ছিনতাই করার ঘটনায় অভিযুক্ত এসআই সিদ্দিকী পুরান পাপী - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১ ২রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বৃহস্পতিবার

প্রকাশ :  ২০২১-০৩-০৪ ০২:৫৬:৩৭

ছিনতাই করার ঘটনায় অভিযুক্ত এসআই সিদ্দিকী পুরান পাপী

নূরে খোদার বিরুদ্ধে বেরিয়ে আসছে চাঞ্চল্যকর কাহিনী

নিজস্ব প্রতিবেদক :  কক্সবাজার শহরে নারীর বসতবাড়িতে ঢুকে পিস্তল ঠেকিয়ে ৩ লাখ টাকা ছিনতাই ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত এসআই নূর-ই খোদা সিদ্দিকী পুলিশের একজন পুরান পাপী। মেজর (অব.) সিনহা হত্যা ইস্যূতে কক্সবাজার থেকে একযোগে সব পুলিশ সদস্য বদলী হলেও অদৃশ্য কারণে কক্সবাজারে রয়ে যান এসআই নুর-ই খোদা সিদ্দিকী। কিন্তু কী করে এমন ঘূর্ণিঝড়েও তিনি টিকে ছিলেন, তা নিয়ে বিস্মিত খোদ পুলিশ সদস্যরাও।

১ মার্চ বিকালে কক্সবাজার শহরের সমিতি পাড়ায় এক নারীর বসতবাড়ীতে ঢুকে তাকে পিস্তল ঠেকিয়ে ৩ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় এসআই নুর-ই খোদা সিদ্দিকীসহ ৩ পুলিশ সদস্যকে গ্রেফতার করে ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত। তাদেরকে সাময়িকভাবে বরখাস্তও করা হয়েছে। গ্রেফতার অপর পুলিশ সদস্যদ্বয় হলেন, কনস্টেবল আমিনুল মমিন ও মামুন মোল্লা। তিনজনই কক্সবাজার শহর পুলিশ ফাঁড়িতে কর্মরত ছিলেন। উক্ত মামলায় পুলিশের ২ জন সোসকে আসামী করা হয়েছে। তাদের আটক করতে পুলিশি অভিযান চলছে বলে জানাগেছে।

কক্সবাজার সদর থানার ওসি শেখ মুনীর উল গীয়াস দুঃখের সঙ্গে বলেন, জেলা পুলিশ চমৎকার সমন্বয় ও চেইন অফ কমান্ডের সাথে কাজ করে যাচ্ছিল। নুর-ই খোদা সিদ্দিকী নামের এই পুরান পাপি কেমনে রয়েছে গেল, জানলাম না। জঘন্য মানুষটা আমাদের বিব্রতকর অবস্থায় ফেলে দিল!

ওসি আরও জানান, এসআই নুর-ই খোদা সিদ্দিকী ইতোপূর্বে চকরিয়া থানায় এবং তার আগে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ডিবিতে ছিল। ওখানেও তার বিরুদ্ধে বহু অভিযোগ ছিল।

পুলিশ সূত্র মতে, অপরাধীদের সঙ্গে সখ্যতা গড়ে টাকা কামাই করার সব পথ জানা ছিল এসআই নুর-ই খোদা সিদ্দিকীর। আর অবৈধ আয়ে প্রভাবশালীদের বসে আনতেন তিনি। এদের কাজে লাগিয়ে ভালো ভালো পোস্টিংও বাগিয়ে নিতেন। কিন্তু যেখানেই যেতেন দুর্নামের বোঝা নিয়ে ফিরে আসতেন। আর এ কারণে পুলিশ বিভাগে তিনি একজন পুরান পাপী হিসাবে পরিচিত। সূত্র জানায়, এসআই নুর-ই খোদা সিদ্দিকী কয়েকদিন আগে চকরিয়া থানা থেকে বদলী হয়ে কক্সবাজার শহর ফাঁড়িতে যোগদান করেন।

চকরিয়া থানায় থাকাকালে তার বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড় ছিলো। তবে পুলিশি হয়রানির ভয়ে ভুক্তভোগীরা আগে অভিযোগ দেয়ার সাহস না করলেও তাকে গ্রেফতারের পর মুখ খুলতে শুরু করেছে হয়রানির শিকার লোকজন।
এদিকে আটক এসআইসহ তিন পুলিশকে তদন্ত কমিটির পক্ষ থেকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। বুধবার দুপুরে পুলিশ হেড কোয়াটার্স এর গঠিত তদন্ত কমিটি কক্সবাজার সদর মডেল থানায় তাদের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেন। এ সময় মামলা বাদী রোজিনা খাতুসহ আরও কয়েকজনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছে। কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি (অপারেশন) সেলিম উদ্দীন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, পিস্তল ঠেকিয়ে তিন লাখ টাকা ছিনিয়ে নেয়ার ঘটনায় চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে একটি তদন্ত গঠন করেন পুলিশ হেড কোয়াটার্স। ২মার্চ দুপুরে চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপার সাইদুর রহমানের নেতৃত্ব এ কমিটি কক্সবাজার মডেল থানায় আসেন। সেখানে রিমান্ডে থাকা তিন পুলিশ সদস্য উপ-পরিদর্শক (এসআই) নুর হুদা সিদ্দিকী, কনস্টেবল আমিনুল মমিন ও মামুন মোল্লাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। একই সঙ্গে ভুক্তভোগী রোজিনা খাতুন ও কয়েকজন সাক্ষীর সঙ্গেও কথা বলেন তারা।
এদিকে, জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে অজ্ঞান হয়ে পড়েন ভুক্তভোগী নারী রোজিনা খাতুন। তাকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, এ ঘটনায় ১ মার্চ সোমবার রাতে শহরের মধ্যম কুতুবদিয়া পাড়ার বাসিন্দা ব্যবসায়ী রিয়াজ আহমদের স্ত্রী রোজিনা খাতুন বাদী হয়ে ছিনতাইয়ের অভিযোগে মামলা দায়ের করেন। এরপর তিন পুলিশ সদস্যকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়। পরে ৫ দিনের রিমান্ড আবেদন করলে আদালত প্রত্যেকের দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। বর্তমানে পুলিশের ৩ সদস্য কক্সবাজার সদর মডেল থানায় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার নিয়ন্ত্রণে রিমান্ডে রয়েছেন।

 

আরো সংবাদ