জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখায় যেন সোনার খনি - কক্সবাজার কন্ঠ । জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল

শুক্রবার, ৩ এপ্রিল ২০২০ ২০শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০২-২২ ২২:০৩:০০

জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখায় যেন সোনার খনি

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার: পর্যটনখ্যাত কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখায় যেন সোনার খনি। তাই যোগদানের অল্প দিনের মধ্যে টাকার কুমিরে পরিণত হয় একেকজন সার্ভেয়ার। বর্তমানে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের এলএ শাখার কোটিপতি সার্ভেয়ার ১২ জন এবং কানুনগো ৬ জনের সম্পদ কত? তা কারো জানা নেই। যদি তাদের সম্পদ বিবরণী জমা নেয়া হলে জানা যাবে কত টাকার মালিক তারা!
তারা প্রত্যেকে কোটি কোটি টাকার মালিক। সম্প্রতি সার্ভেয়ার এমদাদ কানুনগো পদোন্নতি নিয়ে নিরাপদে চলে গেছেন। আবদুল বাতেন আছেন স্বগৌরবে। কিছু দিন আগে তিনি একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে ৫০/৫৪ জনকে বিমানে চড়িয়ে কক্সবাজার থেকে ঢাকায় নিয়ে যান!

Advertisements

তবে শুধু সার্ভেয়ার নয়, এই শাখায় দায়িত্বরত ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা (এলও), অতিরিক্ত ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা, কানুনগো এবং কর্মচারীরাও দুর্ণীতিতে পিছিয়ে নেই। এলএ শাখায় একবার চাকুরি করার সুযোগ হলে জীবনে আর তাকে পেছনে ফিরে থাকাতে হয় না বলে মন্তব্য জেলা প্রশাসনে কয়েকজন কর্মচারীর। তাদের দাবী, ভূমি অধিগ্রহণের ক্ষেত্রে প্রথম এবং সবচেয়ে বেশি ভূমিকা থাকে সার্ভেয়ারের। সার্ভেয়ারের প্রতিবেদনের উপর নির্ভর করে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি ক্ষতিপূরণের টাকা পাবেন কি পাবেন না। তাই যোগদানের অল্প কিছুদিনের মধ্যেই টাকার কুমিরে পরিণত হয় তারা।
জেলা প্রশাসনের একজন কর্মচারীর সাথে কথা হলে তিনি জানান, সপ্তাহের প্রতি বৃহস্পতিবার কক্সবাজার থেকে টাকা পাচার করে সার্ভেয়ারেরা। সপ্তাহজুড়ে হাতিয়ে নেয়া দুর্নীতির লাখ লাখ টাকা তারা বিমানে করে নিয়ে যান। ঢাকায় পরিবার এবং আত্মীয় স্বজনের নামে করা বিভিন্ন ব্যাংক হিসাবে জমা রাখেন। ওই কর্মচারীর ভাষ্যমতে,তারা সপ্তাহের প্রতি বৃহস্পতিবার বস্তাভর্তি টাকা নিয়ে ঢাকায় যান।
জেলা প্রশাসনের একজন কর্মচারী জানান, ১৩ ও ১৪ ফেব্রুয়ারী মহেশখালী উপজেলার কালারমারছড়ার নয়াপাড়া এলাকার একটি রাস্তা নির্মাণ প্রকল্পের জন্য অধিগ্রহণকৃত ১৩/১৮-১৯ মামলার ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিকদের প্রায় ৪ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণের চেক দেয়া হয়। নিয়ম না মেনে সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে চেক গুলো ক্ষতিগ্রস্তদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এলএ শাখার শীর্ষ দালাল কালারমারছড়ার জালাল উদ্দিন, নুরুল ইসলাম বাহাদুর, জাফর আলম এবং মমতাজের মাধ্যমে চেকগুলো ক্ষতিগ্রস্তদের হাতে তুলে দেয়া হয়।
জানাগেছে, শহরের বাহারছড়া এলাকার পিটিআইস্কুল সংলগ্ন আব্দুল হালিমের বাসার ৩য় তলার সার্ভেয়ার ফরিদের বাসা থেকে চেকগুলো বিতরণ করে সার্ভেয়ার ফরিদ ও ওয়াসিম (র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার)।

Advertisements

চেকগুলো বিতরণ করার জন্য ক্ষতিগ্রস্তদের পানি উন্নয়ন বোর্ডের সামনে সন্ধ্যায় জড়ো করা হয়। পরে সেখান থেকে চারজনের গ্রুপ করে সার্ভেয়ার ফরিদের বাসায় নিয়ে গিয়ে চেক বুঝিয়ে দেয়া হয়। প্রত্যেক চেক থেকে তারা আদায় করে নেয় মোট টাকার ৩০ শতাংশ কমিশন। কমিশনের ওই সকল চেক সোমবার ও মঙ্গলবার ক্যাশ করা হয়।
এছাড়াও মাতারবাড়ির কয়লা বিদ্যুৎ এবং এসপিএম প্রজেক্টের ক্ষতিপূরণের কয়েকটি কমিশনের চেক ক্যাশ করে চলতি সপ্তাহে। সপ্তাহজুড়ে ক্যাশ করা দুর্নীতির টাকা বৃহস্পতিবার ঢাকায় নেয়ার আগেই বুধবার ধরা পড়ে।
সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়, সপ্তাহজুড়ে হাতিয়ে নেয়া লাখ লাখ টাকা ঢাকায় পাচার করতে সহযোগিতা করে চিহ্নিত কিছু দালাল। টাকা বেশি হলে কয়েক ব্যাগে ভাগ করে সার্ভেয়ারদের সাথে ২/৩ জন দালালও প্রতি বৃহস্পতিবার বিমানে করে ঢাকা যান। এছাড়াও এসএ পরিবহন এবং নিজেদের ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমেও সার্ভেয়ারদের টাকা ঢাকায় পাচারে সহযোগিতা করে দালালেরা।
এদিকে সার্ভেয়ার ওয়াসিম গ্রেপ্তারের পর সর্বত্র তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে চরম আতঙ্কে রয়েছে এলএ শাখার দালালেরা। কক্সবাজার শহরের বিভিন্ন স্থানে অবস্থিত দালালদের অফিসগুলোতেও অভিযানের ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। কেউ কেউ গা ঢাকা দিয়েছে বাঁচার জন্য। আর জেলা প্রশাসনের এলএ শাখায় বিরাজ করছে শুনশান নিরবতা।
অন্যান্যরা অফিসে আসলেও সার্ভেয়ার ফেরদৌস ও ফরিদ গত বৃহস্পতিবার অফিসে যাননি। যেসব সার্ভেয়ার অফিস করেছেন তাদের চোখেমুখেও আতঙ্কের ছাপ দেখা গেছে। সার্ভেয়ারদের পাশাপাশি কানুনগো ও ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তারাও সারাদিন বেশ আতঙ্কে দিন পার করেছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রত্যেক সার্ভেয়ার বৃহস্পতিবার ঢাকায় পাচারের জন্য বিপুল পরিমাণ টাকা জমা করে। কিন্তু হঠাৎ র‌্যাবের অভিযানে চলতি বৃহস্পতিবারে সবকিছু লন্ডভন্ড হয়ে গেছে। বাসায় অভিযানের ভয়ে দুর্নীতির লাখ লাখ টাকা দালালদের হাতে তুলে দিচ্ছে। দালালেরা তাদের নিজস্ব ব্যাংক হিসাবে জমা করছে। কোন কোন দালাল নিজের বাড়িতেও জমা রাখছে সার্ভেয়ারের টাকার বস্তা। বৃহস্পতিবার সার্ভেয়ার রাসেল, কবির, জাহাঙ্গীরসহ আরও কয়েকজন সার্ভেয়ারের টাকা ব্যাংকে কয়েক দফায় জমা করেছেন শীর্ষ দালাল কালারমারছড়া আধারঘোনা এলাকার আমান উল্লাহ ও একই এলাকার আব্দুল হান্নান। তারা বৃহস্পতিবার দুপুরে মিউচুয়্যাল ট্রাস্ট ব্যাংক ও উত্তরা ব্যাংকে তাদের নিজস্ব হিসাবে টাকা জমা রাখে। এছাড়া আরও কয়েকজন দালালের মাধ্যমে সার্ভেয়ারেরা বিভিন্ন ব্যাংকে টাকা জমা করেছে বৃহস্পতিবার।
বৃহস্পতিবার শহরের বিভিন্ন স্থানে অবস্থিত দালালদের অফিস সরেজমিন পরিদর্শন করা হয়। দালালদের এসব অফিস যেন একেকটি এলএ শাখা। হোটেল ইডেন গার্ডেনের নিচতলায় রয়েছে বাবুল হোসাইন রনি নামে এক দালালের অফিস। তাঁর অফিসে আরও বসে ভেন্ডার রফিক, আমান, মমতাজসহ বেশ কয়েকজন। হোটেল গার্ডেনে রয়েছে মাতারবাড়ির শীর্ষ দালাল আমানের অফিস। এমএস গেস্ট কেয়ারের ২য় তলা ও ৪র্থ তলায় এবং সৈকত পেপার এজেন্সির পেছনে অফিস রয়েছে শীর্ষ দালাল সঞ্জয়ের। সঞ্জয় নকল দলিল ও নকল এসেসমেন্ট তৈরীর মূল কারিগর। সঞ্জয়ের ভূয়া দলিল ও এসেসমেন্টের খপ্পরে পড়ে সর্বশান্ত হয়েছে শত শত ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিক। সঞ্জয় হাতিয়ে নিয়েছে কোটি কোটি টাকা।
এছাড়াও হলিডে মোড়ে হোটেল সীলভার সাইনে বসে অফিস করেন সোনারপাড়ার দালাল জসিম। গত ৬ মাসে এই জসিম কাননগো ও সার্ভেয়ারদের সাথে দালালি করে কয়েক কোটি টাকার মালিক হয়েছে। শহরের বাহারছড়ায় কিনেছে কোটি টাকার জমি, কালো গাড়ি, ব্যাংক ব্যালেন্সসহ কোটি কোটি টাকার সম্পদ। দুর্নীতিবাজ কয়েকজন সার্ভেয়ারের টাকাও তার কাছে জমা রয়েছে বলে সুত্রে প্রকাশ।
বার্মিজ মার্কেট এলাকার বানু প্লাজায় রয়েছে আরেক শীর্ষ দালাল রফিকের অফিস। কলাতলীর মোড়ের একটি নির্মাণাধীন ভবনেও দালালদের একটি অফিস রয়েছে। এই অফিসে ১৫ থেকে ২০ জন দালালের আনাগোনা থাকে নিয়মিত। এরমধ্যে সাইফুল দালাল শীর্ষে রয়েছে।

এলএ শাখার অন্যতম শীর্ষ দালাল জালাল উদ্দিন চক্র। এই চক্রে নেতৃত্ব দেন কালারমারছড়ার মৃত ফজলুল করিমের ছেলে জালাল উদ্দিন, মৃত হোছন আলীর ছেলে নুরুল ইসলাম বাহাদুর, মৃত নুরুল হুদার ছেলে জাফর আলম, মৃত হোসেনের ছেলে মমতাজ। এ চারজন বাইরে কাজ করলেও তাদের হয়ে এলএ শাখায় কাজ করে হোয়ানকের আমান। তাদের অফিস হোটেল গার্ডেনে।
শীর্ষ দালালদের মধ্যে এলএ অফিসে বর্তমানে সবচেয়ে বেশি তৎপরতা রয়েছে মহেশখালী উপজেলার শাপলাপুর ইউনিয়নের মোহাম্মদ সেলিম, হোয়ানকের ইব্রাহিম (হোটেল গার্ডেনে অফিস), মাতারবাড়ির হেলাল, শাপলাপুরের দিদার (হোটেল নিরিবিলিতে অফিস), মাতারবাড়ির বাবর চৌধুরী, কালারমারছড়া ইউনিয়নের আব্দুল হান্নান, একই এলাকার আমান উল্লাহ, কালারমারছড়ার নুনাছড়ি এলাকার লকিয়ত উল্লাহ, মাতারবাড়ির হোছাইন (অফিস হোটেল নিরিবিলি), ধলঘাটা ইউনিয়নের তাজ উদ্দিন (হোটেল সৈয়দিয়ায় অফিস), পেশকারপাড়া এলাকার মো. মুবিন ওরফে উত্তর বঙ্গের মুবিন, মাতারবাড়ি ইউনিয়নের সাগর, ঈদগাঁও এলাকার মো. তৈয়ব, আরিফ, রশিদ নগর ইউনিয়নের মো. শাহজাহান, ঘোনারপাড়ার আলমগীর টাওয়ারের মালিক আলমগীর, ঘোনার পাড়াস্থ বাদশা ঘোনার সোলামাইন, ধলঘাটার মো. শফিউল আলম, শহরের কলাতলী এলাকার সাজ্জাদ সাহিত্যিকা পল্লী এলাকার মালেক, লালদীঘির পাড়স্থ ইডেন গার্ডেন সিটির নীচ তলার একটি অফিস নিয়ন্ত্রণ করে রনি, মোস্তাফিজ, শফিক, হোছন, মোর্শেদ মেহেদী। ঢাকা হোটেলে আবুল হাশেম, সাদ্দাম, হেলালের অফিস। সাথে রয়েছে আরো কয়েকজন দালাল। ভুমি অফিসের শক্তিশালী দালাল চক্র সিন্ডিকেটের প্রধান সরকারী ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারি হাশেম। ঝাউতলায় অফিস করেছে সাহাব উদ্দিন, হাজি ফরিদ, আবু ছালেক মামুন সিন্ডিকেট। হোটেল এম. রহমানে খোরশেদ আলম সিন্ডিকেট, শহীদ সরণিস্থ হোটেল কোহিনূর-এ রমিজ, মতিন, আসাদ উল্লাহর অফিস। দালাল মুসা, হেলাল ও মৌলভী মোর্শেদের অফিস হলিডে মোড়ের হোটেল এলিন পার্কে। হোটেল হলিডে তে অফিস রয়েছে অলিদ চৌধুরী, ঢাকার আহাদ, মিঠুনের। উখিয়ার জালিপালং এর চোয়ানখালী আব্দুর রহিম, মনখালীর মোস্তাক আহমদ, কুমিল্লার বাহার, ঈদগাও এলাকার আরিফ, সোস্যাল ব্যাংকের কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম, মাতারবাড়ীর আশেক, শাপলাপুরের সেলিম, ধলঘাটার তাজ উদ্দিন, মাতারবাড়ীর পাতলা হোসেন, কালারমারছড়ার মোটা হোসেন ড্রাইভার, কথিত এডভোকেট নামধারি মুসলিম, সাঈদ, আনসার, কলিম উল্লাহ ও রেজাউল করিম। মহেশখালীর ঝাপুয়ার খোরশেদ, হোয়ানক হাবিরছড়া মো. ইব্রাহিমকে,কালারমারছড়ার নোমান, নুনাছড়ির রকি উল্লাহ রকি ও মাতারবাড়ির মাইজপাড়ার আবদুল কাইয়ুম, উখিয়ার বশর, হেলাল, কক্সবাজার পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা সালাহ উদ্দিন, মহেশখালীর নুরুল হুদা কাজল, পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা কুতুব উদ্দিন, শহরের নিরিবিলির ৪র্থ তলায় সিন্ডিকেট অফিস নিয়ে ফয়জুল আলম, ইনানীর আহমদ হোসেন, মহেশখালীর রনি, পিএমখালীর নুরুল আবছার, মহেশখালীর দিদার, শহরের বানু প্লাজায় অফিস নিয়ে রফিক। এছাড়াও এলএ শাখার অন্যতম শীর্ষ দালাল জালাল উদ্দিন চক্র। এই চক্রে নেতৃত্ব দেন কালারমারছড়ার মৃত ফজলুল করিমের ছেলে জালাল উদ্দিন, মৃত হোছন আলীর ছেলে নুুরুল ইসলাম বাহাদুর, মৃত নুরুল হুদার ছেলে জাফর আলম, মৃত হোসেনের ছেলে মমতাজ প্রমুখ। এছাড়াও উক্ত দালাল চক্রের মধ্যে কথিত সাংবাদিক, আইনজীবি, সরকারী অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারি, বহিরাগত, রাজনীতিবিদসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ রয়েছে। যা সংশ্লিষ্ট দপ্তর অবগত রয়েছে। এলএ অফিসের চারদিকে সিসি ক্যামেরা সক্রিয় রয়েছে। ভিডিও ফুটেজ দেখলে বুঝা যাবে আসলে কারা দালালী করে? অভিযুক্ত দালালদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে বিভিন্ন মহল হতে সম্প্রতি দাবী উঠেছে প্রশাসনের কাছে। তাদের কারনে হাজারো জমি’র মালিক আজ পথে বসেছে বলে সূত্রটি দাবী করছেন।
তাছাড়া শহরের লালদিঘী পূর্বপাড়ের পূরাতন এস.আলম কাউন্টারের জমিতে নির্মিত কক্স সিটি সেন্টারেও সম্প্রতি দালালের অফিস গড়ে উঠেছে। এছাড়া বিভিন্ন বাসা বাড়ী কেন্দ্রীক ভ্রাম্যমান কাজ করে এমন অনেক দালাল রয়েছে। সব মিলিয়ে কক্সবাজার ভূমি অধিগ্রহণ অফিস অনেকটা দালালদের কব্জায় চলে গেছে। দালাল ছাড়া কোন কাজই হয়না।
ভুক্তভোগী কয়েকজন জমির মালিক জানান, এলএ শাখার দালালেরা প্রায় চিহ্নিত। কিন্তু প্রশাসন এখন পর্যন্ত দালালদের বিরুদ্ধে কার্যকর কোন পদক্ষেপ নেয়নি। তারা চিহ্নিত দালালদের গ্রেপ্তারে র‌্যাবের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ আশরাফুল আফসার বলেন, দালাল বিতাড়িত করতে জেলা প্রশাসন সব সময় কঠোর অবস্থানে রয়েছে। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকবার দালাল আটক করে জেল-জরিমানাও করা হয়েছিল। এখন র‌্যাব যদি আমাদের কাছ থেকে সহযোগিতা চায় বা আমাদেরকে সহযোগিতা করে তাহলে দুর্নীতিতে জড়িত অফিসের স্টাফ এবং দালালদের আইনের আওতায় আনতে সহজ হবে।
Advertisements

র‌্যাব-১৫ এর পরিচালক লে. কর্ণেল আজিম আহমেদ বৃহস্পতিবার প্রেস ব্রিফিংয়ে দালালদের বিষয়ে বলেন, সার্ভেয়ার ওয়াসিম, ফরিদ ও ফেরদৌসের বাসায় অভিযানের সময় বেশ কিছু ডকুমেন্ট উদ্ধার করা হয়েছে। এর মধ্যে দালাল চক্রের সদস্যদের নামও পাওয়া গেছে। তিনি আরও জানান, এলএ শাখায় দুর্নীতিতে জড়িত দালালদের বিষয়ে আরও তথ্য-উপাত্ত নেয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে বেশকিছু সংখ্যককে চিহ্নিতও করা হয়েছে। শিগগিরই তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে। তাছাড়া টাকা উদ্ধারের ঘটনায় দায়ের করা মামলার তদন্তেও দালাল চক্রের নাম বেরিয়ে আসবে বলে তিনি জানান।

আরো সংবাদ