জাহাজে কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিনে যাত্রা শুরু - কক্সবাজার কন্ঠ । কক্সবাজারের মুখপত্র

মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০ ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মঙ্গলবার

প্রকাশ :  ২০২০-০১-৩০ ১২:৫০:৫১

জাহাজে কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিনে যাত্রা শুরু

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার : বিলাস বহুল জাহাজ উদ্ভোধনের মধ্য দিয়ে কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিন সমুদ্র ভ্রমণ পর্যটন শিল্পে নতুন দিগন্তের সূচনা করেছে। এখন থেকে পর্যটকরা সরাসরি কক্সবাজার শহর থেকে সেন্টমার্টিন ভ্রমণ করতে পারবেন। কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিগামী এম ভি কর্ণফুলী এক্সপ্রেস নামের এই বিলাস বহুল জাহাজটি ৩০ জানুয়ারি বিকেলে আনুষ্টানিক উদ্ভোধন করেছেন নৌ পরিবহণ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। কর্ণফুলী শিপ বিল্ডার্স (লি.) এর পরিচালনায় জাহাজটির সার্বিক সহযোগিতা এবং তত্ত¡াবধানে থাকছে ফারহান এক্সপ্রেস ট্যুরিজম। কক্সবাজার শহরের বিমানবন্দর সড়কের বিআইডবিøউটিএ ঘাটে এই জাহাজটির উদ্ভোধনী অনুষ্টানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের নৌ-সচিব এম এ সামাদ। উদ্ভোধনের পর অতিথিগণ স্বল্প সময়ে ওই জাহাজে করে সমুদ্র যাত্রা শেষে সন্ধ্যায় জেটিতে প্রত্যাবর্তন করেন।


উল্লেখ্য, কক্সবাজার–-সেন্টমার্টিন সমুদ্র পথে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচলের দাবী দীর্ঘদিনের। অবশেষে এই দাবী পূরণের মাধ্যমে পর্যটকরা কক্সবাজার শহর থেকেই প্রথমবারের মতো সেন্টমার্টিন যাওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। জাহাজটি প্রতিদিন সকাল ৭টায় কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিনের উদ্দেশ্যে রাওনা দেবে এবং বিকেল ৩টায় ফিরবে বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।
সূত্র মতে, ভ্রমণ পিপাসু মানুষের আরামদায়ক ভ্রমনে এবার নতুন সংযোজন এই এমভি কর্ণফুলী এক্সপ্রেস। এতদিন দেশী বিদেশী পর্যটকরা টেকনাফ থেকে পাঁচটি জাহাজ (কেয়ারি বে ক্রুজ এন্ড ডাইন, কেয়ারি সিন্দাবাদ, এম ভি বে ক্রুজ-১,দ্যা আটলান্টিক ক্রুজ, এম ভি ফারহান) করে সেন্টমার্টিন যেতেন। এবার সেন্টমার্টিন ভ্রমণকে আরো আনন্দদায়ক করতে কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিনগামী জাহাজের আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হলো।
Advertisements

সূত্রে আরও জানা যায়, কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিনগামী পর্যটকবাহী এমভি কর্ণফুলী এক্সপ্রেস নামের বিলাস বহুল জাহাজটি চট্টগ্রামের কর্ণফুলী শিপইয়ার্ডে বিআইডবিøউটিসির উপকূলীয় জাহাজ বহরের লিজেন্ডারি নৌযান এমভি আলাউদ্দিন আহমেদ নামে পরিচিত ছিল। যা বর্তমানে এমভি কর্ণফুলী এক্সপ্রেস নামে নতুনভাবে রূপান্তরিত হয়েছে। ফারহান এক্সপ্রেস ট্যুরিজমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসাইন ইসলাম বাহাদুর জানান, নৌযানটি আগে চট্টগ্রামের সদরঘাট থেকে হাতিয়ার নলচিরা হয়ে স›দ্বীপে চলাচল করতো। বর্তমানে জাহাজটির মালিকানা কর্ণফুলী শিপইয়ার্ড অধিগ্রহণ করে। পরে ডিজাইন ফার্ম এসএসটি মেরিন সল্যুশনের মাধ্যমে নকশা পরিবর্তন করে।
এমভি কর্ণফুলী এক্সপ্রেসকে নিজস্ব ডকইয়ার্ডে নতুনভাবে চলাচলের উপযোগী করে তোলা হয়। পুরোপুরি প্রস্তুত নৌযানটি সার্ভিসে যাওয়ার আগে সী ট্রায়ালের অংশ হিসেবে কর্ণফুলী নদী থেকে পতেঙ্গার সমুদ্র মোহনা পর্যন্ত ট্রায়াল সম্পন্ন করে।
প্রায় ৫৫ মিটার দৈর্ঘ্যরে ও ১১ মিটার প্রশস্ত নৌ-যানে মেইন প্রাপালেশন ইঞ্জিন হচ্ছে দু’টি। আমেরিকার বিখ্যাত কামিন্স ব্র্যান্ডের একেকটির ক্ষমতা প্রায় ৬০০ বিএইচপি করে। জাহাজটি ঘণ্টায় প্রায় ১২ নটিক্যাল মাইল গতিতে ছুটতে পারে। ১৭টি ভিআইপি কেবিন সমৃদ্ধ এটি। নৌযানে ৩ ক্যাটাগরির প্রায় ৫০০ আসন রয়েছে। রয়েছে কনফারেন্স রুম, ডাইনিং স্পেস, সী ভিউ ব্যালকনি। এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন, কর্ণফুলী শিপ বিল্ডার্স (লি.) এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার এম এ রশিদ।

উদ্ভোধনের পরই জাহাজটির ভাড়ার তালিকা ও সময়সূচি প্রকাশ করা করেছেন ফারহান এক্সপ্রেস ট্যুরিজমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসাইন ইসলাম বাহাদুর। তিনি জানান, জাহাজটিতে রয়েছে মোট ১৭ টি লাক্সারি শ্রেণির কেবিন। তার মধ্যে ইকোনমি শ্রেণির কেবিন (দ্বিতীয় শ্রেণি), এর ভাড়া ১২ হাজার টাকা ও লাক্সারি শ্রেণির (ভিআইপি) কেবিনের ভাড়া ১৫ হাজার টাকা। প্রতিটি কেবিন দুইজনের জন্য প্রযোজ্য। নৌযানটিতে ভিন্ন ক্যাটাগরির প্রায় ৫১০টি আসন ব্যবস্থা রয়েছে। রয়েছে প্রশস্ত কনফারেন্স হল রুম, ডাইনিং স্পেস, সি ভিউ ব্যালকনি। প্রায় ৫৫ মিটার দীর্ঘ ও ১১ মিটার প্রশস্ত জাহাজে মেইন প্রোপালেশন ইঞ্জিন হচ্ছে দুইটি। যার এক একটির ক্ষমতা প্রায় ৬০০ বিএইচপি করে। জাহাজটি ঘণ্টায় প্রায় ১২ নটিক্যাল মাইল গতিতে ছুটে চলবে। জাহাজের ইকোনমি আসনের (দ্বিতীয় শ্রেণি চেয়ার) ভাড়া জনপ্রতি দুই হাজার টাকা। এছাড়া বিজনেস ক্লাস আসনের (প্রথম শ্রেণি চেয়ার) ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে দুই হাজার ৫শ’ টাকা।
এদিকে বিভিন্ন গণমাধ্যমে কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিন জাহাজে করে যাওয়া যাবে এমন সংবাদে পর্যটকদের মাঝে আগ্রহের সৃষ্টি হয়েছে। তারা মনে করেন এখন থেকে খুব সহজে এবং কম খরচে সরাসরি সেন্টমার্টিন ভ্রমণ করা যাবে। অপরদিকে প্রকৃতিকে উপভোগ করা যাবে আরো নিভিড়ভাবে।
Advertisements

উল্লেখ্য, টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিন ইউনিয়নের দূরত্ব প্রায় ৪২ কিলোমিটার। আবার কক্সবাজার জেলা শহর থেকে ১২০ কিলোমিটার দূরে সাগর বক্ষের একটি ক্ষুদ্র দ্বীপ সেন্টমার্টিন। পাহাড় সমুদ্র বরাবরই টানে পর্যটকদের। সাগরের বিশালতার কাছে গেলেই প্রকৃতি নিজের মনকে আরো আপন করে নেয়।

আরো সংবাদ