জেলা কারাগারে কয়েদির আত্মহত্যা, তদন্ত কমিটি গঠন! - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১৭ জানুয়ারী ২০২১ ৩রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-১১-৩০ ২১:০০:২৮

জেলা কারাগারে কয়েদির আত্মহত্যা, তদন্ত কমিটি গঠন!

জেলা কারাগারে কয়েদির আত্মহত্যা, তদন্ত কমিটি গঠন

নিজস্ব প্রতিবেদক :  কক্সবাজার জেলা কারাগারে এক কয়েদি আত্মহত্যা করেছেন। ৩০ নভেম্বর সন্ধ্যায় মোহাম্মদ মোস্তফা নামের ঐ কয়েদি গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেন। তার বাড়ি কক্সবাজার সদরে। কক্সবাজার জেলা কারাগারের সুপার নেছার আহমেদ এ তথ্য নিশ্চিত করেন। কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল সূত্রে জানাগেছে, সোমবার সন্ধ্যায় মোহাম্মদ মোস্তফা (২৫) নামের এক কয়েদিকে হাসপাতালে আনা হয়। হাসপাতালের আনার আগেই তিনি মারা যান। মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

কক্সবাজার জেলা কারাগারের সুপার নেছার আহমেদ জানান, কয়েদি মোস্তফা একটি মারামারি মামলার আসামী। ২৯ নভেম্বর রবিবারে আদালত তার ১ দিনের রিমান্ড মঞ্জর করে। ৩০ নভেম্বর সোমবার সন্ধ্যায় কারাগারের ভেতরে তিনি গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেন। তাকে উদ্ধার করে দ্রুত কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। জেলা সুপার আরও বলেন, এ ঘটনায় পৃথক ২টি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটি আগামী ২ দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করবেন।

এদিকে একাধিক সূত্র জানিয়েছে, অনিয়ম দুর্নীতির স্বর্গরাজ্য হয়ে উঠেছে কক্সবাজার জেলা কারাগার। চলছে বেপরোয়া ঘুষ বানিজ্যের মহোৎসব। টাকা না দিলেই বন্দীদের কপালে জুটছে নরক যন্ত্রণা। বর্তমান জেল সুপার নেছার আলম যোগদানের পর থেকে সেখানকার অভ্যন্তরীন অবস্থা নগদ নির্ভর হয়ে পড়ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

জানাগেছে টাকা দিলে খোদ জেল সুপার এবং জেলার মোস্তফা কামাল বাঘা বাঘা মাদক ব্যাবসায়ীদের দিচ্ছেন বিশেষ সুবিধা। আর না দিলে বন্দীদের উপর চলে অনানুষিক অত্যচার। ফলে সাম্প্রতিক সময়ে কক্সবাজার কারাগারের সার্বিক পরিস্থিতির নজিরবিহীন অবনতি ঘটেছে। তবে জেল সুপারের এ বক্তব্যে দ্বিমত পোষণ করে সদ্য কারামুক্ত কয়েকজন হাজতী প্রতিবেদকে জানান, বন্দীর আত্ম হত্যার বিষয়টি রহস্যজনক। কারন সেখানে এখন টাকা ছাড়া মানুষের কোনো মূল্য নেই। তারা বলেন, বর্তমানে কারাগারে স্বাক্ষাত প্রতি ৫ থেকে ৬ হাজার টাকা নিয়ে দিনভর জমজমাট অফিস কল চলছে। বন্দীদের জিম্মি করে টাকা আদায়ের ঘটনা মাত্রা ছাড়িয়ে গেছে।

কারা অভ্যন্তরে ভাল থাকার সিট, চিকিৎসা, ফোনে কথা বলা, জামিনে যাওয়ার সময় নগদ নারায়নসহ কোন কিছুই টাকা ছাড়া হচ্ছে না। বড় বড় মাদক ব্যবসায়ীরা টাকা দিয়ে পুরো কারাগারের আরাম আয়েশের সব জায়গা দখল করে রেখেছে বলে জানিয়েছে কয়েকটি নির্ভরযোগ্য সূত্র। এদিকে কারাগারে বন্দী আত্মহত্যার ঘটনা জানাজানি হওয়ায় নিজেকে দায়মুক্ত করতে জেল সুপার দুটি পৃথক তদন্ত কমিটি গঠন করে দিয়েছে বলে জানা গেছে।

আরো সংবাদ