জেএসসি প্রস্তুতি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি - কক্সবাজার কন্ঠ । কক্সবাজারের মুখপত্র

শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০ ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৯-০৯-১৭ ২১:৪১:৫৪

জেএসসি প্রস্তুতি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি

সৃজনশীল প্রশ্ন

চতুর্থ অধ্যায়

রচনামূলক অংশ

১। স্প্রেডশিট সফটওয়্যার ব্যবহারের উদ্দেশ্য ব্যাখ্যা করো।

উত্তর : যেকোনো ধরনের যেকোনো সংখ্যক উপাত্ত অল্প সময়ে সম্পাদনা করা, হিসাব করা, বিশ্লেষণ করা এবং প্রতিবেদন তৈরি করার কাজ স্প্রেডশিট প্রগ্রামের মাধ্যমে করা যায়।

স্প্রেডশিট সফটওয়্যার ব্যবহারের উদ্দেশ্য

১। শিক্ষকরা বিভিন্ন বিষয়ে প্রাপ্ত নম্বর সংরক্ষণ ও রেজাল্ট তৈরি করার জন্য।

২। পরীক্ষার ফলাফল প্রস্তুত করার জন্য।

৩। সব বিষয়ের বিষয়ভিত্তিক গ্রেড পয়েন্ট বের করে জিপিএ নির্ণয় করার জন্য।

৪। দৈনন্দিন জীবনের বিভিন্ন হিসাব করার জন্য অনেকে স্প্রেডশিট প্রগ্রাম ব্যবহার করে থাকে।

৫। ওয়ার্কশিটে অনেক তথ্য থেকে সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন মানটি সহজে নির্ণয় করা যায়।

৬। কম সময়ে অধিক কাজ করার জন্য।

৭। ক্যাশ বইয়ের হিসাব রাখার জন্য।

৮। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের লেনদেনের হিসাব রাখার জন্য।

৯। একই সূত্র বারবার প্রয়োগ করা যায় বলে তথ্য প্রক্রিয়াকরণে সময় কম লাগে।

১০। স্প্রেডশিট সফটওয়্যার ব্যবহার করে বিপুল পরিমাণ উপাত্ত নিয়ে কাজ করা যায়।

১১। অনেক তথ্য সিলেক্ট করে তার একটি চার্ট বা গ্রাফ উপস্থাপন করা যায়।

১২। ওয়ার্কশিটের মাধ্যমে পরিসংখ্যানিক হিসাবের কাজ করা যায়।

১৩। সংসারের আয় ও ব্যয়ের সংগতি রেখে চলার জন্য।

১৪। এ সফটওয়্যারে সূত্র ব্যবহারের সুযোগ থাকায় হিসাবের কাজ স্বয়ংক্রিয়ভাবে সম্পন্ন হয়।

১৫। একজন বাজারজাতকারীকে প্রতিনিয়ত বাজার বিশ্লেষণ করতে হয়, যা সে খুব সহজে ওয়ার্কশিটের মাধ্যমে করতে পারে।

২। মাইক্রোসফট এক্সেল-২০০৭ উইনডোর পরিচিতি বর্ণনা করো।

উত্তর : কম্পিউটার খোলা অবস্থায় স্টার্ট বাটনে ক্লিক করে অল প্রগ্রামসে যেতে হবে। এরপর সংশ্লিষ্ট স্প্রেডশিট প্রগ্রামের আইকনে ক্লিক করতে হবে। এ ছাড়া কম্পিউটারে ডেস্কটপ স্প্রেডশিট প্রগ্রামের অথবা আইকনে ডাবল ক্লিক করে স্প্রেডশিট প্রগ্রাম খোলা যায়।

স্প্রেডশিট সফটওয়্যারের বিভিন্ন অংশ

১। টাইটেল বার : এক্সেল উইনডোর একেবারে ওপরে ওয়ার্কবুকের শিরোনামটিকে টাইটেল বার বলা হয়।

২। অফিস বাটন : এক্সেল উইনডোর ওপরের বাঁ দিকে কোনার দিকে অফিস বাটন থাকে। এটাতে ক্লিক করে নতুন এক্সেল ওয়ার্কবুক খোলা, আগের ওয়ার্কবুক খোলা, ওয়ার্কবুক সংরক্ষণ করাসহ আরো অনেক কাজ করা যায়।

৩। কুইক অ্যাকসেস টুলবার : অফিস বাটনের পাশেই কুইক অ্যাকসেস টুলবারের অবস্থান। সচরাচর যে বাটনগুলো বেশি ব্যবহৃত হয়, সেগুলো এখানে থাকে।

৪। রিবন : মাইক্রোসফট এক্সেলে বিভিন্ন কমান্ড গুচ্ছাকারে সাজানো হয়েছে। এগুলোকে একত্রে রিবন বলা হয়। প্রত্যেক মেন্যুর আওতায় আইকনের মাধ্যমে কমান্ডগুলো সাজানো।

৫। সেলের অবস্থান ও সেলের বিষয়বস্তু দেখানোর বার বা ফর্মুলা বার : রিবনের ঠিক নিচেই এর অবস্থান; এখানে সেলের অবস্থান বা সেল রেফারেন্স প্রদর্শন করা হয়। পাশাপাশি সেলের বিষয়বস্তু বা কনটেন্ট দেখানো হয়।

৬। স্ট্যাটাস বার : ওয়ার্কশিটের নিচের দিকে স্ট্যাটাস বারের অবস্থান। বিভিন্ন কাজের সময় তাত্ক্ষণিক অবস্থা এ বারে দেখানো হয়। এ ছাড়া স্ট্যাটাস বারের বাঁ দিকে ভিন্ন ভিন্ন পদ্ধতিতে ওয়ার্কশিট দেখার অপশন রয়েছে।

৭। শিট ট্যাব : একটা ওয়ার্কবুকে যতগুলো ওয়ার্কশিট থাকে, শিট ট্যাবে সেগুলো দেখানো হয়। বিভিন্ন শিটের মধ্যে আসা-যাওয়া করার জন্য শিট ট্যাব ব্যবহার করা যায়।

আরো সংবাদ