জেলায় দরিদ্র ৮০ হাজার মানুষকে খাদ্য সহায়তার পরিকল্পনা - কক্সবাজার কন্ঠ । জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল

শুক্রবার, ৩ এপ্রিল ২০২০ ২০শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০৩-২৫ ২০:০৯:৪০

জেলায় দরিদ্র ৮০ হাজার মানুষকে খাদ্য সহায়তার পরিকল্পনা

দৈনিক কক্সবাজার:  করোনা ভাইরাসের কারনে জেলায় খাদ্য সংকট মোকাবিলায় পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে প্রশাসন। সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচির আওতায় হত দরিদ্রদের জন্য আপদকালিন সহায়তার জন্য বরাদ্দ চেয়ে মন্ত্রনালয়ে চিঠি পাঠিয়েছে জেলা ত্রাণ ও পূর্ণবাসন কর্মকর্তা। অসহায় মানুষ যাতে স্বল্প মূল্যে চাল পায় এবং সরকারের গুরুত্বপূর্ণ কর্মসূচি ভিজিএফ এবং জিআর চালু করা হচ্ছে শীগ্রই। ফলেখাদ্য বান্ধব উক্ত কর্মসূচী চালু হলে সাধারণ মানুষ খাদ্য সংকটে পড়বেনা বলে দাবি এ কর্মকর্তার। জেলায় আপদকালিন মওজুদ হিসাবে বর্তমানে ২’শ মে.টন চাল, নগদ ৩ লাখ টাকা রয়েছে। আগামি ২ মাসে জেলার ৮০ হাজার দরিদ্র জনগোষ্ঠি ২০ কেজি করে চাল পাবে এমনটাই জানিয়েছেন জেলা ত্রান ও পূর্ণবাসন কর্মকর্তা। এছাড়া সরকার ১০ টাকার চাল কর্মসূচি ও চালু করা হয়েছে এমনটাই জানিয়েছেন জেলা খাদ্য কর্মকর্তা

জেলা ত্রাণ ও পূর্ণবাসন কর্মকর্তা মোঃ মাহবুব হাসান জানান, করোনা ভাইরাস দেশব্যাপী সব কিছু পরিবর্তন করে দিচ্ছে। সারা দেশব্যাপী আপদকালিন খাদ্য মওজুদ করা হচ্ছে। কক্সবাজার জেলায় ৮০ হাজার দরিদ্র জনগোষ্ঠির ২ মাসের জন্য আমরা খাদ্যের চাহিদাপত্র গতকাল মন্ত্রনালয়ে প্রেরণ করেছি। এরমধ্যে ৩ হাজার ২শ মে.টন ভিজিএফ চাল, ১ হাজার মে.টন জিআর চাল, ৫০ হাজার প্যাকেট শুকনা খাবার, নগদ ৫০ লাখ টাকার চাহিদা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া আমাদের বর্তমানে আপদকালিন সরবরাহের জন্য মওজুদ রয়েছে ২শ মে.টন চাল এবং ৩ লাখ টাকা। আগামি ২ মাস সুরক্ষা কর্মসূচির আওতায় প্রতিটি পরিবার ২০ কেজি করে চাল পাবে। আমরা স্থানীয় সরকারের জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে তালিকা প্রস্তুত করে স্বচ্ছতার সাথে বিতরণ করতে পারব। নগদ ৫০ লাখ টাকা কিভাবে ব্যয় করা হবে সে প্রশ্নের জবাবে ত্রাণ ও পূর্ণবাসন কর্মকর্তা জানান, জেলার করোনা রোগিদের সুরক্ষা এবং হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসক এবং নার্সদের জন্য এ টাকা ব্যয় করা হবে জেলা প্রশাসকের অনুমতিক্রমে। এ টাকা কোয়ারেন্টাইন এবং আইসালেশনসহ করোনা আক্রান্ত রোগিদের জন্য ব্যবহারের উপর গুরুত্বারোপ করা হবে বলে জানিয়েছেন এ কর্মকর্তা।
এদিকে আপনকালিন বরাদ্দ হিসাবে এবং সরকারের খাদ্য বান্ধব কর্মসূচি ১০ টাকার চাল কার্যক্রম শুরু করেছে জেলা খাদ্য অধিদপ্তর। জেলা ভারপ্রাপ্ত খাদ্য নিয়ন্ত্রক দেবদাস চাকমা বলেন- জেলায় ৮ উপজেলার ৮৭ হাজার ৭২৩ পরিবারের জন্য ২৬৩১ মে.টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। প্রতি কার্ডধারী পরিবার ৩০ কেজি করে চাল বরাদ্দ পাবে। প্রতিকেজি চালের দাম ১০ টাকা করে নেওয়া হবে। আগামি এপ্রিল শেষ নাগাদ এ চাল বিতরণ চলবে। দেবদাস চাকমা বলেন- আমরা চেয়ারম্যানদের বলে দিয়েছি বেশি সংখ্যক লোক সমাগম না হয়ে যে আসবে তাদের ডিলাররা যেন চাল দিয়ে দেন। করোনা ঝুঁকির কারনে বেশি সংখ্যক কার্ডধারী যাতে একসাথে চাল নিতে না আসে সে ব্যাপারে সর্তক করা হয়েছে।
এদিকে সরকারের আপনকালিন বরাদ্দ অর্পযাপ্ত বলে মনে করেন উপকারভোগিরা। তাদের দাবি করোনা যেহেতু দীর্ঘ সময় আক্রান্ত হওয়ার আশংকা রয়েছে সেহেতু সরকারের পরিকল্পনা আরো দীর্ঘ এবং বরাদ্দ আরো বৃদ্ধি করা জরুরি।

আরো সংবাদ