জেনে রাখা ভালো:জরায়ুমুখ ক্যান্সার প্রতিরোধে প্রয়োজন সচেতনতা - Coxsbazarkontho.com | Newspaper

বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯ ১লা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বুধবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৯-০২-২৬ ১৫:১৭:৩৪

জেনে রাখা ভালো:জরায়ুমুখ ক্যান্সার প্রতিরোধে প্রয়োজন সচেতনতা

এম. জসীম উদ্দিন সুমন: জাহানারা একজন স্বাস্থ্যকর্মী। সংসার, চাকরি এবং স্বামী-সন্তান নিয়ে ভালোই আছেন। কাজের সুবাদে মাঝে মাঝে ঢাকায় আসতে হয় তাকে। এবার মহিলাদের জরায়ুমুখ ক্যান্সার ও এর প্রতিরোধ বিষয়ক প্রশিক্ষণ নিতে ঢাকায় আসছেন জাহানারা। তিন দিনব্যাপী এ প্রশিক্ষণ শেষে তিনি নিজেই জরায়ুমুখ ক্যান্সারপূর্ব অবস্থা জানার ব্যাপারে আগ্রহী হয়ে ওঠেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে জরায়ুমুখ ক্যান্সারের পূর্ব অবস্থা নির্ণয়ের জন্য ভায়া পরীক্ষা করান। পরীক্ষায় তার ভায়া পজেটিভ অর্থাৎ ক্যান্সারপূর্ব অবস্থা ধরা পড়ে। আতঙ্কিত হয়ে পড়েন জাহানারা। ডাক্তারের সঙ্গে এ বিষয় নিয়ে পরামর্শ করলে ডাক্তার জানান, জরায়ুমুখ ক্যান্সারপূর্ব অবস্থা আসলে ক্যান্সার নয়। চিকিৎসার মাধ্যমে এ অবস্থা নিরাময় সম্ভব। এ কথা শুনে জাহানারা আশ্বস্ত হন। বাড়ি ফিরে চিকিৎসা শুরু করেন। বর্তমানে তিনি ভালো আছেন।

জরায়ুমুখ ক্যান্সার আমাদের দেশের নারীদের ক্যান্সারজনিত মৃত্যুর অন্যতম প্রধান কারণ। প্রতি পাঁচজন নারী ক্যান্সার রোগীর একজন জরায়ুমুখ ক্যান্সারে আক্রান্ত। সাধারণত ৩০ থেকে ৬০ বছর বয়সী নারীরা এ রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকে। তবে ৪০-৫০ বছর বয়সী নারীরা বেশি আক্রান্ত হন। সমাজের নিম্নœ ও নিম্নœ মধ্যবিত্ত পরিবার এবং শিক্ষায় অনগ্রসর নারীরা এ রোগে বেশি আক্রান্ত হয়ে থাকেন। আমাদের দেশের রোগীদের সচেতনতার অভাবে বেশিরভাগ ক্যান্সার ধরা পড়ে একেবারে রোগের শেষ পর্যায়ে। তখন বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই করার আর কিছু থাকে না।

জরায়ুমুখ ক্যান্সারের পূর্ব অবস্থা জানার জন্য ভায়া পরীক্ষা করা হয়। ত্রিশোর্ধ বিবাহিত মহিলাদের এ পরীক্ষাটি অবশ্যই করানো উচিত। এ পরীক্ষার মাধ্যমে রোগ নির্ণয় করে যথাযথ চিকিৎসা নিলে তা সম্পূর্ণ নিরাময় সম্ভব। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্যমতে বাংলাদেশের মহিলাদের যত ধরনের ক্যান্সার হয় তার মধ্যে জরায়ুমুখ ক্যান্সারের হার শতকরা ২৫ ভাগ এবং প্রজননতন্ত্রের ক্যান্সারের মধ্যে জরায়ুমুখের ক্যান্সারে শতকরা ৭০ ভাগ মহিলা আক্রান্ত হন। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার তথ্যমতে বাংলাদেশে প্রতিবছর ১২ হাজার নারী নতুন করে এই ক্যান্সারে আক্রান্ত হচ্ছেন এবং মারা যাচ্ছেন ৬ হাজার জন। অন্যান্য ক্যান্সারের চেয়ে জরায়ুমুখ ক্যান্সার অনেক নিরাময়যোগ্য। সহজে এবং খুব কম খরচে আক্রান্ত হওয়ার আগে ও প্রাথমিক পর্যায়ে ক্যান্সার রোগ শনাক্ত করা যায় বলে এতে ক্যান্সার নিরাময় হওয়ার সুযোগ থাকে প্রায় শতভাগ। মনে রাখতে হবে রোগের পর্যায় যত বাড়তে থাকে, রোগ নিরাময়ের সম্ভাবনা ততই কমতে থাকে। তবে এ ক্যান্সার এমন এক ধরনের ক্যান্সার, যা দ্বিতীয় ও তৃতীয় পর্যায়ে শনাক্ত হলেও নিরাময় হওয়ার সম্ভাবনা থাকে ৬০ থেকে ৭০ শতাংশ। এমনকি চিকিৎসার মাধ্যমে রোগীকে উপসর্গমুক্ত স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয়। কিন্তু চিকিৎসা ঠিকমতো না হলে রোগাক্রান্ত জায়গা আবার আক্রান্ত হয়। এ রোগ মূলত জরায়ু সংলগ্ন অঙ্গ যেমন : মূত্রথলি, পায়ুপথ, পেটের নিচে বিস্তৃত হয়। অনেক কারণে এই জরায়ু মুখের ক্যান্সার হতে পারে। তবে হিউম্যান পেপিলোমা ভাইরাস নামক জীবাণুকে আজকাল এ রোগের জন্য বেশি দায়ী করা হয়ে থাকে। মূলত যাদের অল্প বয়সে বিয়ে হয়, ঘনঘন সন্তান প্রসব করে, অল্প বয়সে বারবার যৌন মিলন করে, নিজের বা স্বামীর একাধিক বিয়ে হয় এরূপ নারীদের জরায়ুমুখে ক্যান্সার হওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে। এ রোগের লক্ষণ – প্রাথমিক পর্যায়ে দুর্গন্ধযুক্ত সাদাস্র্রাব, রক্ত মিশ্রিত স্র্রাব, স্বামী সহবাসের পর রক্ত যাওয়া, প্রস্র্রাব-পায়খানা করতে সমস্যা, পিঠে ব্যথা, কোমরে ব্যথা, শরীর ফুলে যাওয়া ও রক্তশূন্যতা ইত্যাদি।

বর্তমানে বাংলাদেশে খুব সহজ পদ্ধতিতে ও কম খরচে জরায়ুমুখ ক্যান্সার পূর্ব অবস্থা নির্ণয়ের ব্যবস্থা চালু হয়েছে। যে পদ্ধতিতে তা শনাক্ত করা হয় তাকে ভায়া বলে। ভায়া পদ্ধতি ২০০৪ সালের সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশে চালু হয়। বর্তমানে দেশের সকল সরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, জেলা সদর হাসপাতাল, মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র, নির্ধারিত ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র, নির্ধারিত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বিনামূল্যে ভায়া পরীক্ষা করা হয়। এছাড়াও ঢাকায় কয়েকটি বেসরকারি হাসপাতালে ভায়া পরীক্ষা করানো যায়। এ পদ্ধতিতে শতকরা ৫ ভাগ এসিটিক এসিড একটি তুলার বলে মিশিয়ে জরায়ু মুখে এক মিনিট লাগিয়ে রাখা হয়। এক মিনিট পর জরায়ু-মুখের কোন অংশ সাদাবর্ণ ধারণ না করলে তার ক্যান্সার পূর্ব অবস্থা অনুপস্থিত (ভায়া নেগেটিভ) ধরা হয় এবং তাকে তিন বছর পর আবার ভায়া করার জন্য পরামর্শ দেয়া হয়। অপরদিকে কোন নারীর ভায়া পজেটিভ হলে কল্পোস্কপি অর্থাৎ মাইক্রোস্কোপ জাতীয় যন্ত্রের সাহায্যে জরায়ুমুখ বড় করে সবচেয়ে অস্বাভাবিক অংশটি থেকে বায়োসপি পরীক্ষা করা হয়। বায়োসপি জরায়ু মুখের ক্যান্সারপূর্ব অবস্থা শনাক্তকরণের সবচেয়ে কার্যকরী পদ্ধতি। পরবর্তীতে পরীক্ষার মাধ্যমে সঠিকভাবে ক্যান্সারপূর্ব অবস্থা নির্ণয়ের জন্য উচ্চতর সেবাকেন্দ্রে রোগীকে পাঠানো হয়।

মনে রাখতে হবে, ভায়া পজেটিভ হলেই আতঙ্কগ্রস্ত হওয়ার কিছু নেই। কারণ ভায়া পজেটিভ মানেই ক্যান্সার নয়। তবে ভায়া পজেটিভ হলে পরবর্তী ৩ থেকে ১০ বছরের মধ্যে ক্যান্সার হতে পারে। ডাক্তারদের ভাষ্যমতে প্রতি ১০০ জন নারী ভায়া টেস্ট করালে ৪-৫ জনের পজেটিভ পাওয়া যায়। এই ৪-৫ জনের মধ্যে মাত্র ২-৩ জনের ক্যান্সার হবার আশঙ্কা থাকে। বাকিদের জরায়ুমুখ এই পরীক্ষায় সম্পূর্ণ স্বাভাবিক পাওয়া যায়। নিশ্চিতভাবে ক্যান্সার পূর্ব অবস্থা নির্ণয় করা হলে এসব রোগীদের প্রয়োজন অনুসারে চিকিৎসা দেয়া হয়। চিকিৎসা নিলে এসব রোগীরা নানা ধরনের জটিলতা এড়াতে পারেন। তাদের জরায়ু ফেলে দেয়ার প্রয়োজন হয় না। জরায়ুর মুখ পুড়িয়ে দিলে বা কেটে ফেললে ভবিষ্যতে ক্যান্সার হবার আশঙ্কা থাকে না এমনকি চিকিৎসার পর গর্ভধারণ করাও সম্ভব হয়।

যেসব নারী নিরাপদ যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য সম্পর্কে সচেতন নন এবং সমস্যার প্রাথমিক পর্যায়ে স্বাস্থ্যকর্মী পরামর্শ নেন না, তাদের এ ক্যান্সারে আক্রান্ত হবার আশঙ্কা থাকে। তাই জরায়ুমুখ ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে বিভিন্ন বিষয়ে জনসচেতনতা তৈরি করা প্রয়োজন। বাল্যবিবাহ ও বহুবিবাহ বন্ধ করা, বিশ্বস্ত যৌনসঙ্গী রাখা, ২-১টির বেশি সন্তান না নেয়া, যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য সম্পর্কে সচেতন হওয়া জরায়ুর মুখ ক্যান্সার প্রতিরোধের উপায় বিশেষজ্ঞদের মতে তৃণমূল পর্যায়ে ভায়া পদ্ধতি ছড়িয়ে দিতে পারলে প্রাথমিক পর্যায়ে জরায়ুমুখের ক্যান্সার শনাক্ত করা সম্ভব হবে। ফলে রোগীর পরিবার আর্থিকভাবে যেমন সর্বস্বান্ত হবে না, তেমনি মাতৃৃমৃত্যুর হারও কমিয়ে আনা সম্ভব হবে।

জরায়ুমুখের ক্যান্সারের জন্য দায়ী হিউম্যান পেপিলোমা ভাইরাস (এইচপিডি) প্রতিরোধে বেশকিছু পদক্ষেপ নেয়া যায় : এইচপিভি টিকা নেয়া, এইচপিভি-১৬ ও এইচপিভি-১৮ এর প্রতিষেধক টিকা (সারভারিক্স) এবং এইচপিভি-১৬,১৮,১১ ও ৬ এর প্রতিষেধক টিকা নেয়া হলে শরীরে এ ভাইরাসের বিরুদ্ধে কার্যকর এন্টিবডি সৃষ্টি হয়। ফলে জরায়ুতে ঝুঁকিপূর্ণ ভাইরাস আক্রান্ত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আগে থেকেই শরীরে সৃষ্টি হওয়া এন্টিবড়ি তা ধ্বংস করে দেয়।

আমাদের দেশের নারীরা লাজুক হওয়ায় তারা ডাক্তারের কাছে যেতে সংকোচবোধ করে। ফলে তারা এ বিষয়ে কারো কাছেই মুখ খুলতে চান না। এতে সমস্যা কঠিন আকার ধারণ করে, অথচ শুরুতেই ডাক্তারের কাছে গেলে এ সমস্যা থেকে সহজেই রক্ষা পাওয়া সম্ভব। তাই আসুন রোগ নিয়ে লজ্জিত না হয়ে ডাক্তারের স্মরণাপন্ন হই। জরায়ুমুখ ক্যান্সার বিষয়ে সচেতন হই। নিজে সুস্থ থাকি অপরকেও সুস্থ থাকতে সহযোগিতা করি।

[পিআইডিÑশিশু ও নারী উন্নয়নে সচেতনতামূলক যোগাযোগ কার্যক্রম ফিচার]

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
অক্টোবর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« সেপ্টেম্বর    
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১