জিএসপি সুবিধা বহাল রাখতে সহায়তা দেবে জার্মানি - Coxsbazarkontho.com

শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৯-০৯-০৯ ১৭:০৮:৪২

জিএসপি সুবিধা বহাল রাখতে সহায়তা দেবে জার্মানি

বিশেষ প্রতিবেদক : জিএসপি সুবিধা বহাল রাখতে জার্মানি সব ধরনের সহযোগিতা দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। পাশাপাশি দেশটি বাংলাদেশে ব্যয়বহুল গাড়ি বিএমডব্লিউ এবং মার্সিডিজ বেঞ্জ তৈরির কারখানা স্থাপনের ইচ্ছের কথা জানিয়েছে।

সোমবার বিকেলে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে অর্থমন্ত্রীর কার্যালয়ে ঢাকায় সফররত জার্মানির একটি প্রতিনিধিদল অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করে। প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন ঢাকায় নিযুক্ত জার্মানির রাষ্ট্রদূত পিটার ফারেনহোল্টজ। ব্যবসা-বাণিজ্যের সম্ভাবনা খতিয়ে দেখতে জার্মানির উচ্চপর্যায়ের ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদলটি পাঁচ দিন ঢাকায় অবস্থান করবে।

অ্যাসোসিয়েশন অব জার্মান চেম্বারস অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিকে সঙ্গে নিয়ে জার্মান এশিয়া-প্যাসিফিক বিজনেস অ্যাসোসিয়েশন জার্মান ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদলের এ সফরের আয়োজন করেছে। এই দলে বস্ত্র, আসবাবপত্র, জাহাজ থেকে শুরু করে পরিবেশ-প্রযুক্তি, ব্যাংকিং ও পর্যটন খাতের প্রতিনিধিরা রয়েছেন।

বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, বিএমডব্লিউ ও মার্সিডিজ বেঞ্জ গাড়ি বাংলাদেশে তৈরির প্রস্তাব দিয়েছে জার্মানি। জার্মানি থাইল্যান্ডে যেভাবে প্রগতিশীল উৎপাদন ব্যবস্থার মাধ্যমে অ্যাসেম্বল করে, সেভাবেই এখানেও করবে। অর্থাৎ তারা বিএমডব্লিউ ও মার্সিডিজ বেঞ্জের কিছু পার্টস এখানেই তৈরি করবে এবং কিছু পার্টস বিদেশ থেকে নিয়ে আসবে। পরে এটা এখানে অ্যাসেম্বল করবে। বিষয়টি নিয়ে তারা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করবে এবং সে আলোচনার পরে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, এটি একটি খুবই উত্তম প্রস্তাব কেননা তাহলে আর আমাদেরকে ব্যয়বহুল গাড়ি আমদানি করতে হবে না। আরেকটি অত্যন্ত ভালো প্রস্তাব তারা দিয়েছে। তা হচ্ছে, তারা প্রতিশ্রুতি দিয়েছে যে আমাদের জিএসপি সুবিধা যেন বাতিল হয়ে না যায় এ বিষয়ে তারা সর্বোতভাবে আমাদের সহায়তা করবে।

তিনি বলেন, জার্মানের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক অত্যন্ত সুপ্রাচীন, অনেক আগেই থেকেই তারা আমাদের দেশে বিনিয়োগ করে আসছে। এই মুহূর্তে তারা আমাদেরকে প্রস্তাব দিচ্ছেন যে, তারা বড় আকারে আমাদের পাট শিল্পকে ব্যবহার করতে চান। আমাদের এক সময়ের প্রধান রপ্তানি আয়ের সোনালী আশ পাট শিল্প ব্যবস্থাপনা করা আমাদের জন্য কঠিন হয়ে পড়েছে, তাই এটা খুব ভাল প্রস্তাব। আর মার্সিটিজের ভেতরে পাটের অনেক ব্যবহার রয়েছে। জার্মানির যত গাড়ি আছে, প্রায় সব গাড়ির ভেতরে পাটের অনেক ব্যবহার হয়ে থাকে।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
সেপ্টেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০