জানিয়েছে, প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকা (ইসিএ) সেন্টমার্টিন দ্বীপে স্থাপনা নির্মাণ করতে গেলে রাজনৈতিক নেতাকর্মী ও সরকারি কিছু কর্মকর্তার একটি চক্রকে ম্যানেজ করতে হয়। তাদের যোগসাজশে প্রকাশ্যে টেকনাফ থেকে প্রায় ৯ কিলোমিটারের সমুদ্র পাড়ি দিয়ে ইট, লোহা, সিমেন্ট, বালুসহ যাবতীয় নির্মাণ সামগ্রী পৌঁছে যায় সেন্টমার্টিন দ্বীপে। সংশ্লিষ্ট দপ্তর ম্যানেজ থাকায় এসব নির্মাণ সামগ্রী নির্বিঘেœ নির্মাণস্থলে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। আর সেখানেও কোনো বাধা ছাড়াই গড়ে উঠছে হোটেল, কটেজ ও রেস্তোরাঁ। আবার অনেক সময় দ্বীপের তিন দিকে ছড়িয়ে থাকা প্রাকৃতিক পাথর ব্যবহূত হচ্ছে অবকাঠামো তৈরিতে। দ্বীপে হোটেল ছাড়াও নির্মিত হয়েছে পাকা পোস্ট অফিস, হাসপাতাল, স্কুল, ইউনিয়ন পরিষদ, বাংলাদেশ নৌবাহিনী, আবহাওয়া ও গণপূর্ত অধিদপ্তরের মতো সরকারি প্রতিষ্ঠান।
সেন্টমার্টিন দ্বীপ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুর আহমদ বলেন, সেন্টমার্টিনে ইট-সিমেন্ট-রডসহ নির্মাণ সামগ্রী আনতে উপজেলা প্রশাসনের অনুমতি লাগে। এ কারণে স্থানীয় লোকজন ঘর তৈরি করতে পারে না। অথচ প্রভাবশালী ব্যক্তিরা নানা কৌশলে ইট-সিমেন্ট নিয়ে আসছেন।
এ বিষয়ে স্থানীয় বাসিন্দা ছৈয়দ আলম জানান, সেন্টমার্টিনকে রক্ষা আমাদের দায়িত্ব। এখানে ইট-বালির স্থাপনা নির্মাণে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও কাঠ ও বাঁশ দিয়ে পরিবেশ-সম্মত আধুনিক কটেজ ও রেস্টুরেন্ট নির্মাণ করা সম্ভব। পর্যটকরা ইট-বালির স্থাপনা থেকে বাঁশ কাঠের তৈরি স্থাপনায় থাকতে বেশি পছন্দ করে।
Advertisements

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে, সেন্টমার্টিনের বাসিন্দারা সেখানে স্থাপনা নির্মাণ না করতে পারলেও বাইরের প্রভাবশালী লোকজন প্রশাসনকে ম্যানেজ করে বড় বড় স্থাপনা গড়ে তুলছেন। ছৈয়দ আলমের মতো সমাজ সেবক হাবিবও একই তালে সুর মিলিয়েছেন। তিনি বলেন, সেন্টমার্টিনের শতকরা ৭০ জন লোক পর্যটন নির্ভর। পর্যটকদের নিরাপত্তায় আমরা সবসময় সজাগ থাকি। কারণ তারা এলে আমরা চলতে পারি। আমাদের পক্ষ থেকে জোরালো দাবি থাকবে সেন্টমার্টিনের প্রবালগুলো রক্ষা করতে হবে।

কক্সবাজার সি বিচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক মো: কামাল হোসেন জানান, সেন্টমার্টিনে পর্যটকদের ভ্রমণ নিয়ন্ত্রণের একটি প্রস্তাবনা জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পাঠানো হয়েছে। যেকোনো মূল্যে আমাদেরকে সেন্টমার্টিন দ্বীপ রক্ষা করতে হবে। দ্বীপে এতগুলো হোটেল-মোটেল কিভাবে গড়ে উঠল তাও খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
নভেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০